যে বিষয় সর্বদলীয় বৈঠকের আহ্বান বিএনপির

  • ৩-Sep-২০১৯ ০২:৩৩ অপরাহ্ন
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে সর্বদলীয় বৈঠকের আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি। মঙ্গলবার (০৩ সেপ্টেম্বর) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ আহ্বান জানানো হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, তারেক রহমান গতরাতে লন্ডনে দলের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনায় রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে খালেদা জিয়ার অংশগ্রহণের মাধ্যমে সর্বদলীয় বৈঠক ডাকার যে প্রস্তাব রেখেছেন, তা বাস্তবায়নের জন্য আমরা সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের এই প্রস্তাব রোহিঙ্গা নিয়ে দেশ ও জাতি মহাসংকট থেকে পরিত্রাণ লাভ করতে পারবে বলে মনে করেন তিনি।

রিজভী বলেন, রোহিঙ্গা পরিস্থিতি জাতীয় সংকটে রূপ নিয়েছে। গত দুই বছরে সরকার একজন রোহিঙ্গাকেও তাদের জন্মভূমি মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে পারেনি।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গা আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে প্রতিদিন জন্ম নিচ্ছে নতুন শিশু। এদের নাগরিকত্ব পরিচয় কী হবে? কোন দেশের পরিচয়ে এরা বেড়ে উঠবে?

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব আরও বলেন, ভারতের আসামে ১৯ লাখের বেশি মানুষকে নাগরিকত্বহীন করা হয়েছে। শোনা যাচ্ছে- তাদের ঠেলে দেয়া হবে বাংলাদেশে। এ পরিস্থিতি বাংলাদেশের জন্য আরও একটি বড় বিপদের আশঙ্কা।

‘ফলে দলীয় স্বার্থ নয়, দলমত নির্বিশেষে প্রতিটি বাংলাদেশিকে এক কাতারে আসা এখন সময়ের দাবি। খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান সর্বাগ্রে রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় জাতীয় ঐক্যের আহ্বান জানিয়েছেন।’

অবৈধ সংসদ ভেঙে দিয়ে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নতুন নির্বাচন ঘোষণার আহ্বান জানিয়ে সরকারের উদ্দেশ্যে রিজভী বলেছেন, এখনও সময় আছে, নিশিরাতের নির্বাচন বাতিল ঘোষণা করুন। নতুন নির্বাচনের আয়োজন করুন। তা না হলে রাজপথে জনবিস্ফোরণ রোধ করতে পারবেন না। পালানোর গলিপথও খুঁজে পাবে না।

তিনি বলেছেন, বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ঘিরে সারা দেশে মানুষের মধ্যে দলের প্রতি যে আবেগ-উচ্ছ্বাস পরিলক্ষিত হয়েছে তা অভাবনীয় এবং সেইসাথে অবৈধ সরকারের প্রতি যে তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ ধ্বণিত হয়েছে তা অবৈধ শাসকগোষ্ঠীর উপলব্ধির জন্য সতর্কবার্তা। আওয়ামী আইনশৃঙ্খলাবাহিনী বিরোধী দল ও মত নির্মূলের ভাবধারায় অনুপ্রাণিত। তাই প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কর্মসূচি বানচাল করার জন্য দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে শাসকদলের গুন্ডা বাহিনী এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনী হামলা-মামলা ও নির্যাতন চালিয়েছে অবিরামভাবে। এতে গ্রেফতার ও আহত হয়েছে অনেক নেতাকর্মী। তারপরও সব বাধা উপেক্ষা করে সারা দেশে রাস্তায় নেমেছিল লাখ লাখ মানুষ।

বিএনপির এই নেতা বলেন, বাংলাদেশের মানুষের আশা-আকাঙ্ক্ষার মূর্ত প্রতীক দেশনায়ক তারেক রহমান গতরাতে লন্ডনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর আলোচনা সভায় রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার অংশগ্রহণের মাধ্যমে সর্বদলীয় বৈঠক ডাকার যে প্রস্তাব রেখেছেন তা বাস্তবায়নের জন্য আমরা সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছি। তার এই প্রস্তাবেই কেবল রোহিঙ্গা নিয়ে মহাসংকট থেকে পরিত্রাণ লাভ করতে পারবে। রোহিঙ্গা পরিস্থিতি জাতীয় সংকটে রূপ নিয়েছে। গত দুই বছরে সরকার একজন রোহিঙ্গাকেও তাদের জন্মভূমি মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে পারেনি। রোহিঙ্গা আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে প্রতিদিন জন্ম নিচ্ছে নতুন শিশু। এদের নাগরিকত্ব পরিচয় কী হবে? কোন দেশের পরিচয়ে এরা বেড়ে উঠবে?

 

/কে 

Ads
Ads