শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০

শিরোনাম: অভিশ্রুতি নাকি বৃষ্টি ? পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার পর মিলবে লাশ     গাউসুল আজম মার্কেটে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে    জাতীয় সংসদে অফশোর ব্যাংকিং বিল উত্থাপন    আমরা উন্নত চিকিৎসার জন্য একটা সুন্দর স্বাস্থ্য ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠা করতে চাচ্ছি : স্বাস্থ্যমন্ত্রী    ক্রিকেটেই মনোযোগ দিতে চান গৌতম গম্ভীর     ডিসি সম্মেলনের মূল ইস্যুই হচ্ছে নির্বাচনী ইশতেহারের বাস্তবায়ন    পূর্ণাঙ্গ সিরিজ খেলতে বাংলাদেশে এসেছে শ্রীলঙ্কা দল   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
ড. ইউনূসের অর্থপাচার, দুর্নীতি ও নানা অপরাধের বিবরণ
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৪ মার্চ, ২০২৩, ৬:৫৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

শান্তিতে নোবেল জয়ী ড. মুহাম্মদ ইউনূসের অর্থপাচার, আর্থিক দুর্নীতি ও নানা অপরাধের সুনির্দিষ্ট ও বিস্ময়কর তথ্য পেয়েছে একটি গোয়েন্দা সংস্থা। সংস্থাটি বলছে, এ দেশের মানুষের কাছ থেকে আদায় করা হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন ড. ইউনূস। সরকার সমর্থিত একটি সূত্র বলছে, ড. ইউনূস গ্রামীণ ব্যাংক, গ্রামীণ টেলিকমসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে কীভাবে শত শত কোটি টাকার দুর্নীতি করেছেন- সেই তথ্য সবার জানা দরকার। সুনির্দিষ্টভাবে এগুলো প্রকাশ না করলে জাতির প্রতি বড় অবিচার করা হবে।

অনুসন্ধানে গোয়েন্দ সংস্থাটি জানতে পেরেছে, দেশের আদালতে দায়ের করা বেশকিছু মামলার রায় নিজের পক্ষে আনার জন্য বিচারক এবং কিছু সরকারি কর্মকর্তাকে ঘুষ দিয়েছেন ড. ইউনূস। দালিলিকভাবে এগুলোর প্রমাণ মিলেছে। এছাড়া ড. ইউনূস পরিচালিত সকল প্রতিষ্ঠানে মধ্যযুগীয় কায়দায় শ্রমিক অধিকার লঙ্ঘনসহ শ্রমিক-কর্মচারীদের মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হয়েছে। নানা ধরনের নিপীড়নমূলক কর্মকাণ্ড চালানো হয়েছে।  তাঁর পরিচালিত প্রতিষ্ঠানগুলোতে রয়েছে স্বেচ্ছাচারিতা, প্রতিনিয়ত আইনের লঙ্ঘন এবং নানা ধরনের তুঘলকিকাণ্ড।

সরকার সমর্থিত সূত্র বলছে, ড. ইউনূসের অর্থপাচার, দুর্নীতি, শ্রমিক অধিকার ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের তথ্য প্রকাশিত হলে মিয়ানমারের নেত্রী অং সান সুচির মতো তার নোবেল পুরস্কার বাতিলের দাবি উত্থাপিত হতে পারে। সামাজিক ব্যবসার নামে তিনি দেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার করেছেন এবং সেই টাকা দিয়ে নিজের ব্যক্তিগত নামে বিভিন্ন দেশে সম্পদ ক্রয়সহ রমরমা ব্যবসা করছেন। এর কিছু অংশ বিদেশে বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থবিরোধী কাজে লবিস্টের পেছনে ঢেলেছেন। এসব তথ্য প্রকাশিত হলে সবাই শান্তিতে নোবেল পাওয়া এই ব্যক্তির প্রতি ধিক্কার জানাবে।

