রোববার ৪ ডিসেম্বর ২০২২ ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

শিরোনাম: উত্তেজনা ছড়িয়ে আর্জেন্টিনার কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত    যুবদল সভাপতি টুকু গ্রেপ্তার    রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের ‘ব্লক রেইড’    বনানীতে জঙ্গি সদস্য অবস্থান সন্দেহে হোটেল ও মেস ঘিরে রেখেছে পুলিশ    ফের বাড়ল স্বর্ণের দাম, দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ    বাংলাদেশের উন্নয়ন ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা নিয়ে প্রচারণা চালাবে সিএনএন    চিকিৎসা বিজ্ঞানের মৌলিক গবেষণায় ডব্লিউএইচএফ’র সহযোগিতা কামনা প্রধানমন্ত্রীর   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
বাংলাদেশের আলোকবর্তিকা শেখ হাসিনা
ড. কাজী এরতেজা হাসান
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ৯:২৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘অলৌকিক আনন্দের ভার’ বইবার শক্তি সৃষ্টিকর্তা অপারভাবে তাকে দিয়েছেন। প্রায় অর্ধশত প্রাপ্ত উপাধি, সম্মাননা, ডিগ্রি কিংবা পুরস্কারের মতো বাংলার দুঃখী মানুষের হাসি দেখে নিজেকে নিত্য আপ্লুত ও উজ্জীবিত রেখেছেন। তিনি আর কেউ নন, তিনি ১৭ কোটি বাঙালির আশা, ভরসা এবং আস্থার প্রতীক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, আমাদের প্রধানমন্ত্রী, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। মূলত শেখ হাসিনা এক সংগ্রামশীল নারীর নাম। উপমহাদেশের পারিবারিক উত্তরাধিকার কেন্দ্রিক রাজনীতির পরিপোষক হিসেবে তিনি পরিজ্ঞাত নন। কোনোভাবেই তুলনীয় নন শ্রীমতী ইন্দিরা গান্ধী, তদীয়পুত্র রাজীব গান্ধী, শ্রী মাভো বন্দর নায়েকে, তার কন্যা চন্দ্রিকা কুমারাতুঙ্গা, মেঘবতী সুকর্ণপুত্রী, অং সান সু চি ও বেনজীর ভুট্টোর সঙ্গে। তার চলার পথ কুসুমাস্তীর্ণ ছিল না। ইন্দিরা গান্ধী বা রাজীব গান্ধীর মতো পিতা-মাতার অবর্তমানে মন্ত্রিত্ব বা প্রধানমন্ত্রিত্ব দিয়ে তাঁর অভিষেক ঘটেনি। বন্দর নায়েকে, চন্দ্রিকা কুমারাতুঙ্গা, মেঘবতী সুকর্ণপুত্রী বা বেনজীর ভুট্টোর মতো অতি অল্পকাল পরে রাজনীতির মঞ্চ থেকে তাঁর তিরোধান ঘটেনি। আবার দীর্ঘ সংগ্রাম শেষে অং সান সু চির মতো জান্তার সঙ্গে আপস করে ক্ষমতা আঁকড়ে থেকে জাতিগত নিধনযজ্ঞে তিনি মাতোয়ারা হয়ে নিজের সুনাম ও সুখ্যাতি তলানিতে নিমজ্জন করেননি; বরং সংগ্রামশীল আপসহীন পিতা-মাতার সান্নিধ্যে থেকে রাজনীতির বন্ধুর পাঠ নিয়েছেন।

