রোববার ৪ ডিসেম্বর ২০২২ ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৯

শিরোনাম: উত্তেজনা ছড়িয়ে আর্জেন্টিনার কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত    যুবদল সভাপতি টুকু গ্রেপ্তার    রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় পুলিশের ‘ব্লক রেইড’    বনানীতে জঙ্গি সদস্য অবস্থান সন্দেহে হোটেল ও মেস ঘিরে রেখেছে পুলিশ    ফের বাড়ল স্বর্ণের দাম, দেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ    বাংলাদেশের উন্নয়ন ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা নিয়ে প্রচারণা চালাবে সিএনএন    চিকিৎসা বিজ্ঞানের মৌলিক গবেষণায় ডব্লিউএইচএফ’র সহযোগিতা কামনা প্রধানমন্ত্রীর   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
বেদনাসিক্ত জন্মদিনে কোনো আনুষ্ঠানিকতা করেন না এরতেজা হাসান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ২০ আগস্ট, ২০২২, ১২:০৩ এএম আপডেট: ২০.০৮.২০২২ ১২:১৫ এএম | অনলাইন সংস্করণ

সমাজে মানুষ অপয়া হয়। অলক্ষণে হয়। ছোটবেলায় শুনতাম সপ্তাহের দু’একটা দিনও অপয়া হয়। তার মধ্যে শনিবার, মঙ্গলবার, বুধবার উল্লেখযোগ্য। শনিবারে সাবধানে থাকতে হয়, নইলে শনি লাগতে পারে। সন্ধ্যার পরে মঙ্গলবার দিন বাইরে থাকা ভালো নয়। মঙ্গলবার নাকি ভূত-প্রেতের বার। এদিন তারা মানুষ, কুকুরসহ নানা প্রাণির বেশ নিয়ে চলাফেরা করে। সফর, ব্যবসা-বাণিজ্যের জন্য বুধবার মন্দ দিন। এদিনে কোনো শুভকাজ শুরু করতে নেই, শুভযাত্রাও করতে নেই। এমনকি এ দিনগুলোয় মানুষকে ছোটবেলায় বিয়ে করা থেকেও দূরে থাকতে দেখেছি। ইত্যাদি ইত্যাদি আরও কত কল্প-কাহিনি। বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে সেসব কাহিনি আজ কৌতুকের বিরাট খোরাক জোগায়। তবে বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অনুধাবন করেছি, বৃটিশ শাসনের দিয়ে যাওয়া ইংরেজি বারো মাসের একটি মাস সত্যি অপয়া। অন্তত বাঙালি জাতির জন্য। না হলে এদিন এলেই কেন সব পত্রিকা-টেলিভিশনে শিরোনাম হয়, ‘এলো শোকের মাস আগস্ট’? হিসাব করে দেখলাম, কথা মিথ্যা নয়। জন্মদিন নিয়ে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন দৈনিক ভোরের পাতা ও দি পিপলস টাইমস সম্পাদক ও প্রকাশক, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প বাণিজ্য বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য এবং এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি। 

তিনি বলেন, প্রতিবছরই আমার জন্মদিন আসে। কিন্তু আগস্ট মানেই আমাদের হৃদয়ে রক্তক্ষণের মাস। এ মাসে আমার জন্মদিন হওয়ায় আমি কোনো আনুষ্ঠিকতা করি না। সর্বোচ্চ দোয়া মাহফিল এবং এতিম-অসহায়দের মধ্যে খাদ্য বিতরণ করেই আত্নিক শান্তি খুঁজি। 

মুক্তিযুদ্ধের আদর্শের প্রতি অবিচল ড. কাজী এরতেজা হাসানের শৈশব-কৈশোর এমন একটি শহরে কেটেছে, যেখানে স্বাধীনতার সপক্ষের কথা বলার মতো হাতেগোনা কিছু পরিবার ছিল। সেই পরিবারগুলোর মধ্যে সুখ্যাত কাজী পরিবার। মিনি পাকিস্তান খ্যাত সাতক্ষীরা জেলাতে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী পিতা-মাতার কাছ থেকে ছেলেবেলা থেকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা শুনতে শুনতে বড় হয়েছেন। তিনি দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে দৈনিক ভোরের পাতার মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষে সাংবাদিকতার কলম সেনা হিসেবে দেশের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায়ও রয়েছে তাঁর অবদান। মানবাধিকার প্রতিষ্ঠায় অবদানের জন্য জাতিসংঘ থেকে ভূষিত হয়েছেন ‘ডক্টর অব হিউম্যানিটি’ উপাধিতে। এছাড়া দেশের শীর্ষ ব্যবসায়ীদের প্রতিষ্ঠান এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক হিসেবেও কাজ করে যাচ্ছেন।



