ফেসবুক হ্যাক করে বোরহানউদ্দিনে মিথ্যাচার চালানো হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

  • ২০-Oct-২০১৯ ০৯:৫৫ অপরাহ্ন
Ads

ফাইল ছবি 

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

ভোলার বোরহানউদ্দিনে ফেসবুকে পোস্টকে কেন্দ্র করে সহিংসতা ও কয়েকজনের হতাহতের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, একটি হিন্দু ছেলের ফেসবুক আইডি হ্যাকিং করে তার নাম দিয়ে কতগুলি মিথ্যাচার করা হয়েছে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেখানে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে গেছে।

রোববার (২০ অক্টোবর) সন্ধ্যায় গণভবনে যুবলীগের নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ভোলার বোরহানউদ্দিনে একটি হিন্দু ছেলের ফেসবুকের আইডি হ্যাক করে তার নামে কতগুলো মিথ্যাচার করা হয়েছে, যার ফেসবুক হ্যাক করা হয়েছে তার কাছে আবার ফোন করে ২০ হাজার টাকাও চেয়েছে। ২০ হাজার টাকা না দিলে তার ফেসবুক আইডিতে এমন কিছু কথা লিখবে সেটা তার জন্য ক্ষতি হবে- এ কথা শোনার পর পরই ওই হিন্দু ছেলেটি পুলিশ স্টেশনে গেছে। সে সেখানে একটা জিডিও করেছে।

তিনি বলেন, জিডি করা সত্ত্বেও সেখানে তাকে কিন্তু পুলিশ গ্রেফতার করেছে। সাথে সাথে যে টেলিফোন করেছিল তাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। ফেসবুক আইডি হ্যাকিং হলে ফেসবুক অপারেটরদের সঙ্গে আমরা যোগাযোগ করেছি। তাদের কাছ থেকে আমরা পুরো তথ্য জোগাড় করতে পারব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সেখানে যে অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটেছে; যারা ফেসবুকে ওই হিন্দু ছেলেটির আইডি হ্যাকিং করে টাকা চেয়ে না পেয়ে যে কথাগুলো লিখেছে, সে তো একজন মুসলমান ছেলে। একজন মুসলমান হয়ে কীভাবে নবী করিম (সা.) নিয়ে এ ধরনের বাজে কথা লিখে? এবং আরেকজনকে জড়ানোর চেষ্টা করতে পারে? সেই কথা ধরে সেখানকার লোক একজন পীর সাহেব আছেন বেশ কিছু লোককে সে জড়ো করে। যখন পুলিশ তাদের বোঝাচ্ছে আপনারা এগুলো করবেন না, আমরা গ্রেফতার করেছি, আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি, তখন পুলিশের ওপর তারা চড়াও হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, পুলিশের ওপর চড়াও হলে পুলিশ নিজেদের বাঁচানোর জন্য একটা ঘরে আশ্রয় নেয়। আশ্রয় নেয়ার পরও তারা পুলিশের ওপর চড়াও হয়। সেখানে একজন এসআইয়ের গায়ে গুলি পর্যন্ত লাগে। সেই সময় সেখানে এসপি, ডিসি সবাই পৌঁছে যান। পুলিশকে রক্ষা করা এবং অন্যান্য সাধারণ মানুষ যারা ছিল সেখানে, যারা তাদের বোঝাতে গিয়েছিল তাদের রক্ষার জন্য গুলি ছোড়ে, ফলে বেশ অনেকজন আহত হয়। এর মধ্যে তিনজনের মৃত্যু কনফার্ম বলা হয়েছে আরেকজনের অবস্থা মুমূর্ষ।

উল্লেখ্য, ভোলার বোরহানউদ্দিনে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের এক যুবকের বিচারের দাবিতে ‘তৌহিদী জনতা’র ব্যানারে বিক্ষোভ থেকে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। একপর্যায়ে পুলিশের গুলিতে চারজন নিহত হয়েছেন। রোববার সকাল সাড়ে ১০টায় বোরহানউদ্দিন পৌরসভার ঈদগাহ মাঠে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পুলিশ বলছে, এক যুবকের হ্যাক হওয়া আইডি থেকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত হানার বক্তব্য ছড়ানোর ঘটনা থেকে এ পরিস্থিতির সূত্রপাত।

 

/কে 

Ads
Ads