তিনি ছাত্র রাজনীতির সঙ্গে গভীরভাবে যুক্ত ছিলেন। ইডেন কলেজে অধ্যয়নকালে ছাত্রী সংসদের ভিপি ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালে ছাত্রলীগের হল শাখার সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এরপর বঙ্গবন্ধুর দুঃখজনক প্রয়াণের পর চার দশকব্যাপী আন্দোলন-সংগ্রাম, জেল-জুলুম, বন্দিত্ব ও অন্তরীণ থেকে পরিপক্ক রাজনীতিবিদ থেকে রাষ্ট্রনায়কের দোর্দণ্ড প্রভাবশালী মহীরুহরূপে বিশ্বব্যাপী সমাদৃত হয়েছেন। তিনিই একমাত্র সরকারপ্রধান, যিনি পরিবার পোষণনীতি পরিহারের সাহস দেখিয়েছেন। নিজ দলের তস্করদের তিনি আস্কারা দেননি। পালের গোদা ‘সম্রাট’দের ফকিরে রূপান্তর করে জেলের ভাত খাইয়ে আইনের শাসনকে সুউচ্চমানে ঊর্ধ্বচারী করেছেন। তার নির্লোভের নিশানা এমন আকাশ ছুঁইছুঁই যে, তিনি নিজের নামে পদ্মা সেতুর নামকরণের প্রস্তাব হাসিমুখে ফিরিয়ে দিয়েছেন। পতাকা হাতে খেলার মাঠে জাতীয় দলের খেলোয়াড়দের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন, উজ্জীবিত করেছেন; কখনও নিজ হাতে রান্না করা খাবার খেলোয়াড়দের বাসায় পাঠিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সাথে এমন বন্ধনে আবদ্ধ যা অবিচ্ছেদ্য। আওয়ামী লীগ কোন দিন রাষ্ট্রক্ষমতায় আসতে পারবে তা ছিল আমাদের কাছে দুরাশা। তবু ১৯৯৬ সালে দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলো। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ২০ বছর ৬ মাস পর তাঁর দল ক্ষমতায়। তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী। এই দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব অপাংক্তেয়। তাঁর জয় বাংলা সেøাগান শুধু যে নির্বাসিত তা নয় সেটি উপহাসের এবং নিন্দার। স্বাধীনতা দিবস আর বিজয় দিবসে রাষ্ট্রীয় আনুষ্ঠানিকতায় অনুপস্থিত স্বাধীনতা সংগ্রামের পটভূমির ইতিহাস। মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা, মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী দল আর সরকারের কথা। শুধু আছে এক মেজরের কথা যিনি বেতারে স্বাধীনতা ঘোষণা করেছেন আর সেই ঘোষণা শুনে জনগণ যুদ্ধ করে দখলদার সৈন্যদের পরাজিত করে বিজয় অর্জন করলো, সেই দখলদার সৈন্যের পরিচয়ও গোপন থাকে তাদের নির্মিত ইতিহাসে। কিন্তু ইতিহাস যে বড়ই নির্মম, তা হয়তো তাদের জানা ছিল না। বাংলাদেশের জনগণ এখন সবই জানতে পেরেছে, কিভাবে বাংলাদেশকে পাকিস্তানি ভাবধারায় পরিচালিত করে দেশটাকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করেছিল ষড়যন্ত্রকারীরা। 

রাজনৈতিক তীব্র বিভাজন, দারিদ্র্য এবং বিপুল জনসংখ্যার ছোট আয়তনের একটি দেশ বাংলাদেশ। এখানে পদে পদে সমস্যা, সংকট, ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে রাষ্ট্র পরিচালনা করতে হয়, উন্নতির চাকা সচল রাখতে হয়। এ দেশে প্রধানমন্ত্রীর পথচলা কুসুমাস্তীর্ণ নয়। এই কণ্টকাকীর্ণ পথে অসামান্য দৃঢ়তায় বহু অসাধ্য সাধন করে নিজেকে অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এইতো মাত্র বছর পনেরো আগেও এ দেশে অসম্ভব মনে করা হতো এমন অনেক কিছুই তিনি সম্ভব করে দেখিয়েছেন নিজের সিদ্ধান্তে অবিচল থেকে। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কঠিন সিদ্ধান্ত গ্রহণ এবং অনড় থেকে তা সফলভাবে বাস্তবায়নে শেখ হাসিনার মতো নজির এ দেশে আর নেই। গত চার দশক আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বর্তমানে টানা তিন মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা শেখ হাসিনা এর আগেও এক মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। দল ও রাষ্ট্র পরিচালনার গুরুদায়িত্বে থাকা শেখ হাসিনাকে বিভিন্ন সময়ে বহু সাহসী ও কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। আওয়ামী লীগের অনেক কেন্দ্রীয় নেতাও শেখ হাসিনার ওই সব সিদ্ধান্ত ঠিক হচ্ছে কি না, তা নিয়ে সন্দেহের দোলাচলে থাকতেন। কিন্তু পরবর্তী সময়ে দেখা গেছে, অবিচল থেকে শেখ হাসিনা ঠিকই তাঁর লক্ষ্য পূরণ করে ফেলে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।



