শুক্রবার ২ ডিসেম্বর ২০২২ ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

শিরোনাম: ড. কামাল হোসেন রাজনীতির রহস্য পুরুষ: কাদের    দরিদ্র দেশগুলোর ওপর ঋণের বোঝা বেড়েছে ৩৫ শতাংশ: বিশ্বব্যাংক    নভেম্বরে ১৩৪ কোটি টাকার চোরাচালান ও মাদকদ্রব্য জব্দ    রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধে ১৩ হাজার ইউক্রেনীয় সেনা নিহত    নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দোকানে কাভার্ডভ্যান, বাবা-ছেলেসহ নিহত ৫    দৈনিক মৃত্যুতে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র, সংক্রমণে জাপান    পার্বত্য চট্টগ্রামসহ দেশের সর্বত্র শান্তি বজায় রাখতে সরকার বদ্ধপরিকর: প্রধানমন্ত্রী   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
বশেমুরবিপ্রবিতে এখনও হাতে পূরণ করতে হয় সেমিস্টার ফর্ম!
বশেমুরবিপ্রবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: রোববার, ২০ নভেম্বর, ২০২২, ৯:২০ পিএম আপডেট: ২০.১১.২০২২ ৯:২৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

মহাকাশে উড়ছে কয়েক গণ্ডা স্যাটেলাইট। সারাবিশ্বকে একসাথে কানেক্ট করতে সময় লাগে কয়েক মিনিট। অথচ এখনো প্রযুক্তিগত সুসময়েও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, গোপালগঞ্জে সেমিস্টার ফর্ম ফিলআপ করতে হয় কাগজে কলমে।এতে করে শিক্ষার্থীদের মূল ভোগান্তি হয় আবাসিক হল প্রাধ্যক্ষ্যের স্বাক্ষর আনতে। 

সাধারণত শিক্ষক সংকটময় এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে হল প্রাধ্যক্ষরা একাডেমিক বা অন্যান্য প্রশাসনিক কাজেও জড়িত থাকেন। অনেকেরই থাকে হল ছাড়াও আরও দু'একটি দ্বায়িত্ব। তাই হলে গেলেই প্রধ্যক্ষের দেখা মেলা ভার। 

তথ্যসূত্র বলছে, বশেমুরবিপ্রবিতে পড়ুয়া ১২ হাজার শিক্ষার্থীর বিপরীতে ৫ টি আবাসিক হল রয়েছে। অর্থাৎ, সাধারণ গড়ে প্রতি হলে সংযুক্তি আছে ২৪০০ শিক্ষার্থীর। আর এই ৫ হলে প্রায় ৫০০ করে মোট মিলিয়ে ২৫০০ আসন রয়েছে। অর্থাৎ অনাবাসিক কিন্তু ফর্মে প্রাধ্যাক্ষের স্বাক্ষর নিতে এই ফর্ম ফিল আপ এর সময়কালীন একটি হলে অতিরিক্ত জমায়েত হয় প্রায় দুই হাজারের কিছু কম শিক্ষার্থীর। সরেজমিনে দেখা যায়,  হল থেকে একটি ফর্মে স্বাক্ষর নিতে, একদিন জমা দিয়ে এসে আবার পরেরদিন তা আনতে যেতে হয়। কপাল খারাপ হলে পরেরদিনও স্বাক্ষর নাও হতে পারে বা লাঞ্চ ব্রেকের পরেও আসতে বলা হতে পারে। এছাড়া, এভারেস্ট জয়ের মতো কষ্ট এখোনো বাকি আছে, আর তা হলো ব্যাংকে টাকা জমা দেওয়া। ১০ সহস্রাধিক শিক্ষার্থীর জন্য অগ্রনী ব্যাংকের একটি শাখা রয়েছে যার জায়গা অত্যন্ত অপ্রতুল। যার দরুণ টাকা জমা দিতে দীর্ঘ এবং ধাক্কাধাক্কি করে লাইনে দাঁড়াতে হয় শিক্ষার্থীদের। আর এই কাজগুলো করার জন্য বিশেষ কোনো সময়ও নির্ধারিত থাকে না। পরিক্ষার পূর্বমুহূর্তে অপেক্ষাকৃত গুরুত্বপূর্ণ ক্লাসগুলোর সাথে সমন্বয় বা কখোনো ক্লাস বাদ দিয়েই করতে হয় ফর্ম ফিল আপ। 

অনুসন্ধান করে জানা যায়, আবাসিক হলে জমা থাকা এই ফর্মগুলো হল প্রাধ্যাক্ষগণ শুধু স্বাক্ষরই করেন। বেশিরভাগই পড়ে দেখা হয়না। বাস্তবিক অর্থে এতোগুলো ফর্ম একটি নির্দিষ্ট এবং স্বল্প সময়ে ভালো করে পর্যবেক্ষণ করে স্বাক্ষর করা রীতিমতো অসম্ভব ও বটে। বছরে প্রায় ২ বার এই পরিস্থিতিতে পড়তে হয় বশেমুরবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের।



এবিষয়ে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের শিক্ষার্থী সাদিয়া মৌ বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অল্প কিছু দোকান। যেখানে ফর্ম পূরণের সময়টায় পর্যাপ্ত মোবাইল ব্যাংকিং সুবিধাও পাওয়া যায় না। সুতরাং টাকা তোলা থেকে শুরু করে হলে স্বাক্ষর আনা অবধি প্রতিটা স্তরে ঝামেলা পোহাতে হয়। অনেকসময় ২-১ টা ক্লাসও মিস করতে হয় ফর্ম ফিলআপ করতে যেয়ে। এই ফর্মটা অনলাইনে পূরণ করতে পারলে সবচেয়ে ভালো হয় এবং শিক্ষার্থীরা দ্রুত সাবমিট করতে পারবে।

এবিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির শেখ রাসেল হলের প্রভোস্ট মো. এমদাদুল হক বলেন,  প্রশাসন চাইলে এই ফর্মটা অনলাইনে করতে পারে। তবে আপ-টু-ডেট থাকার বিষয়ে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। কারণ হলগুলোতে অনেক শিক্ষার্থীর মাসিক বকেয়া থাকে এবং কোনো শিক্ষার্থী শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজের দ্বায়ে হল থেকে বহিষ্কার থাকতে পারে। সুতরাং এইসব তথ্যগুলোর বিষয়ে আপডেট থাকলে এই প্রক্রিয়াটা শিক্ষার্থীদের জন্য উপকারী হবে। 

এবিষয়ে বশেমুরবিপ্রবি রেজিস্ট্রার মো. দলিলুর রহমান বলেন, আমরা এবিষয়ে ইতোমধ্যে মৌখিক কথাবার্তা আগিয়েছি। ইনশাআল্লাহ দ্রুতই আমরা ফর্ম ফিল আপটা অনলাইনে করতে পারবো।

বিষয়টি নিয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ভোরের পাতাকে বলেন, এই কাজটা করতে পারলে শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি অনেকটা কমবে। তবে আমাদের এখানে এখোনো অনলাইনের প্রয়োগিক চর্চা।কম শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীদের বেতন লিস্টই আমরা এখোনো শতভাগ অনলাইনে আনতে পারিনি। আমাদের অনেক বিষয়ে সংকট রয়েছে, যা শেষ করে তারপর এবিষয়ে আগাতে হবে। এবং আমরা তা খুব দ্রুত করার চেষ্টা করবো।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  বশেমুরবিপ্রবি  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/dd.jpg
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]