জানা যায়, ১৯৯৭ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছ থেকে গ্রামীণ টেলিকম তথা গ্রামীণফোনের লাইসেন্স গ্রহণ করেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস। লাইসেন্স গ্রহণের সময় তিনি সরকারের কাছে অঙ্গীকার করেছিলেন, গ্রামীণ দরিদ্র জনগোষ্ঠীর ভাগ্য পরিবর্তনে তিনি গ্রামীণফোনের লাইসেন্স নিতে চাচ্ছেন। অঙ্গীকার করেছিলেন কোনো মুনাফার জন্য নয়; বরং দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মাঝে সেবা প্রদানই হবে তার প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য।  মূলত অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গ্রামীণ টেলিকমের লাইসেন্স দেওয়া হয়েছিল। দেশের দরিদ্র মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের অঙ্গীকার করলেও ড. ইউনুস শুধু নিজের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য যা যা করণীয় তার সবটাই করেছেন। দেশের স্বার্থ জলাঞ্জলি দিয়ে গ্রামীণফোনের অধিকাংশ শেয়ার বিদেশি কোম্পানির হাতে তুলে দিয়েছেন। অনেকেই মনে করেন এর বিনিময়েই পরে তিনি নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন। ড. ইউনুসের কারণেই প্রতিবছর বাংলাদেশ থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা মুনাফা হিসেবে নিয়ে যাচ্ছে নরওয়েজিয়ান কোম্পানি টেলিনর।  

সূত্র বলছে, গ্রামীণ টেলিকম বর্তমানে গ্রামীণফোনের ৩৪.২০ শতাংশ শেয়ারের অংশীদার, যার মাধ্যমে গ্রামীণ টেলিকম প্রতিবছর গ্রামীণফোন থেকে হাজার কোটি টাকার উপরে ডিভিডেন্ড পায়। কোম্পানি আইনের ২৮ ধারায় গঠিত এই অলাভজনক কোম্পানির কোনো শেয়ার মূলধন নেই। কোনো ব্যক্তি মালিকানা নেই। আইন অনুযায়ী এর কোনো ডিভিডেন্ট অন্যকোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানকে হস্তান্তরের সুযোগ নেই। অথচ ড. ইউনূস প্রতিবছর গ্রামীণ টেলিকমের হাজার কোটি টাকার উপর ডিভিডেন্ট সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে কয়েক হাত ঘুরিয়ে সামাজিক ব্যবসার নামে বিদেশে পাচার করে আত্মসাৎ করছেন।

সরকার সমর্থিত সূত্রটি বলছে, গ্রামীণ টেলিকম গ্যারান্টি দ্বারা সীমাবদ্ধ একটি অলাভজনক কোম্পানি হওয়া সত্ত্বেও আইন লঙ্ঘন করে প্রতিবছর বিপুল পরিমাণ লভ্যাংশ গ্রামীণ কল্যাণ নামে আরেকটি প্রতিষ্ঠানকে প্রদান করছে। গ্রামীণ টেলিকম কোম্পানি আইন, ১৯৯৪ এর ২৮ ধারার অধীন গ্যারান্টি দ্বারা সীমিতদায় কোম্পানি হিসেবে নিবন্ধিত একটি কোম্পানি, যার কোনো শেয়ার মূলধন নেই। দেশের দরিদ্র মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করার দাতব্য উদ্দেশে এবং কোম্পানির সদস্যদের মধ্যে কোনোরূপ লভ্যাংশ শেয়ার না করার শর্তে ড. ইউনূস গ্রামীণ টেলিকমের লাইসেন্স গ্রহণ করেন। কোম্পানী আইনের ২৮(১) এবং ২৯(১) ধারায় কোনো সদস্যকে বা ব্যক্তিকে কোম্পানির বণ্ঠনযোগ্য মুনাফা লাভের অধিকার প্রদান না করার জন্য সুস্পষ্ট বিধান রয়েছে; যা নিম্নরূপ:

“২৮। (১) যদি সরকারের নিকট সন্তোষজনকভাবে প্রমাণিত হয় যে, সীমিতদায় কোম্পানি হিসাবে গঠিত হওয়ারযোগ্য কোনো সমিতি বাণিজ্য, কলা, বিজ্ঞান, ধর্ম, দাতব্য বা অন্য কোনো উপযোগিতামূলক উদ্দেশ্যের উন্নয়নকল্পে গঠিত হইয়াছে অথবা গঠিত হইতে যাইতেছে এবং যদি উক্ত সমিতি উহার সম্পূর্ণ মুনাফা বা অন্যবিধ আয় উক্ত উদ্দেশ্যের উন্নতিকল্পে প্রয়োগ করে বা প্রয়োগ করার ইচ্ছা প্রকাশ করে এবং উহার সদস্যগণকে কোনো লভ্যাংশ প্রদান নিষিদ্ধ করে, তবে সরকার উহার একজন সচিবের অনুমোদনক্রমে প্রদত্ত লাইসেন্সের মাধ্যমে এই মর্মে নির্দেশ দিতে পারিবে যে, উক্ত সমিতির নামের শেষে ‘সীমিতদায়’ বা ‘লিমিটেড’ শব্দটি যোগ না করিয়াই উহাকে একটি সীমিতদায় কোম্পানি হিসাবে নিবন্ধিকৃত করা হউক এবং অতঃপর উক্ত সমিতিকে তদনুযায়ী নিবন্ধিকৃত করা
যাইতে পারে। ’