১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে এ দেশেরই যে গোষ্ঠী হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাটসহ নানা অপরাধে লিপ্ত হয়েছিল, এ দেশের মাটিতে একদিন তাদের বিচার হবে, এটা যেন অবিশ্বাস্য হয়ে উঠেছিল। যুদ্ধাপরাধীরা রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতা পেয়ে সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে গিয়েছিল, মন্ত্রিসভায় স্থান পেয়েছিল। এই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করা এবং বিচারের রায় বাস্তবায়ন করতে দৃঢ় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলেন শেখ হাসিনা। তিনি এই বিচার ও রায় বাস্তবায়ন না করতে দেশে ও বিদেশে ব্যাপক চাপের মুখে পড়েন। বহু প্রভাবশালী রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে যুদ্ধাপরাধীদের ফাঁসির রায় কার্যকর না করতে শেখ হাসিনাকে অনুরোধ করা হয়। এর পরও পিছু হটেননি তিনি। যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের রায় বাস্তবায়ন করে জাতিকে দায়মুক্ত করেন তিনি। ১৯৭৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে যারা হত্যা করেছিল, তাদের বিচারের মুখোমুখি করতেও নিজের সিদ্ধান্তে অবিচল ছিলেন শেখ হাসিনা। নানা প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও তিনি সেই সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেননি। খুনিদের বিচার ও রায় কার্যকর করে যাচ্ছেন। সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে ৩০ হাজার কোটি টাকার বেশি ব্যয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি সাহসী সিদ্ধান্ত ও দৃঢ়তার অসাধারণ নজির। দুর্নীতির মিথ্যা অভিযোগ তুলে বিশ্বব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন থেকে সরে দাঁড়ায়। এরপর এই প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্ভব হবে না বলে দেশ-বিদেশের বহু বিশেষজ্ঞ মতামত দেন। কিন্তু শেখ হাসিনা লক্ষ্যে অবিচল থেকে সরকারের নিজস্ব অর্থায়নে স্বপ্নের পদ্মা সেতু প্রকল্প বাস্তবায়ন করেন। এ ঘটনা বিশ্বব্যাংকের মতো প্রভাবশালী একটি সংস্থার জন্য চপেটাঘাত স্বরূপ। বিএনপি জোটের অংশগ্রহণবিহীন ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচন সম্পন্ন করা শেখ হাসিনার আরেকটি দৃঢ় সিদ্ধান্তের নজির। এই নির্বাচন সম্পন্ন করা এবং পরবর্তী সময়ে সরকার গঠন নিয়ে অনেকেই নানা আশঙ্কা জানালেও শেখ হাসিনা নিজের সিদ্ধান্তে অবিচল থাকেন।

বাংলাদেশের মানুষের আশার বাতিঘর বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা দীর্ঘ ছয় বছর নির্বাসিত জীবন শেষে দেশে ফেরার পর ৪১ বছর আগে বঙ্গবন্ধু বিহীন এবং তার স্বপ্নের সোনার বাংলায় আলোর মশাল হাতে কাণ্ডারি হয়ে এসেছিলেন জাতির পিতার জ্যেষ্ঠ কন্যা শেখ হাসিনা। এশিয়া মহাদেশের অন্যতম বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রীর দায়িত্বেও চার দশক। সরকারপ্রধান হিসেবে প্রথম মেয়াদের পাঁচ বছর এবং পরপর তৃতীয় মেয়াদের প্রায় সাড়ে ১৪ বছর অতিক্রান্ত। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বিশ্বে বাংলাদেশের এক অনন্য পরিচিতি লাভ করেছে। বঙ্গবন্ধু কন্যার যোগ্য নেতৃত্ব, দক্ষতা, সততায় আজকে দেশের এ অবস্থান। কিসিঞ্জারের সেই ‘বটমলেস বাস্কেট’-এর দেশ এখন বিশ্বে ‘উন্নয়নের রোলমডেল’ই শুধু নয়, মানবতার অনন্য উদাহরণ। ১৯৭৫ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার পর একাধিক গণতান্ত্রিক সরকার ও স্বৈরশাসক দেশ পরিচালনার দায়িত্বে এলেও বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্যের উন্নয়নে কাজ করেননি। নিজেদের আখের গোছাতেই ব্যস্ত ছিলেন। আওয়ামী লীগের প্রথম মেয়াদ (১৯৯৬-২০০১) ও ২০০৮ থেকে টানা তিন মেয়াদে দেশের অর্থনৈতিক মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করায় বিজয়ের ৫০ বছরে অর্থ ও বাণিজ্যের বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশের অর্জন বিশ্ববাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছে। ১৯৭১ সালে ১২৯ ডলার মাথাপিছু আয়ে শুরু করা, বাংলাদেশের বর্তমান মাথাপিছু আয় দুই হাজার ৬৪ ডলার। ১৯৭১  গ্রামাঞ্চলে এখন ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ। বার্ষিক মোট বিদ্যুৎ উৎপাদনের সর্বশেষ পরিমাণ ২৬ হাজার মেগাওয়াট। খাদ্যশস্যের উৎপাদন ৫ লাখ টনের বেশি। স্বাধীনতার আগে এর পরিমাণ ছিল অনেক কম। শিক্ষা, গড় আয়ু, আমদানি, রফতানি, রিজার্ভ, ডলারের মান, জিডিপি প্রবৃদ্ধির হার এবং মাথাপিছু আয়ের মতো প্রতিটি সূচকে এখন বাংলাদেশ পাকিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়ে। অনেক সামাজিক সূচকে বাংলাদেশ এখন ভারত থেকেও এগিয়ে। বিস্ময়কর উত্থানের কারণ খুঁজছে ভারতও। স্বাধীনতার পরপর আমাদের ১০০ টাকা দিয়ে ভারতীয় ৩৫-৪০ রুপি পাওয়া যেত। আর এখন পাওয়া যায় ৮৫-৯০ রুপি। সব কিছু সম্ভব হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা স্বাধীনতার নেতৃত্বদানকারী রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগের হাল ধরেছিলেন বলেই। তিনি আজকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী কারণেই করোনার মহামারি মোকাবিলা করে দেশের মানুষের জীবন ও জীবিকা সচল ছিল৷ অনেকেই বাংলাদেশকে দেউলিয়া করার ষড়যন্ত্রও করে যাচ্ছে, কিন্তু শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়েই যাচ্ছে। বিশ্বের অনেক প্রভাবশালী রাষ্ট্রনায়কও রীতিমতো ক্লান্ত। তারা যখন প্রকৃতির কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল, তখন বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার অসীম সাহসিকতা আর মানবিকতা দিয়েই জয় করছেন সব কিছু। করোনাযুদ্ধে একজন দক্ষ রাষ্ট্রনায়কই নন, ইতিহাসে নাম লেখাচ্ছেন যুদ্ধজয়ের বীরত্বগাথার গৌরবে।
বঙ্গবন্ধু কন্যা করোনা সংকটের সময় প্রধানমন্ত্রী অনুষ্ঠানে ঘোষণা দিয়েছিলেন, ‘যত টাকা লাগুক, টিকা আনবই’। তিনি সে কথাও রেখেছেন।  সরকারের তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর প্রথম মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘মানুষের কল্যাণে এবং ইশতেহার বাস্তবায়নে পদক্ষেপ গ্রহণ করতে’। অর্থাৎ নির্বাচনের আগে আওয়ামী লীগ যে ভিশন দেয়, তা বাস্তবায়নে কাজ করতে হবে। গত বছর শুরু হয়েছে ‘মুজিব শতবর্ষ’।  মুজিববর্ষের শুরুতেই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছিলেন- একটি পরিবারও ভূমিহীন থাকবে না। ঠিক সেই পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। ৭০ হাজার গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে পাকা ঘর দেওয়া হয়েছে। আশ্রয়ণ প্রকল্পের আওতায় আরও ৫৫ হাজার ঘর আগামী জুন  হস্তান্তর করা হয়েছে, যা পৃথিবীর ইতিহাসে বিরল। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে স্বপ্ন নিয়ে বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছিলেন, তার কন্যা শেখ হাসিনা সেই অসমাপ্ত কাজ সমাপ্ত করছেন। চার দশক আগে তিনি যদি ফিরে এসে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের হাল না ধরতেন, তা হলে এমন বাংলাদেশ সৃষ্টি হতো না।

