পুত্র প্রধান অতিথি,পিতা সম্মানিত অতিথিঃএ যেন মোঘল সাম্রাজ্যের সেই করুণ ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি

  • ২৬-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

নিজস্ব প্রতিবেদক 

শ্যামনগর মাইক্রোস্ট্যাণ্ডে আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক আতাউল হক দোলনের সমর্থনে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ড জনগণের কাছে তুলে ধরতে বিশাল জনসভার(!) আয়োজন করা হয় বুধবার। উক্ত জনসভা নানা কারণে বিতর্ক ও হাস্যরসের সৃষ্টি করেছে। উক্ত জনসভাকে কেন্দ্র করে বিগত এক সপ্তাহ যাবৎ প্রচার করা হয় প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন কালীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতা শেখ ওয়াহেদুজ্জামান। 

অথচ তিনি জনসভায় উপস্থিত থাকবেন না জানতে পেরে তড়িঘড়ি করে প্রধান অতিথি হিসাবে অনুষ্ঠান সাজানো হয় সকল প্রটোকল ভেঙে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আতাউল হক দোলনকে। অথচ তার পিতা মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক,সাবেক প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য ও সংসদ সদস্য এবং জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি সর্বজন শ্রদ্ধেয় এ কে ফজলুল হককে সম্মানিত অতিথি করা হয়।যা নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে প্রবীণ আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ অসন্তোষ প্রকাশ করে মন্তব্য করেন মোঘল সাম্রাজ্যের সম্রাট শাহজাহানকে গৃহবন্দী করে পুত্র আওরঙ্গজেব এর মসনদ দখলের করুণ ইতিহাসের সাথে।বিগত ইউপি নির্বাচনে নৌকা মার্কার বিরুদ্ধে নির্বাচন করে বহিস্কৃত এস এম গোলাম মোস্তফা মুকুলের সভাপতিত্ব অনেক প্রশ্ন ও বিতর্কের জন্ম দিয়েছে।

সাতক্ষীরা ০৪ নির্বাচনী এলাকার শ্যামনগর-কালীগঞ্জ আংশিক এর ২০টি ইউনিয়নের মাত্র দুইজন সাধারণ সম্পাদক উপস্থিত থাকাটা তৃণমূল আওয়ামীলীগের মনোভাব অনেকটাই স্পষ্ট।শ্যামনগর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এস এম জগলুল হায়দার কে উপেক্ষা করে আয়োজিত এই জনসভায় বিপুল পরিমাণ জামায়াত শিবির কর্মী সমর্থকের উপস্থিতিতে সরকারে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অপেক্ষা আয়োজক আতাউল হক দোলন এর মনোনয়ন ও বর্তমান সংসদের সমালোচনায় মুখর ছিলো বক্তাগণ।তৃণমূল আওয়ামীলীগের সমাবেশে আওয়ামীলীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনার স্পষ্ট নিষেধাজ্ঞা থাকা স্বত্তেও সংসদের সমালোচনায় পরিণত হওয়া এই সমাবেশের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীরা।

Ads
Ads