শুক্রবার ২৭ জানুয়ারি ২০২৩ ১৩ মাঘ ১৪২৯

শিরোনাম: সংবিধান অনুযায়ীই আগামী নির্বাচন হবে: আইনমন্ত্রী    ডিসিদের ক্ষমতার অপপ্রয়োগ যেন না হয়: রাষ্ট্রপতি    ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ বিনির্মাণের প্রধান হাতিয়ার ডিজিটাল সংযোগ: প্রধানমন্ত্রী    প্রবাসীদের ভোটাধিকার প্রয়োগে বিশেষ উদ্যোগ নিতে হবে    ইজতেমা ময়দান প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করল সাদ অনুসারীরা    রাষ্ট্রপতি নির্বাচন ১৯ ফেব্রুয়ারি    ইউএনওর হাতে সাব-রেজিস্ট্রার লাঞ্ছিত: ব্যবস্থা নিতে আইন মন্ত্রণালয়ের চিঠি   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
অক্টোবরে জেলা পরিষদ নির্বাচন, সেপ্টেম্বরে তফসিল
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট, ২০২২, ৩:৩৩ পিএম আপডেট: ২৩.০৮.২০২২ ৩:৫১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

আগামী অক্টোবর মাসের মধ্যেই জেলা পরিষদের নির্বাচন শেষ করার পদক্ষেপ নিয়েছে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় ও নির্বাচন কমিশন। আগামী সেপ্টেম্বর মাসেই ঘোষণা করা হবে তফসিল। এ লক্ষ্যে জেলা পরিষদের নির্বাচনের জন্য ভোটার তালিকা চূড়ান্ত করতে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের চিঠি পাঠিয়েছে ইসি। রবিবার (২১ আগস্ট) এ চিঠি পাঠানো হয়। চিঠিতে দ্রুত তালিকা চূড়ান্ত করে কমিশনে তথ্য পাঠানোর তাগিদ দেওয়া হয়েছে। ইসি সূত্র এ তথ্য জানা যায়।

মেয়াদোত্তীর্ণ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানরাই বর্তমানে পরিষদের প্রশাসক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এ প্রশাসকের মেয়াদকাল দায়িত্বের শুরুর দিন থেকে ৬ মাস অর্থাৎ আগামী ২৬ অক্টোবর তাদের মেয়াদ শেষ হবে।

জানতে চাইলে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর হোসেন বলেন, জেলা পরিষদ নির্বাচন করার বিষয়ে মন্ত্রণালয় থেকে আমরা একটা চিঠি পেয়েছি। এর আলোকে পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে।

কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় জেলা পরিষদ নির্বাচন করতে সীমানা সংক্রান্ত কোনো জটিলতা নেই, সেটা আমাদের জানিয়েছেন। ওই চিঠির আলোকে আমরা নির্বাচন সম্পন্ন করার প্রাথমিক যে ধাপ রয়েছে ভোটার তালিকা চূড়ান্ত করা, সেজন্য জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের চিঠি পাঠিয়েছি। আশা করছি, অক্টোবরের মধ্যেই নির্বাচনটি করা হবে।

কমিশনের একাধিক জেলা নির্বাচন কর্মকর্তারা জেলা পরিষদের ওয়ার্ডগুলোর নির্বাচকমণ্ডলী ও ভোটার তালিকা সম্পন্নকরণের চিঠি পেয়েছেন বলে এ প্রতিবেদককে নিশ্চিত করেছেন। ইসি সচিবালয়ের নির্বাচন পরিচালনা-২ শাখার উপসচিব খোরশেদ আলম স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়েছে, স্থানীয় সরকার বিভাগ থেকে জেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০২২ এবং জেলা পরিষদ (ওয়ার্ডের সীমা নির্ধারণ), বিধিমালা, ২০১৬ অনুযায়ী দেশের ৬১টি জেলা পরিষদের সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের সীমানা পুনর্নির্ধারণের কার্যক্রম সম্পন্ন করে পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। এখন নির্বাচকমণ্ডলীর ভোটার তালিকা প্রস্তুত ও প্রাসঙ্গিক কার্যক্রম সম্পন্ন করে জেলায় জেলায় চিঠি পাঠানো হয়েছে।

