আদমদীঘিতে এখনো শুরু হয়নি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মান কাজ!

  • ১১-Sep-২০১৯ ০৫:৪২ অপরাহ্ন
Ads

:: আদমদীঘি  প্রতিনিধি ::

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলা সদরে সরকারী ব্যায়ে মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মানে দরপত্রের মাধ্যমে ঠিকাদার নিয়োগ ও ধর্ম মন্ত্রনালয় থেকে বরাদ্দ করা টাকা উত্তোলন করার তিন মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো শুরু হয়নি নির্মান কাজ। কবে নাগাদ শুরু হবে তা কেউ জানাতে পারছেন না। তবে অধিগ্রহন করা জমির ক্ষতি পুরনের টাকা আদান-প্রদান না হওয়ায় কাজ শুরু করা যাচ্ছে না বলে জানিয়েছেন ওই জমি মালিক। 

জানা গেছে, সারা দেশের জেলা ও উপজেলায় ৫৬০টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মানের অংশ হিসাবে আদমদীঘি উপজেলা সদরের বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন স্থানে তালশন মৌজায় মোট ৪৩ শতক জমির উপর মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মানের সব ধরণের সম্ভাব্যতা যাচাই শেষে ১৪ কোটি টাকা প্রাক্কলন ধরে চলতি বছরের এপ্রিল মাসে গণপুর্ত বিভাগ থেকে দরপত্র আহবান করা হয়। দরপত্রে সর্বনিম্ম ১২ কোটি ৬৫ লাখ টাকার দরদাতা বগুড়ার মেসার্স কবির ট্রেডার্সকে ঠিকাদার মনোনীত করা হয়েছে।

এদিকে, গত আর্থিক বছরে অর্থাৎ জুন ক্লোজিংয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন প্রধান কার্যালয়; ধর্ম মন্ত্রানালয় থেকে বরাদ্দ টাকা উত্তোলন করে নিয়েছেন। নির্মান কাজ শুরু হতে বিলম্ব হবার কারন জানতে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বগুড়ার উপ-পরিচালক আব্দুর রাজ্জাকের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা তিনি বলেন, এ সংক্রান্ত কোন কাজ আমার দপ্তরে নেই। জেলা প্রশাসক দপ্তর থেকে অধিগ্রহন করা ১৭ শতক জমির মুল্য পরিশোধ এবং জমি হস্তান্তর করলেই গণপুর্ত বিভাগ মনোনীত ঠিকাদারকে কাজ শুরু করতে বলবেন। তিনি আরোও বলেন, প্রয়োজনীয় জমি অধিগ্রহন যেহেতু শেষ হয়েছে সেহেতু জমির মালিক অনুমতি দিলে এক সপ্তাহের মধ্যে কাজ শুরু করা সম্ভব। 

এ বিষয়ে ভুমি মালিক আলতাফ হোসেন বলেন, জেলা প্রশাসক দপ্তর থেকে ক্ষতি পুরণের টাকা প্রদানের চাহিদা পত্র সংশ্লিষ্ট দপ্তরে পাঠিয়ে, আমাকে তার অনুলিপি দিয়ে কাজ শুরু করলে আমার কোন আপত্তি নেই।

Ads
Ads