জয় বাংলা আওয়ামীলীগের স্লোগান নয় এটি মুক্তিযুদ্ধের রণধ্বনি: আকম মোজাম্মেল হক

  • ১৯-Oct-২০১৯ ১১:৫৪ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক  ::

জয় বাংলা আওয়ামীলীগের কোন দলীয় স্লোগান নয় এটি মুক্তিযোদ্ধাদের রণধ্বনি। মুক্তিযোদ্ধারা অস্ত্র হাতে যুদ্ধ করার পাশাপাশি এ রণধ্বনি দিয়ে পাক হানাদারদের মনবল ভঙ্গ করেছিল। অনেকেই আজ মনে করেন জয় বাংলা দলীয় স্লোগান এটি কখনোই দলীয় স্লোগান হতে পারে না। এ স্লোগানকে মুক্তিযোদ্ধাদের নিজস্ব স্লোগান করা উচিত।

আজ শনিবার (১৯ অক্টোবর) দুপুরে সোনারগাঁয়ের সাহাপুর এলাকায় সোনারগাঁ উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স ভবন উদ্বোধন করতে গিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি আরো বলেন, পাঠ্যবই সংশোধনের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের গৌরবের কথা ও রাজাকারদের ইতিহাস নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরা হবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ.ক.ম মোজ্জাম্মেল হক এমপি। এসময় বিজয় দিবস ও স্বাধীনতা দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের বোনাস দেওয়াসহ ১৫ হাজার অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধার ঘর নির্মাণ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী বলেন, আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে নতুন গেজেট প্রকাশ করে তা ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে। নিজেদের সন্তানদের প্রতি খেয়াল রাখতে হবে যাতে করে মুক্তিযোদ্ধের চেতনা থেকে বিচ্যুতি হয়ে অন্য কোন আদর্শে চলে না যায়।

মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযোদ্ধারা জীবিত থাকাবস্থায় গ্যাস, বিদ্যুৎ বিল ও চিকিৎসা ভাতা বাবদ তিন হাজার টাকা দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের।

তিনি আরও বলেন, বধ্যভূমি, মুক্তিযুদ্ধের ঐতিহাসিক স্থান এবং মুক্তিযোদ্ধাদের কবর সংরক্ষণ করা হবে। এসব স্থান একই নকশায় সংরক্ষণ করা হবে। দখল হয়ে যাওয়া মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বিজড়িত স্থান ও বধ্যভূমিগুলো উদ্ধার করা হবে। এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে পরিচয়পত্র বিতরণ করা হবে। মুক্তিযোদ্ধারা মারা গেলে দাফন খরচ ৫ হাজার টাকা দেওয়া হতো। এ টাকার পরিমাণ ৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে ১০ হাজার টাকা করা হবে। প্রয়োজনে পরিবহন খরচ দেওয়া হবে।

নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. জসীমউদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নারায়ণগঞ্জ পুলিশ সুপার মো. হারুন অর রশিদ, নারায়ণগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল্লাহ আল কায়সার, নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও সাবেক জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আলী, সোনারগাঁ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোশারফ হোসেন, সোনারগাঁ উপজেলা নির্বাহী অফিসার অঞ্জন কুমার সরকার, মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স নির্মাণ প্রকল্পের পরিচালক মো. আব্দুল হাকিম, নারায়ণগঞ্জ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী অধ্যক্ষ শিরিন বেগম, সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট সামসুল ইসলাম ভূইয়া, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুর রহমান কালাম, কেন্দ্রীয় মহিলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা সম্পাদক ড. সেলিনা আক্তার, সোনারগাঁ উপজেলা সাবেক ডেপুটি কমান্ডার ওসমান গণি প্রমুখ।

Ads
Ads