‘২৯। (১) কোনো কোম্পানি গ্যারান্টি দ্বারা সীমিতদায় কোম্পানি হইলে এবং উহার কোনো শেয়ার-মূলধন না থাকিলে এবং এই আইন প্রবর্তনের পরে উহা নিবন্ধিকৃত হইলে উক্ত কোম্পানির সংঘস্মারক বা সংঘবিধির কোনো বিধানে কিংবা কোম্পানির কোনো সিদ্ধান্তে, কোনো ব্যক্তির সদস্য হওয়া ব্যতীত অন্য কোনো কারণে, তাহাকে কোম্পানির বণ্টনযোগ্য মুনাফা লাভের অধিকার প্রদান করা যাইবে না এবং তাহা করা হইলে উক্ত বিধান বা সিদ্ধান্ত বাতিল বলিয়া গণ্য হইবে। ” 

সূত্রটি বলছে, উপর্যুক্ত সুস্পষ্ট আইনি বিধান থাকা সত্ত্বেও গ্রামীণ টেলিকম গ্রামীণফোন লিমিটেড-এ তার ৩৪.২০% শেয়ারের বিপরীতে প্রতিবছর যে পরিমাণ লভ্যাংশ অর্জন করে তার ৪২.৬৫% লভ্যাংশ গ্রামীণ কল্যাণ নামে অন্য একটি প্রতিষ্ঠানকে প্রদান করে আসছে। এর কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছে, গ্রামীণ টেলিকম প্রতিষ্ঠার সময় প্রতিষ্ঠানটি গ্রামীণ কল্যাণের কাছ থেকে ৫৩ কোটি ২৫ লাখ ৬২ হাজার ৯৪১ টাকা ঋণ গ্রহণ করেছিল। আইন অনুযায়ী কেবল উল্লিখিত টাকাই গ্রামীণ কল্যাণকে ফেরত দেওয়ার কথা। কিন্তু মাত্র ৫৩ কোটি ২৫ লাখ টাকার বিপরীতে গ্রামীণ টেলিকম সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে কোম্পানি আইনের উপরোক্ত ২৮(১) এবং ২৯(১) ধারার সুস্পষ্ট বিধান লঙ্ঘন করে গ্রামীণ কল্যাণকে বার্ষিক ৪২.৬৫% লভ্যাংশ হিসেবে এ যাবৎ ৫০০০ কোটি টাকার উপরে প্রদান করেছে। ২০১১ সালের ১১ এপ্রিল এই দুই কোম্পানি একটি বেআইনি ও অবৈধ চুক্তি স্বাক্ষর করে যেখানে শর্ত ছিল,  গ্রামীণ টেলিকম প্রতিবছর তার লভ্যাংশের ৪২.৬৫ % গ্রামীণ কল্যাণকে প্রদান করবে। কোম্পানি আইনের বিধান এবং লাইসেন্সের শর্তের পরিপন্থী কোনো চুক্তি করা যায় না। এ ধরনের অবৈধ চুক্তির কোনো কার্যকারিতা নেই। যদিও ২০১১ সালের চুক্তির এক দশকেরও বেশি সময় আগে থেকেই গ্রামীণ টেলিকম বেআইনিভাবে গ্রামীণ কল্যাণকে উক্তরূপ লভ্যাংশ প্রদান করে আসছে।

২০০৩ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত লভ্যাংশ শেয়ারের স্টেটমেন্ট নিম্নরূপ:

