মোংলায় সড়ক দূর্ঘটনা রোধে শেখ আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশনের ব্যতিক্রমধর্মী উদ্যোগ

  • ২২-Sep-২০১৯ ০৮:৪১ অপরাহ্ন
Ads

:: মোংলা প্রতিনিধি ::

মোংলার বিভিন্ন সড়কে তৈরী করা হয়েছে অসংখ্য স্পিড ব্রেকার। যেখানে নেই কোন রং করা বা সাংকেতিক চিহৃ। এছাড়াও ড্রেজার পাইপ লাইনের কারনে প্রতিনিয়ত ঘটছে দূর্ঘটনা। সড়ক গুলোতে যত্রতত্র স্পিড ব্রেকার তৈরী, মেইন সড়কের উপর দিয়ে ড্রেজার পাইপ লাইন বসানোর কারনে সড়ক গুলো যেন মরন ফাঁদে পরিনত হয়েছে।

গত ২০ সেপ্টেম্বর রাত সাড়ে ৯ টায় মাদ্রাসা রোডের রাস্তার উপরে বসানো ড্রেজারের পাইপ লাইনের সঙ্গে সজোরে ধাক্কা লেগে মোটর সাইকেল আরোহী রাজু হাওলাদার (২৪) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে।এ ঘটনার আগেও স্পিড ব্রেকার ও ড্রেজার পাইপ লাইনের কারনে বহু হতাহতের খবর পাওয়া গেছে। তাই মোংলা উপজেলার সড়ক মহাসড়কে দূর্ঘটনা রোধে ব্যতিক্রমধর্মী কর্মসূচি পালন করেছে মোংলার ঐতিহ্যবাহী সেচ্ছাসেবি সংগঠন শেখ আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশন।২১-২২ সেপ্টেম্বর সকাল থেকে গভীর রাত পর্যন্ত সংগঠনের সদস্যরা পৌর এলাকার বেশিরভাগ সড়ক মহাসড়কের উপর তৈরী করা স্পিড বেকার গুলোতে রং করে সাংকেতিক চিহৃ তৈরী করেছে।

স্পিড ব্রেকারগুলোতে রঙ ও সাংকেতিক চিহৃ ব্যবহার করার কারনে এখন মোটর সাইকেল, টমটম ও অন্যান্য যানবাহন চলাচলে অনেক সুবিধা হয়েছে বলে জানান সোনাইলতলা ইউনিয়ন থেকে প্রতিদিন মোংলা শহরে যাতায়াত করা মৎস্য ব্যবসায়ী জাকির হোসেন। তিনি এ মহৎ কাজের জন্য আব্দুল হাই ব্লাড ফাউন্ডেশনের তরুনদের ধন্যবাদ জানান।

সংগঠনের সভাপতি রাজুল ইসলাম সানি বলেন, ইপিজেড ও বন্দর এলাকায় অবস্থিত কারখানাগুলোতে কর্মরত কয়েক হাজার নারী পুরুষ প্রতিদিন গ্রাম থেকে শহরে আসে। প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন শহরে চলাচল করে। বিশেষ করে ইপিজেডের বেশীরভাগ শ্রমিক রাতে কাজ শেষে মোটর সাইকেল, টমটম, ইজিবাইকে বাড়ী ফিরে যায়। কিন্ত শহর ও গ্রাম এলাকার সড়ক মহাসড়ক গুলোর স্পিড বেকারে কোন রঙ বা সাংকেতিক চিহৃ না থাকায় প্রায়ই আমরা সড়ক দূর্ঘটনার খবর পাই। তাই আমাদের এ ক্ষুদ্র উদ্যোগের কারনে যদি কিছুটা দূর্ঘটনা রোধ করা যায় তাতেই আমরা স্বার্থক।

সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা আলহাজ শেখ কামরুজ্জামান জসিম জানান, সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকেই সংগঠনের একঝাক তরুন সদস্যরা বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহন করছে। দূর্ঘটনা প্রতিরোধে এই উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে। শুধু স্পিড ব্রেকারগুলোতে রং করলেই দূর্ঘটনা কমবে না। নিয়ন্ত্রিত গতিতে গাড়ি চালালে দূর্ঘটনা কমানো সম্ভব। এজন্য তিনি সচেতনতনা বৃদ্ধিসহ নিয়ন্ত্রিত গতিতে গাড়ি চালাতে যুব সমাজের প্রতি আহবান জানান। সমিাজিক বিভিন্ন সমস্যা নিরশনে এভাবে যুবক ও তরুনরা এগিয়ে আসলে অনেক সমস্যারই সমাধান সম্ভব বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন

Ads
Ads