বুধবার ৩০ নভেম্বর ২০২২ ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

শিরোনাম: বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারি: ৩ মাসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে নির্দেশ    জিএম কাদেরের দায়িত্ব পালনে বাধা নেই: হাইকোর্ট    মুজিব কোট পরলেই মুজিব সৈনিক হওয়া যায় না: কাদের    চীন-যুক্তরাজ্য সম্পর্কের ‘স্বর্ণযুগ’ যুগ শেষ: ঋষি সুনাক    রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেপ্তার ৩৬    সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে বিশ্বকাপের দ্বিতীয় রাউন্ডে ব্রাজিল    অপার সম্ভাবনার বাংলাদেশ গড়েছেন শেখ হাসিনা   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
অতিদরিদ্রদের জন্য দেওয়া পানির ট্যাংক নিয়ে নানা অভিযোগ
পিরোজপুর প্রতিনিধি
প্রকাশ: রোববার, ৭ আগস্ট, ২০২২, ৭:১০ পিএম আপডেট: ০৭.০৮.২০২২ ৭:২০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

দরিদ্র মানুষ যাতে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করে ব্যবহার করতে পারে এজন্য তাদেরকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছিল পানির ট্যাংক। জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরকে সাধারণ মানুষকে এসব পানির ট্যাংক তাদের ঘরের পাশে স্থাপন করে দেওয়ার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। তবে পিরোজপুর জেলার ইন্দুরকানী উপজেলায় দরিদ্র মানুষের জন্য এসব পানির ট্যাংক স্থাপন নিয়ে উঠেছে নানা অভিযোগ। 



সরকারী কর্মকর্তারা অর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার জন্য নিজেরাই জড়িয়েছে ঠিকাদারদের সাথে। এরপর আবার সুবিধাভোগী পরিবারকে সামান্য কিছু অর্থ হাতে ধরিয়ে দিয়ে তাদের বসিয়ে নিতে বলা হয়েছে এসব ট্যাংক। এ অর্থ ছিল প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। 

জানা যায়, সমূদ্র উপকূলীয় জেলা পিরোজপুরের সবচেয়ে ছোট উপজেলা ইন্দুরকানী। এ উপজেলাটি সমুদ্রের সবচেয়ে কাছে হওয়ায় লবনাক্ততা এখানকার একটি বড় সমস্যা। এছাড়া এ উপজেলার অধিকাংশ এলাকায় গভীর নলকূপ স্থাপন করতে না পারায় এখানে সুপেয় পানির একটি বড় উৎস বৃষ্টির পানি। তাই ‘সমগ্র দেশে নিরাপদ পানি সরবরাহ প্রকল্প’ এর আওতায় এ উপজেলায় ৩১২ টি রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং ট্যাংক বরাদ্ধ দেওয়া হয় যার প্রতিটির ধারণ ক্ষমতা ৩ হাজার লিটার। এসব ট্যাংক স্থাপনের জন্য রহমত ট্রের্ডাস , মহিউদ্দিন আহমেদ ট্রেডার্স সহ মোট ৩ টি প্রতিষ্ঠানকে কার্যাদেশ দেওয়া হয়। কার্যাদেশে সময়সীমা দেওয়া ছিল এ বছরের ৩০জুন পর্যন্ত। নির্ধারিত সময়ে শেষ হয়নি কার্যক্রম। অভিযোগ আছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে স্থানীয় কয়েকজন যুবলীগনেতা ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের সরকারী কর্মকর্তারা এ ট্যাংক স্থাপনের কাজ করছে। 

ইন্দুরকানী উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী শিমুল বড়ালের নামটি উঠে এসেছ বেশি। কার্যাদেশ অনুযায়ী পানির ট্যাংক স্থাপনের পুরো দায়িত¦ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের থাকলেও সুবিধাভোগীদের ট্যাংকে স্থাপনের প্লাটফর্ম তৈরির জন্য চার হাজার টাকা নগদ প্রদান করে ইন্দুরকানী উপজেলার জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের লোকজন। এছাড়া পানির ট্যাংকগুলো উপজেলা থেকে নিজেদের খরচে নেওয়ার জন্যও তাদেরকে বাধ্য করে। তবে প্রতিটি ট্যাংক স্থাপনের জন্য বরাদ্ধ ছিল ৪২,০০০ টাকা। এদের মধ্যে একটি ট্যাংকের দাম ২২ হাজার টাকা। বাকী টাকা ট্যাংক স্থাপনের মজুরী ও ভ্যাট-ট্যাক্স খরচ। সরকারী অফিসের লোকজনের এমন আচরণে ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয় সুবিধাভোগীদের মাঝে। 

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের ইন্দুরকানী উপজেলার উপ-সহকারী প্রকৌশলী শিমুল বড়ালের দাবি ঠিকাদারই পানির ট্যাংকগুলো স্থাপন করেছে।  পিরোজপুর  জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো : আ : আলীম গাজী জানান, প্রকৌশলীর দায়িত্ব কাজের দেখভাল করা। ঠিকাদারি কাজে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার কোন সুযোগ নাই। 

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/dd.jpg
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]