ঢাকা-১ আসনে ধানের শীষের প্রার্থী শূন্য

  • ২-Dec-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র বাতিল হতে পারে এমন ধারণা থেকে সিনিয়র কিছু নেতার আসন ছাড়া বাকি আসনগুলোতে দুই থেকে ছয়জন করে প্রার্থীকে মনোনয়নের চিঠি দিয়েছিল বিএনপি। কিন্তু সেই তরিকাও ব্যর্থ হয়েছে ঢাকা-১ আসনে (ঢাকা জেলার দোহার এবং নবাবগঞ্জ উপজেলা নিয়ে ঢাকা-১ আসন)।

রবিবার (০২ ডিসেম্বর) মনোনয়নপত্র বাছাইয়ে এ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন পাওয়া দু’জন প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। অর্থাৎ এ আসনে ধানের শীষের কোনো প্রার্থী থাকছে না আসন্ন একাদশ সংসদ নির্বাচনে।

ঢাকা-১ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়ন পাওয়ার জন্য দলীয় ফরম সংগ্রহ করেছিলেন চারজন প্রার্থী। তারা হলেন- ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার মেয়ে অন্তরা সেলিমা হুদা, নবাবগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যান ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাক, সংরক্ষিত মহিলা আসনের সাবেক এমপি ফাহিমা হোসাইন জুবলী ও নাজমুল হুদার সাবেক প্রেস সেক্রেটারি তারেক হোসেন।

এর মধ্যে থেকে গত ২১ নভেম্বর মনোনয়ন বোর্ডে সাক্ষাৎকার দেন তিনজন। এদের তিনজনকেই মনোনয়নপত্র জমার চিঠি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় বিএনপি। চিঠির তালিকায় ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার মেয়ে অন্তরা সেলিমা হুদার নাম এক নম্বরে থাকলেও তিনি চিঠি পাননি। ২৭ ডিসেম্বর রাতে গুলশান কার্যালয় থেকে খন্দকার আবু আশফাক ও ফাহিমা হোসাইন জুবলীকে চিঠি দেওয়া হয়। কিন্তু অন্তরা হুদাকে ওইদিন চিঠি দেওয়া হয়নি। পরের দিন ২৮ নভেম্বর সকালে অন্তরা হুদার প্রতিনিধি দিনভর গুলশান কার্যালয়ে দেন দরবার করলেও ‘রহস্যজনক’ কারণে তাকে মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হয়নি। ওই আসন থেকে ফরম কিনেও মনোনয়ন বোর্ডে সাক্ষাৎকার দিতে যাননি ব্যারিস্টার নাজমুল হুদার প্রেস সেক্রেটারি তারেক হোসেন।

জানা গেছে, ওই আসনে বিএনপি-ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের অন্য কেউ মনোনয়ন জমা দেননি। ফলে ধানের শীষে কেউ থাকছেন না ঢাকা-১ আসনে। আর আওয়ামী লীগ থেকে এ আসনে নির্বাচন করার জন্য আওয়ামী লীগের টিকেট পেয়েছেন বেক্সিমকো গ্রুপের মালিক ও শেখ হাসিনার বেসরকারি খাত উন্নয়ন উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে। পুনঃতফসিল অনুযায়ী, আগামী ৩০ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণ।

/ই

Ads
Ads