২০১৭ সালের পর থেকে গ্রামীণফোন থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশের পরিমাণ অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে এবং সে হিসেবে গ্রামীণ কল্যাণকে প্রদানকৃত লভ্যাংশের পরিমাণ বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০২২ সাল পর্যন্ত গ্রামীণ টেলিকম অদ্যাবধি গ্রামীণ কল্যাণকে আনুমানিক ৫০০০ কোটি টাকার বেশি লভ্যাংশ প্রদান করেছে। কিন্তু গ্রামীণ কল্যাণ থেকে গৃহীত উক্ত ৫৩.২৫ কোটি টাকার ঋণ এখনও পরিশোধ হয়নি। গ্রামীণ কল্যাণকে প্রদানকৃত এই লভ্যাংশ যে অবৈধ তা গ্রামীণ টেলিকমের নিরীক্ষকগণ বহু আগেই ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে সর্তক করেন। উক্তরূপ বে-আইনি লভ্যাংশ প্রদানের বিষয়ে ২০১৭ সালের একটি ম্যানেজমেন্ট রিপোর্টে গ্রামীণ টেলিকমের নিরীক্ষকগণ উল্লেখ করেন-

“During the year under audit Grameen Telecom received a dividend of Taka 8,080,912,158 against their holding of 34.20% in the shares of Grameen Phone Limited. Out of total receipt of dividend of taka 8,080,912,158, taka 3,446,672,270 was distributed to Grameen Kalyan as dividend, although Grameen Kalyan does not have any holdings in the shares of Grameen Phone Limited….Recommendation: We recommend that these types of treatments should be discontinued otherwise problem may arise in future.” 

গ্রামীণ টেলিকম তার লভ্যাংশের ৪২.৬৫% হিসেবে যে পাঁচ হাজার কোটি টাকার উপরে অবৈধভাবে গ্রামীণ কল্যাণকে প্রদান করেছে, সেই অর্থ গ্রামীণ কল্যাণ কী করেছে এর কোনো উত্তর কারো কাছে নেই।  

প্রথমত, গ্রামীণ টেলিকমের তার লভ্যাংশ থেকে এই অর্থ গ্রামীণ কল্যাণকে প্রদানের কোনো আইনি ক্ষমতা নেই। এটি সম্পূর্ণরূপে বেআইনি।  

দ্বিতীয়ত, গ্রামীণ কল্যাণের এই অর্থ গ্রহণ করার কোনো আইনি অধিকার নেই। এই অর্থ সম্পূর্ণরূপে তার জন্য অবৈধ।  

তৃতীয়ত, এই অর্থ গ্রামীণ কল্যাণ কোথায় খরচ করেছে সেই তথ্য গ্রামীণ কল্যাণ দিতে পারেনি। এছাড়া গ্রামীণ কল্যাণের এমন কোনো প্রকল্প নেই যেখানে এই অর্থ ব্যয় হতে পারে। প্রাথমিক তদন্তে এটি উদঘাটিত হয়েছে যে, গ্রামীণ কল্যাণে ৫০০০ কোটি টাকার উপরে যে অর্থ প্রেরণ করা হয়েছিল, সেই অর্থ গ্রামীণ কল্যাণের হাতে নেই। সেটি কয়েক হাত ঘুরে সামাজিক ব্যবসার নামে বিদেশে পাচার হয়েছে।  

অন্যদিকে, গ্রামীণ টেলিকমের বাকি লভ্যাংশ অর্থাৎ ৫৭.৩৫ % লভ্যাংশ যার পরিমাণ ৭০০০ কোটি টাকার বেশি, সেই অর্থেরও প্রায় ৯০ ভাগ নামে-বেনামে অবৈধভাবে হস্তান্তর করা হয়েছে। সেই অর্থ কয়েক হাত ঘুরে সামাজিক ব্যবসার নামে বিদেশে পাচার হয়েছে। সেই অর্থ দিয়ে ড. ইউনুস নিজের ব্যক্তিগত নামে বিভিন্ন দেশে সম্পদ ক্রয়সহ নানা রমরমা ব্যবসা করছেন। এর কিছু অংশ বিদেশে বাংলাদেশের জাতীয় স্বার্থবিরোধী কাজে লবিস্টের পেছনে খরচ করেছেন।  

