অপরাধীর প্রতি সহানুভূতি নয়!

  • ১৪-Oct-২০১৯ ১০:৫০ অপরাহ্ন
Ads

:: ড. কাজী এরতেজা হাসান ::

‘সম্রাট ওপেন হার্ট সার্জারির রোগী। বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। আপনি তাকে মুক্তি দিন। তার জীবন ভিক্ষা দিন।’ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের মা সায়েরা খাতুন গত রোববার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে সংবাদ সম্মেলন করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এমনই আকুতি জানিয়েছেন। নিজেও ওপেন হার্ট সাজারির রোগী হওয়ায় এক মিনিটের বেশি বক্তব্য রাখেননি। মা বলেই সন্তানের সকল অপরাধ মায়ের কাছে তুচ্ছ হয়ে ওঠে। এটাই প্রকৃতির নিয়ম। কিন্তু ‘অপরাধী অপরাধীই’। বহুবার কঠোরভাবে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল বুয়েট শিক্ষার্থী আবরারের পিতা-মাতা-ভাই ও স্বজনরা গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎকালেও তিনি একই বক্তব্য উচ্চারণ করেন। এর আগেও ছাত্রলীগ থেকে শোভন-রাব্বানীকে সরিয়ে দেওয়ার সময়েও তিনি একই বক্তব্য উচ্চারণ করেন। 

বর্তমান মধ্যম আয়ের এই দেশ থেকে ঘুষ, দুর্নীতিকে কঠোরভাবে দমনের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কঠোর নির্দেশে কাজ করে যাচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সকল সংস্থা। অপরাধী, সে যে দলেরই হোক না কেন, ছাড় পাচ্ছে না। যার প্রমাণ আমরা গত এক দশকে পেয়েছি। আর গত এক মাসে খুব বেশি আমরা লক্ষ করছি। সম্প্রতি আবরার হত্যাকা-ের পর চরম ও কঠোরকণ্ঠে বঙ্গবন্ধুকন্যা জানিয়ে দিয়েছেন, ‘কোনো দলটল আমি বুঝি না। পরিষ্কার কথা কোনো দল আমি বুঝি না।’ কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এখানে কেউ যদি কোনো অপরাধ করে সে কোন দল, কি করে না করে আমি কিন্তু সেটা দেখি না। আমার কাছে অপরাধী, অপরাধীই। আমি অপরাধী হিসেবেই দেখি।’

সম্রাটের মা তার বক্তব্যে সম্রাটকে বাঁচাতে নানা ধরনের যুক্তির উপস্থাপন করলেও তার বিচার হবে। সে দোষী। সে অপরাধী। সম্প্রতি নুসরাত হত্যাকা-েরও কঠোর বিচার হয়েছে। দেশে আলোচিত কয়েকটি মামলার উদাহরণ টেনে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘ইতোমধ্যে মাদরাসাছাত্রী নুসরাত হত্যার বিচার শেষ, এখন রায়ের অপেক্ষায় আছে। আগামী ২৪ অক্টোবর রায় হবে। শিশু রাজন হত্যার বিচার হয়েছে। ফাহাদ হত্যা মামলাটিও সর্বোচ্চ গুরুত্ব পাবে।’ খোদ প্রধানমন্ত্রী আবরার হত্যার বিচার দ্রুত শেষ করতে আইনমন্ত্রীকে নির্দেশ দিয়েছেন। 

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকার সার্বক্ষণিক চেষ্টা করছে, সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ দেশের প্রতিটি আনাচে-কানাচে অপরাধ মুক্ত রাখতে। যেখানেই অপরাধ সংগঠিত হোক না কেন, সেখানেই হানা দিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজেই নির্দেশ দিয়েছেন। অপরাধীকে ধরতে কোন দল তা না দেখারও নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। গতকাল সোমবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে আবরারের পরিবার। গণভবনে আবরার ফাহাদের বাবা বরকত উল্লাহ, মা রোকেয়া খাতুন, ছোট ভাই আবরার ফাইয়াজ সাব্বিরসহ পরিবারের সদস্যরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে প্রধানমন্ত্রী তাদের এই কথা জানিয়েছেন। ওই সময় রোকেয়া খাতুন প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, ‘আপনি মায়ের আসনে থেকে ঘটনার পর হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে যে কঠোর ভূমিকা নিয়েছেন সে জন্য আপনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমার নেই।’ প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সাংবাদিকদের ব্রিফকালে বলেন, ‘গণভবনে আবরার ফাহাদের মা রোকেয়া খাতুনের সঙ্গে সাক্ষাতের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকে জড়িয়ে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আমি ঘটনাটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে সিসি টিভি ফুটেজ দেখে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছি। আমি দেখতে চাইনি কে কার লোক। আপরাধী কে বা কোন দল করে সেটা বিবেচনা করিনি।’

একজন মা বিচারকের আসন থেকে আরেক মাকে উদ্দেশে বলেছেন, ‘আপনাকে (আবরারের মা) সান্ত¡না জানানোর ভাষা আমার জানা নেই। শুধু বলব আমাকে দেখেন। স্বজন হারানোর বেদনা আমি বুঝি। আমিও এক রাতে সব হারিয়েছিলাম। আমি তখন বিচারও পাইনি।’ 

গত শনিবার বিকেলে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার রায়ডাঙ্গা গ্রামের বাড়িতে গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে আবরার ফাহাদের একমাত্র ছোট ভাই ঢাকা কলেজের একাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী আবরার ফায়াজ জানিয়েছেন, তিনি আর ঢাকায় পড়বেন না। তিনি বলেন, ‘কোনো ভয় না, আসলে সত্যি কথা যেটা, ঢাকাতে নিয়ে যাওয়া-ভর্তি, সব ছিল ভাইয়ের ইচ্ছায়। ও সব কেয়ার করত। রুমে পানি না থাকলে ভাইই দিত। ও নেই, সেখানে কী করে থাকব।’ এমন বক্তব্যে গত রোববার আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘ফাহাদের ভাই যদি ঢাকা কলেজে পড়তে অনিরাপদ মনে করেন, তাহলে আমরা তাকে নিরাপত্তা দিতে প্রস্তুত। তাকে সব ধরনের নিরাপত্তা দিতে সবসময় তার পাশে থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। আমার মনে হয়, এত বড় ঘটনা, এত বড় আঘাতের কারণে হয়তো এখনই ঢাকায় আসতে মানসিকভাবে প্রস্তুত নয় ফায়াজ।’ ‘ফাহাদের ঘটনা মেনে নেওয়া যায় না। এ হত্যাকা-ের সঙ্গে জড়িত কেউ মাফ পাবে না’ উল্লেখ করেন আইনমন্ত্রী।

Ads
Ads