উন্নয়ন টেকসই করতে পুলিশকে আরও জনবান্ধব হতে হবে: প্রধানমন্ত্রী

  • ১৫-Sep-২০১৯ ০২:০২ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

উন্নয়ন টেকসই করতে পুলিশকে আরও জনবান্ধব হতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

রোববার সকালে রাজশাহীর সারদা পুলিশ একাডেমিতে ৩৬তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারদের (এএসপি) সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, উন্নয়ন টেকসই করতে পুলিশকে আরও জনবান্ধব হতে হবে। কেননা বর্তমান সরকার দেশে আইনের শাসন নিশ্চিতে বদ্ধপরিকর। দায়িত্ব পালনের সময় জনগণের মৌলিক অধিকার, তাদের মানবাধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় পুলিশকে অগ্রণী ভূমিকা পালন করতে হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, জঙ্গি ও মাদকের ক্ষেত্রে জিরো টলারেন্স নীতি অনুসরণ করছে পুলিশ। এই অভিযান অব্যাহত থাকবে। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা দেশের এই অগ্রগতি ধরে রাখতে চাই।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ পুলিশে ইতোমধ্যে প্রায় ৪৯ হাজার ২০০ পদ সৃজন করা হয়েছে। বর্ধিত জনবলের সঙ্গে প্রয়োজনীয় যানবাহন ও সরঞ্জামাদি সরবরাহ করা হচ্ছে। গাজীপুর ও রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ গঠন করা হয়েছে। জঙ্গি ও সন্ত্রাস নির্মূলে পুলিশের ‘এন্টি টেরোরিজম ইউনিট’, ‘ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশ’, ‘পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই), ট্যুরিস্ট পুলিশ, নৌ পুলিশ এবং ২টি স্পেশাল সিকিউরিটি অ্যান্ড প্রটেকশন ব্যাটালিয়ন গঠন করা হয়েছে। ‘গার্ড অ্যান্ড প্রটেকশন পুলিশ’ গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এসআই ও সার্জেন্ট পদকে তৃতীয় শ্রেণি থেকে দ্বিতীয় শ্রেণি এবং দ্বিতীয় শ্রেণির ইন্সপেক্টর পদকে প্রথম শ্রেণি পদে উন্নীত করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা প্রদত্ত আইজিপি’র র‌্যাঙ্ক ব্যাজ পুনঃপ্রবর্তন করে আইজিপি’র পদকে সিনিয়র সচিব পদমর্যাদায় উন্নীত করা হয়েছে। ইন-সার্ভিস ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করা হয়েছে আরও ৪টি ট্রেনিং সেন্টার স্থাপনের কাজ চলছে। ঝুঁকি ভাতা প্রবর্তন, ৯৯৯, বিডি পুলিশ হেল্পলাইন এবং অনলাইন পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্ভিস চালু, পুলিশের বিভিন্ন স্তরে নারীদের নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, ১৯৭৪ সালে জাতির পিতা সর্বপ্রথম পুলিশে নারীদের নিয়োগ দেন। পুলিশের আবাসন, রেশন, চিকিৎসা সুবিধা বৃদ্ধি, উন্নত প্রশিক্ষণ, লজিস্টিক, যানবাহন, প্রয়োজনীয় অবকাঠামো নির্মাণসহ বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা বাস্তবায়ন অব্যাহত রেখেছি। ২০০৯ সালে বর্তমান সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকে ধাপে ধাপে ৯৫ হাজার ১৫৬ জন পুলিশ সদস্যকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ পুলিশে প্রায় দশ হাজার কনস্টবল নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এই নিয়োগ প্রক্রিয়াটি অত্যন্ত স্বচ্ছতা ও নিরপেক্ষতার সঙ্গে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে।

সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরে সরকার প্রধান আরও বলেন, আমাদের সরকার বিগত ২০০৯ সালে দায়িত্ব গ্রহণের পর এদেশের সার্বিক উন্নয়ন ও জনমানুষের জীবনযাত্রার মানোন্নয়ন সেবা প্রাপ্তি সহজতর করার লক্ষ্যে বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি, বৈদেশিক নীতি ও সম্পর্ক, গ্রামীণ ও নগর অবকাঠামো, ব্যবসা-বাণিজ্য, সামাজিক নিরাপত্তা-প্রতিটি সেক্টরেই আজ কাঙ্খিত লক্ষ্য অর্জন সম্ভব হয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণের মাধ্যমে মহাকাশেও আমাদের অগ্রযাত্রা শুরু হয়েছে। যোগাযোগ খাতে আমাদের যুগান্তকারী উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।