গোয়েন্দ সূত্রটি বলছে, গ্রামীণ কল্যাণ ছাড়াও বিভিন্ন সময়ে গ্রামীণ টেলিকম থেকে ড. ইউনূসের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান, বিশেষ করে গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টে প্রতিবছর শত শত কোটি টাকা বেআইনিভাবে প্রদান করছে।   মো. নাজমুল ইসলাম (বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক) কর্তৃক প্রস্তুতকৃত একটি হিসাব থেকে দেখা যায়, ২০১০ সালের ৩ ডিসেম্বর থেকে ২০১৩ সালের ২২ আগস্ট সময়ের মধ্যে গ্রামীণ টেলিকম শুধু গ্রামীণ টেলিকম ট্রাস্টকে ১৪১৩.৫৮ কোটি টাকা ডোনেশন প্রদান করেছে, যা পরবর্তী সময়ে কয়েক হাজার কোটি টাকায় উন্নীত হয়েছে। বেআইনিভাবে হস্তান্তরিত উক্তরূপ অর্থ নানান হাত বদলের পর সামাজিক ব্যবসার নামে বিদেশে পাচার হয়েছে। বিদেশে এই অর্থের একমাত্র সুবিধাভোগী ড. মুহাম্মদ ইউনূস।  

সরকার সমর্থত সূত্র বলছে, এটি পরিষ্কার যে, কোম্পানি আইন এবং লাইসেন্স অনুযায়ী গ্রামীণ টেলিকম একটি অলাভজনক ও দাতব্য প্রতিষ্ঠান হওয়া সত্ত্বেও ড. ইউনুস বেআইনিভাবে গ্রামীণ টেলিকম থেকে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ করে বিদেশে পাচার করেছেন। অথচ কোম্পানি আইন অনুযায়ী এই কোম্পানি থেকে এক টাকাও ড. ইউনূস নিজের অনুকূলে কিংবা অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে স্থানান্তর করতে পারেন না।  বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে বিপুল পরিমাণ অর্থ পাচারের বিষয়টি আড়াল করার জন্যই ড. ইউনূস অত্যন্ত সুচতুরভাবে বহির্বিশ্বে সামাজিক ব্যবসার সাইনবোর্ড ঝুলিয়েছেন।  

ড. ইউনুস গ্রামীন টেলিকম থেকে এই বিপুল পরিমাণ অর্থ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে স্থানান্তরের মাধ্যমে লেয়ারিং সৃষ্টি করে বিদেশে পাচার করেছেন। এটি মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২ এর ধারা ৪ এর বিধান মোতাবেক একটি গুরুতর দণ্ডণীয় অপরাধ।   



গ্রামীণ কল্যাণকে হাজার হাজার কোটি টাকা লভ্যাংশ প্রদান করা সত্ত্বেও এবং বাকি লভ্যাংশ নামে-বেনামে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানে হস্তান্তর করা সত্ত্বেও গ্রামীণ টেলিকম তার কোনো লভ্যাংশ বণ্টন হয় না মর্মে মিথ্যা বিবৃতি প্রদানের মাধ্যমে বার্ষিক রিটার্ন প্রদান করে আসছে, যা কোম্পানি আইনের, ৩৯৭ ধারার বিধান মোতাবেক শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

কোম্পানি আইনের ৩৯৭ ধারা নিম্নরূপ:

“৩৯৭। যদি কোনো ব্যক্তি এই আইনের আওতায় আবশ্যকীয় বা এই আইনের কোনো বিধানের উদ্দেশ্যপূরণকল্পে প্রণীত কোনো রিটার্ন, প্রতিবেদন, সার্টিফিকেট, ব্যালান্স শিট, বিবরণী অথবা অন্য কোনো দলিলে কোনো গুরত্বপূর্ণ বিষয়ে ইচ্ছাকৃত কোনো তথ্য, বিবরণ বা বিবৃতি দেন, যাহা সম্পর্কে তিনি জানিতেন যে উহা মিথ্যা, তাহা হইলে তিনি অনধিক পাঁচ বৎসর মেয়াদের কারাদণ্ডে এবং তদসহ অর্থদণ্ডেও দণ্ডনীয় হইবেন, এবং উক্ত কারাদণ্ড যেকোনো প্রকারের হইতে পারেঅ। ”

কোম্পানি আইনের ৩৯৭ ধারার বিধান অনুযায়ী গ্রামীণ টেলিকমের পরিচালনা পর্ষদের চেয়ারম্যান ড. ইউনূস এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ পরিচালনা পর্ষদের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ এই অপরাধের দায় এড়াতে পারেন না। আইনের উল্লেখিত বিধান অনুযায়ী তারা সকলেই পাঁচ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হওয়ার মতো অপরাধ করেছেন।  

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/Vorer-pata-23-12-23.gif
http://www.dailyvorerpata.com/ad/bb.jpg
http://www.dailyvorerpata.com/ad/Screenshot_1.jpg
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]