বিতর্কিত রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি স্থগিত হচ্ছে

  • ৪-Sep-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

নানা অভিযোগে অভিযুক্ত লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি তদন্ত সাপেক্ষে স্থগিত এবং অভিযোগ প্রমাণ হলে বাতিল ঘোষণা করা হতে পারে বলে ইঙ্গিত দিয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতা। 

লক্ষীপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে ছাত্রশিবির, ছাত্রদল, বিবাহিত ও বিতর্কিত লোকজনদের দিয়েই চলছে সাংগঠনিক কার্যক্রম। এমন অভিযোগ করেছেন ছাত্রলীগের একাধিক কর্মী। বিষয়টি গণমাধ্যমে উঠে এসেঠে কয়েকবার।  এ বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী অভিন্ন সুরে বলেছেন, অভিযোগ গণমাধ্যম থেকে শুরু করে আরো কয়েকটি মাধ্যমে এসেছে। আমরা এগুলো খতিয়ে দেখছি। খুব শীঘ্রই ব্যবস্থা নেয়া হবে। কয়েকদিনের মধ্যেই এ কমিটির কার্যক্রম স্থগিত করা হবে। মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি হওয়ায় নতুন কমিটি দেয়ারও চিন্তাভাবনা রয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের।

তবে বিতর্কিত ও ছাত্রদল বা শিবিরের কোন লোকজনকে দিয়ে কোন কমিটি গঠন করা হয়নি বলে গণমাধ্যমের কাছে দাবি করেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান (ফয়সাল মাল) ও সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান শুভ। তবে পারিবারিকভাবে সভাপতি ফয়সাল মালের আপন ভাই কাওসার মাল যুবদল নেতা।  


বর্তমানেও ‘বিতর্কিত’, ভিন্ন দল সমর্থিত এবং ভোট কেন্দ্র পৌঁড়া মামলার এজাহারভৃুক্ত আসামীদের দিয়ে ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি গঠন করার অভিযোগ উঠেছে। বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের কমিটিতে গুরুত্বপূর্ণ পদে ছাত্রশিবির, ছাত্রদল, বিবাহিত, অছাত্র, চাঁদাবাজদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, এমন অভিযোগ করেছেন ছাত্রলীগের একাধিক কর্মী। তবে ছাত্রলীগের সভাপতি বলছেন, এমন অভিযোগের সত্যতা পেলে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এই কমিটিতে ছাত্রদল-শিবির থাকার কোনো প্রশ্নই ওঠে না বলে দাবি করেছেন সাধারণ সম্পাদক।

সূত্র জানায়, গত বছরের ৩০ জুলাই কামরুল হাসান (ফয়সাল মাল) সভাপতি ও মেহেদী হাসান শুভকে সাধারন সম্পাদক করে ১০২ সদস্য উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি অনুমোদন দেয় জেলা ছাত্রলীগ। জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি চৌধুরী মাহামুদ্দুনবী সোহেল ও সাবেক সাধারন সম্পাদক রাকিব হোসেন লোটাসের স্বাক্ষরিত পত্রে এ কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়। এরপর থেকে এ কমিটি নিয়ে দেখা দেয় নানা মত।

সূত্র আরো জানায়, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান ফয়সাল মালের ছোট ভাই কাউছার মাল একজন ছাত্রদলের সক্রিয় নেতা ও বাবা খোকা মাল পৌর বিএনপির সক্রিয় নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে। বর্তমানে কাউছার মাল উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি প্রার্থী বলেও জানা গেছে। যদিও সম্প্রতি রামগঞ্জ আওয়ামীলীগের এক সমাবেশে খোকা মাল জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়নের হাতে ফুলের তোড়া দিয়ে আওয়ামীলীগে যোগদান করেন। তারপরও এ নিয়ে রয়েছে বিতর্ক। এছাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান শুভ বিবাহিত এবং তার একটি কন্যা সন্তান রয়েছে। কিন্তু বিবাহ ও কন্যা সন্তানের কথা অস্বীকার করছেন মেহেদী হাসান শুভ। উপজেলা ছাত্রলীগ নেতা মেহেদী হাসান শাওন মাদক ব্যবসায়ী, কিছুদিন আগে চাঁদপুর জেলায় ৩০০ পিস ইয়াবা ও সাংগঠনিক সম্পাদক রবিন সিদ্দিকী ৬০ পিস ইয়াবা নিয়ে পুলিশের হাতে ধরা পড়ে। বর্তমানে রবিন সিদ্দিকী কারাগারে থাকলেও মেহেদী হাসান শাওন জামিনে রয়েছে।
এছাড়াও উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি শেখ শোভন এর আপন বড় ভাই শেখ ফারুক বর্তমানে উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি। অপর সহ-সভাপতি পারভেজ আলম একাদিক ডাকাতি মামলার আসামি ও সহ-সভাপতি রাসেদ আলম ভূইয়া ২ সন্তানের জনক। উপজেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক সিহাব পাটোয়ারী সিএনজি চালক এবং ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মিলন বিবাহিত।

এ দিকে ২ নং নোয়াগাঁও ইউনিয়নের ছাত্রলীগের আহ্বায়ক হারুন মিজি ও ইছাপুর ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রায়হান ভূইয়া দুইজনে ছাত্রদলের সক্রিয় নেতা ছিলেন। ৫ই জানুয়ারী ২০১৪ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট কেন্দ্র পোড়ানো এজাহার ভুক্ত মামলার আসামি। চন্ডিপুর ইউনিয়নের যুগ্ম আহ্বায়ক মারুফ হোসেন ৫ জানুয়ারী ২০১৪ সরকারী গাছ কাটার মামলার আসামী, ২নং যুগ্ম আহ্বায়ক শরীফ ভবানি ছাত্রদলের নেতা ছিলেন। দরবেশপুর ইউনিয়নের আহ্বায়ক মুন্নাফ শিবির নেতা ছিলেন ও যুগ্ম আহ্বায়ক রাকিব চৌধুরী বর্তমানে দরবেশপুর ছাত্রদলের কমিটির সহ-সম্পাদক হিসাবে আছেন। এ বিষয়ে জানার পর ঐ কমিটি স্থগিত করা হয়। করপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মিন্টু একজন মাদক ব্যবসায়ী। ভাটরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত ওয়াসিম এর আপন বড় ভাই বর্তমানে ওই ইউনিয়নের যুবদলের সাধারন সম্পাদক।

এ দিকে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মেহেদী হাসান শুভ বিবাহ ও কন্যা সন্তানের কথা অস্বীকার করে বলেন, দু’বছর আগে একটি মেয়ের সাথে তাহার এ্যাংগেজ হয়েছে।
 

Ads
Ads