‘মানবতার মা’ বলতে বিশ্ববাসী তাকেই জানে ও বোঝে। বঙ্গবন্ধুর রক্তে ভেজা এ ইটপাথরের নগরের বদলে মধুমতিঘেঁষা বাইগার নদী বিধৌত টুঙ্গিপাড়া তাকে অনেক বেশি টানে, যেখানে চির শান্তির নিদ্রায় শায়িত আছেন তাঁর মহান পিতা; সেখানেই নিজের শেষ জীবনটা উপভোগ করার বড় সাধ তাঁর। তাই ৭৬ বছরে পদার্পণের প্রাক-মুহূর্তে সরকারপ্রধানের পর্বতপ্রমাণ ক্ষমতার মোহময়তা পরিত্যাগ করার অভিপ্রায় কেবল তাকেই মানায়- ‘বয়স তো পঁচাত্তর হলো, আর কত?’ বাংলার মানুষের সৌভাগ্য এই যে, ঘাতকচক্র ১৯ বার তাকে হত্যার নিশানা বানালেও বিধাতা যার সহায়, তার প্রাণবায়ু সংহারের সাধ্য কার? বস্তুত, বাংলার দুঃখী মানুষের দুঃখমোচন করে পুষ্পের হাসি ফোটানোর তরে সৃষ্টিকর্তা নিরন্তর সৃষ্টিশীল উদার মানবী হিসেবে এবং অনতিক্রম্য রাষ্ট্রনায়করূপে ৭৬ বছর বয়সেও পুণ্যতা ও পূর্ণতায় তার জীবনের সুধাপাত্র ভরে রেখেছেন। তিনি দীর্ঘায়ু লাভ করুন; শতায়ু হোন- এ একান্ত ও একাগ্র কামনা আমাদের। জন্মদিনে তাঁর সুস্থতা ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি।  জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ চিরজীবী হোক। 

লেখক: সম্পাদক ও প্রকাশক, দৈনিক ভোরের পাতা, দ্য পিপলস টাইম
সহ-সভাপতি, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগ
সদস্য, কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য উপকমিটি, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ
পরিচালক, এফবিসিসিআই
প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি, ইরান-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/dd.jpg
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]