এদিকে, জেলা পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান পদে যারা প্রার্থী হতে আগ্রহী এরই মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা মাঠ জরিপে নিজের জনসমর্থন যাচাইয়ে নেমে পড়েছে। সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক মো. নজরুল ইসলাম সোমবার (২২ আগস্ট) জেলার দেবহাটা উপজেলায় নির্বাচনী গণসংযোগ চালিয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মো. নজরুল ইসলাম বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পর জেলা পরিষদ বিলুপ্ত হলে দায়িত্বপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানদের প্রশাসক নিয়োগ দেয় সরকার। আগামী অক্টোবরেই আমাদের মেয়াদ শেষ হবে। এরই মধ্যে আমরা জেনেছি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় জেলা পরিষদের সীমানা বিন্যাস শেষ করেছে। তা জেনেই নির্বাচনী প্রচারে নেমেছি। সোমবার দেবহাটা উপজেলায় গণসংযোগ কর্মসূচি পালন করেছি। আগামীতে শ্যামনগরেও কর্মসূচি আছে। আমরা আশা করছি সেপ্টেম্বরেই তফসিল ঘোষণা হবে। তাই এখন থেকে প্রস্তুতি নিচ্ছি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জেলা পরিষদ নির্বাচনে এবার একটি সংসদীয় আসনকে ইউনিট না ধরে উপজেলাকে একটি ইউনিট ধরে সাধারণ সদস্য নির্বাচিত করা এবং ৩টি উপজেলা একটি ইউনিট হিসেবে একজন সংরক্ষিত মহিলা নির্বাচিত হবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উত্তরাঞ্চলের একজন জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বলেন, গত জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংসদীয় আসনের মধ্যে যে কয়টি উপজেলা ছিল সেটাকে একটা ইউনিট ধরে একজন নির্বাচিত ভাইস চেয়ারম্যান দায়িত্ব পালন করলেও এবার একটি উপজেলায় একজন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন। আর তিনটি উপেজলা নিয়ে একজন সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হবে।



ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্যদের ভোটে জেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান, সংরক্ষিত ভাইস চেয়ারম্যান ও একজন জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হবেন। অর্থাৎ নির্বাচিত প্রতিনিধিরাই ভোট দিয়ে জেলা পরিষদ গঠনে ভূমিকা রাখেন।

ইসি ও মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, দেশের ৬১ জেলায় ২০১৬ সালের ২৮ ডিসেম্বর প্রথমবারের মতো জেলা পরিষদ নির্বাচন হয়। ২০১৭ সালের ১১ জানুয়ারি নির্বাচিতরা শপথ নেন। ওই বছরের জানুয়ারি মাসেই জেলা পরিষদগুলোর প্রথম বৈঠক হয়। ফলে পরিষদের ৫ বছরের মেয়াদ চলতি বছরের জানুয়ারিতেই শেষ হয়েছে। জেলা পরিষদ আইন অনুযায়ী, পরিষদের মেয়াদ শেষ হওয়ার ১৮০ দিন আগে নির্বাচন অনুষ্ঠানের কথা রয়েছে। কিন্তু দেশের ৬১টি জেলা পরিষদের মেয়াদ পাঁচ বছর উত্তীর্ণ হওয়ায় গত ১৭ এপ্রিল পরিষদগুলো বিলুপ্ত করা হয়। ওই দিন এক প্রজ্ঞাপন দিয়ে প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদের (সিইও) জেলা পরিষদের প্রশাসনিক ও আর্থিক ক্ষমতা পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়। জেলা পরিষদ আইনের ধারা ৮২ অনুযায়ী সরকারের পক্ষ থেকে প্রশাসক নিয়োগের আগ পর্যন্ত আইনের ধারা ৭৫-এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে দায়িত্বপ্রাপ্ত হন। এতে ক্ষুব্ধ হন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিরা। দেন-দরবার শুরু করেন সরকারের সঙ্গে। পরে অন্য এক আদেশে ওই মাসের ২৭ এপ্রিল সদ্য সাবেক জেলা পরিষদের চেয়ারম্যানরাই জেলা পরিষদের প্রশাসকের দায়িত্ব দেওয়া হয়। এ সংক্রান্ত জারি প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ওই দিন থেকেই তাদের দায়িত্ব শুরু হয়। তবে প্রশাসক হিসেবে তাদের মেয়াদ কোনোভাবেই ছয় মাসের বেশি হবে না।

সূত্র মতে, আগামী অক্টোবরের ২৬ তারিখে বর্তমান প্রশাসকদের মেয়াদ শেষ হবে। এ সময়ের আগে নির্বাচন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসি।

জেলা পরিষদে প্রশাসক নিয়োগের বিধান যুক্ত করে গত ৬ এপ্রিল ‘জেলা পরিষদ (সংশোধন) বিল-২০২২’ সংসদে পাস হয়। ১৩ এপ্রিল সংশোধিত জেলা পরিষদ আইনের গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/dd.jpg
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]