ষড়যন্ত্রের অভিযোগে বিএনপির তিন নেতার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

  • ৬-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা অনলাইন ::

রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অন্তর্ঘাত ও ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অন্তর্ঘাত ও ষড়যন্ত্র করার অভিযোগে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলটির শীর্ষ তিন নেতার বিরুদ্ধে  মামলা হয়েছে।

সোমবার (০৬ আগস্ট) ঢাকা মহানগর হাকিম এইচ এম তোয়াহার আদালতে মামলাটি করেন জননেত্রী পরিষদের সভাপতি এ বি সিদ্দিকী। আদালত বাদীর জবানবন্দী গ্রহণ করে তেজগাঁও থানাকে বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন জমা দেয়ার আদেশ দিয়েছেন।

মামলার অপর দুই আসামি হলেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ও সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। 

বিচারক ফৌজদারি কার্যবিধির ২০০ ধারা অনুসারে বাদীর জবানবন্দি শুনে মামলাটি তেজগাঁও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য নির্দেশ দেন।

মামলার বাদী এ বি সিদ্দিকী এনটিভি অনলাইনকে বলেন, বিএনপির তিন নেতাকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার আরজি থেকে জানা যায়, গত ৪ আগস্ট বিএনপি নেতা আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীর একটি অডিও ক্লিপ সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। যে অডিও ক্লিপ থেকে শোনা যায়, কুমিল্লায় অবস্থানরত নওমি (ব্যারিস্টার মিলহানুর রাহমান নাউমি) নামের এক কর্মীর সঙ্গে কথা বলছেন তিনি। নওমিকে তিনি বলছেন ঢাকা এসে লোকজন নিয়ে নেমে পড়তে।

আরজি থেকে আরো জানা যায়, অন্যদিকে মির্জা ফখরুল ও রুহুল কবির রিজভীর হুকুমে নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে ছাত্রদলের লোকজন ঢুকে পড়ে। ঢাকার জিগাতলায় ছাত্রদলের কর্মীরা আওয়ামী লীগ অফিসে হামলা ও বিভিন্ন জায়গায় পরিবহনে অগ্নিসংযোগ ও ছাত্রী ধর্ষণ ও ছাত্রছাত্রীদের নিহত হওয়ার গুজব ছড়িয়ে সাধারণ জনগণের মধ্যে আতঙ্ক সৃষ্টি এবং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার চেষ্টা করে।

এ ছাড়া মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও রুহুল কবির রিজভীর হুকুমে ছাত্রছাত্রীদের আন্দোলনের মধ্যে ছাত্রদলের কর্মীদের ঢুকিয়ে দিয়ে উত্তরায় এনা পরিবহনের দুই বাসে অগ্নিসংযোগ, জিগাতলায় আওয়ামী লীগ অফিসে ভাঙচুর ও হামলা করে কর্মীদের আহত করেছে, মিরপুরে মারধর, হামলা ও গুলিবর্ষণ ঘটিয়েছে ছাত্রদলের কর্মীরা।

আসামিরা সরকারের বিরুদ্ধে অন্তর্ঘাত ও ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়ে এ আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত হয়ে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছেন বলে অভিযোগ করা হয়।

এ ঘটনায় আসামিরা দণ্ডবিধির ১৫৩, ১৫৩(ক) ও ১০৯ ধারার অপরাধ করেছেন বলে আরজিতে উল্লেখ করা হয়। এতে মির্জা ফখরুল ও রিজভীকে ওই ঘটনার হুকুমদাতা বলে উল্লেখ করা হয়েছে। তিনজনকে গ্রেপ্তারের নির্দেশ দিতেও আবেদন করেছেন বাদী।

 

অনলাইন/কে 

Ads
Ads