এছাড়া মেট্রোরেল এবং নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর নির্মাণ কাজ দ্রুত এগিয়ে চলেছে। ইতোমধ্যেই জাতিসংঘ বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে ঘোষণা করেছে বলেও অনুষ্ঠানে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমির প্যারেড গ্রাউন্ডে পৌঁছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি সুসজ্জিত খোলা জিপে চড়ে বর্ণাঢ্য প্যারেড পরিদর্শন এবং সহকারী পুলিশ সুপারদের অভিবাদন গ্রহণ করেন।

প্যারেড কমান্ডার শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপার শাহিন আক্তার ও সহকারী প্যারেড কমান্ডার রবিউল ইসলাম খানের নেতৃত্বে এক এক করে মোট ৮টি কন্টিনজেন্ট প্যারেড অংশগ্রহণ করে। ৮টি কন্টিনজেন্ট থাকা মোট ১১৭জন শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপার মার্চপাস্ট করে প্রধানমন্ত্রীকে সালাম জানান। এরপর পতাকাবাহী দল, পুলিশ একাডেমির বিশেষ অশ্বারোহী দল ও সর্বশেষ বাদক দল একে একে মার্চপাস্ট করে প্রধানমন্ত্রীকে সালাম ও অভিবাদন জানান।

পরে একাডেমির প্যারেড গ্রাউন্ডে ৩৬তম বিসিএস পুলিশ ক্যাডারের শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুলিশ একাডেমিতে প্রশিক্ষণের সময় বিভিন্ন বিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী সহকারী পুলিশ সুপারদের মধ্যে ট্রফি বিতরণ করেন। পরে তিনি নবীন এই পুলিশ কর্মকর্তাদের উদ্দেশে ভাষণ দেন।

বিভিন্ন ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনকারী শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারগণ হলেন- ‘বেস্ট শ্যুটার’ খায়রুল কবির, 'বেস্ট ফিল্ড পারফমার’ আব্দুল্লাহ-আল-মামুন, ‘বেস্ট হর্সম্যানশিপ’ সালাহউদ্দিন, ‘বেস্ট একাডেমিক' সাইফুল ইসলাম খান এবং বেস্ট প্রবেশনার সালাহ্ উদ্দিন। প্যারেডে ১৭ জন নারী অফিসারসহ ১১৭ জন শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপার অংশগ্রহণ করেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রোববার (১৫ সেপ্টেম্বর) রাজশাহীর সারদায় পৌঁছান। সকাল সাড়ে ১০টায় বিমান বাহিনীর একটি বিশেষ হেলিকপ্টারে সারদায় থাকা বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমির হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন। পরে বেলা ১১টায় মঞ্চে ওঠেন প্রধানমন্ত্রী এবং ৩৬তম বিসিএস সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপণী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

প্রধানমন্ত্রী একাডেমি চত্বরে একটি আম গাছের চারা রোপণ করেন। তিনি শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারগণের সঙ্গে ফটোসেশনে অংশ নেন।

কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান শেষে এদিন দুপুরেই প্রধানমন্ত্রী আবার রাজশাহীর সারদা থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেওয়ার কথা রয়েছে।

সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, বিভিন্ন দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী, সংসদ সদস্যরা, বাংলাদেশ পুলিশের মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারী, বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমির প্রিন্সিপ্যাল মো. নজিবুর রহমান, সরকারের সিনিয়র সচিব ও সচিবরা, বিদেশি কূটনীতিকরা, অতিরিক্ত আইজিপিরা, ঊর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তারা, পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তারা, মুক্তিযােদ্ধা, রাজশাহী শহরের গণ্যমান্য ব্যক্তি এবং আমন্ত্রিত অতিথিরা উপস্থিত ছিলেন।

Ads
Ads