আ. লীগের পরিবারের সন্তান শ্রাবণকে ছাত্রদলের সভাপতি বানাতে মরিয়া টুকু

  • ২-Sep-২০১৯ ১২:০৯ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: নিজস্ব প্রতিবেদক ::

ছাত্রদলের সভাপতি প্রার্থী কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবণকে ছাত্র সংগঠনটির সাবেক সভাপতি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকুর অনুসারীদের একাংশ। ছাত্রদলের সর্বশেষ কমিটির বৃত্তি ও ছাত্রকল্যাণ সম্পাদক শ্রাবণের পুরো পরিবার আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে জড়িত। তার বাবা কাজী রফিকুল ইসলাম যশোর জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এবং কেশবপুর উপজেলার চেয়ারম্যান।

শ্রাবণের বড় ভাই কাজী মুস্তাফিজুল ইসলাম মুক্ত কেশবপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক। তিনি নৌকার প্রার্থী হয়ে সাগরদাড়ি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে জয়ী হয়ে, চেয়ারম্যান পদে দায়িত্ব পালন করছেন। শ্রাবণের আরেক ভাই কাজী মুজাহিদুল ইসলাম পান্না উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক । তার  ছোট ভাই কাজী আজহারুল ইসলাম মানিক কেশবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের আহ্বায়ক। অপর ভাই কাজী মাজহারুল ইসলাম প্রজন্ম লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। 
পুরো পরিবার আওয়ামী রাজনীতিতে জড়িত থাকলেও শ্রাবণ ২০০৩ সাল থেকে ছাত্রদল করছেন বলে নিজের ফেসবুকে জানিয়েছেন। সভাপতি পদে ভোট চেয়ে

সম্প্রতি তিনি ফেসবুকে লেখেন, ‘আপনারা আমাকে  ভোট দিন.. আমি, আপনাদের শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের আদর্শ ও আপোষহীন নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্ব এবং আগামীর রাষ্ট্রনায়ক তারেক রহমানের স্বপ্নের ছাত্রদল উপহার দিব, ইনশাআলাহ।’

আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রদলের কাউন্সিল হবে। দীর্ঘ ২৭ বছর পর ভোটে নির্বাচিত নেতৃত্ব পেতে যাচ্ছে ছাত্রদল। বিএনপি নেতাদের আটটি ‘সিন্ডিকেট’ থেকে ছাত্রদলের ৩৩ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ভোটে লড়ছেন। যুবদল সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু গ্র“পের প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে রয়েছেন শ্রাবণ। তবে শেষ পর্যন্ত টুকু গ্রপের সমর্থন পাবেন কী না নিশ্চিত নয়। 

বিএনপি সূত্রের খবর, শ্রাবণকে দ্বিধা রয়েছে দলে। তিনি আওয়ামী পরিবারের সন্তান হয়েও দলের দুঃসময়ে ছাত্রদল করায় তার প্রতি যেমন সহানুভূতি রয়েছে, তেমন সন্দেহও রয়েছে। অনেকের আশঙ্কা,  ছাত্রদল সভাপতি নির্বাচিত হলে শ্রাবণ ও তার পরিবারের ওপর সরকারের চাপ  আসতে পারে। পরিবারের চাপে শ্রাবণ তখন দল বদল করলে বিএনপিকে চরম বিব্রতকর অবস্থায় পরতে হবে। তাই শ্রাবণকে ছাত্রদলের সভাপতি নির্বাচন থেকে দূরে রেখে, তাকে যুবদল বা অন্য কোথাও সম্মাণজনক পদ দেওয়ার মত রয়েছে। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানকেও এ কথা জানানো হয়েছে। 

আওয়ামী পরিবারের সদস্য শ্রাবণকে সমর্থনের বিষয়ে সুলতান সালাহ উদ্দিন টুকুর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে বলয়ের একজন নেতা জানিয়েছেন, বেশ কয়েকজন নেতা প্রার্থী হয়েছেন টুকু গ্রুপ থেকে। এর মধ্যে একজনকে বাছাই করা হবে ২ সেপ্টেম্বর চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্রকাশের আগেই।

Ads
Ads