জন্মদিন কেন আনুষ্ঠানিকভাবে পালন করেন না এমন প্রশ্নের জবাবে ড. কাজী এরতেজা হাসান বলেন, ‘এই আগস্ট মাসে আমাদের জাতির পিতাকে আমাদের কাছ থেকে কেড়ে নিয়েছে একদল কুলাঙ্গার। ছেলেবেলায় যখন জেনেছি আগস্ট মানেই শোকের মাস; তখন থেকেই অন্যরকম এক বেদনা হৃদয়ে অনুভব করি। তখন থেকেই জন্মদিনে আনুষ্ঠানিকতা ত্যাগ করেছি।’ তিনি বলেন, ‘এই আগস্টে এসে আমি দৃঢ়চিত্তে বলতে চাই, বঙ্গবন্ধুকে আমি চোখে দেখিনি। তবে তাঁর সুযোগ্য কন্যা, আমাদের প্রধানমন্ত্রী দেশের সকল মানুষের আস্থার প্রতীক জননেত্রী শেখ হাসিনার দেখানো পথে দেশের অগ্রগতির জন্য কাজ করে যাচ্ছি। এ ধারা অব্যাহত রাখতেই যখনই দেখেছি, বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস বইয়ে বঙ্গবন্ধুকে অবমাননা করে তাঁর আদর্শকে হত্যা করতে চেয়েছিল একটি মহল, তাদের শাস্তি দাবি করে মহামান্য হাইকোর্টে রিট করেছি। বঙ্গবন্ধু ও শেখ হাসিনার আদর্শিক সৈনিক হিসেবে এটাই আমার জন্মদিনের উপহার হিসেবে মনে করি।’ এছাড়া সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি হিসাবে স্বাধীনতার ৫১ বছর পর সেখানে বঙ্গবন্ধু কন্যার নির্দেশে আওয়ামী লীগের একটি অস্থায়ী কার্যালয় করে দিয়েছি। স্থায়ী কার্যালয় করার বিষয়েও কাজ এগিয়ে নিচ্ছি। এবারের জন্মদিনে এটাই হয়তো আমার কাছে নিজেকে দেয়া সেরা উপহার এটা। 

পরে ড. কাজী এরতেজা হাসান বঙ্গবন্ধুকে যারা সপরিবারে হত্যা করেছে তাদের দ্রুত দেশে ফিরিয়ে এনে বিচারের দাবি জানান। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার পথে যারা বাধা হয়ে দাঁড়াচ্ছেন, চক্রান্ত করছেন, তাদের আইনের আওতায় এনে কঠোর শাস্তিরও দাবি জানান ড. কাজী এরতেজা হাসান। তিনি আরো বলেন, আমার খুব দুঃখ লাগে যখন দেখি, শোকের এই মাসে এদেশের একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ভুয়া জন্মদিন পালন করে। এটা তার রাজনৈতিক দেউলিয়াত্বের পরিচয় বহন করে বলেও মনে করেন ড. কাজী এরতেজা হাসান। 

উল্লেখ্য, কীর্তিমান কলম সৈনিক ভোরের পাতা সম্পাদক ড. কাজী এরতেজা হাসান আজকের এই দিনে সাতক্ষীরার সুলতানপুরের কাজীপাড়ায় স্বনামধন্য কাজী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা মরহুম কাজী আবদুল মান্নান ও মা মিসেস আজিজা মান্নান, বড়ভাই কাজী হেদায়েত হোসেন (রাজ) সাবেক অকুতোভয় ছাত্রনেতা ও প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য। ছোট ভাই কাজী এহসান কাদির সাগরও ব্যবসায়ের সঙ্গে জড়িত। তিনিও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য।  দেশ ও মানুষের কল্যাণে তিনি দৈনিক ভোরের পাতা, দ্য ডেইলি পিপলস টাইম, পাক্ষিক অর্থপাতা, দৈনিক বণিক বাংলাদেশ, ডেইলি মর্নিং মিরর ও টিভি চ্যানেল জেড টিভি নিয়ে গড়ে তুলেছেন সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ। তিনি একাধারে ভোরের পাতা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ, কাজী গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ, বাজার ২৪, রূপান্তর ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের চেয়ারপারসন, এফবিসিসিআইয়ের পরিচালক, আজিজা মান্নান ফাউন্ডেশন, ইরান-বাংলাদেশ চেম্বারের প্রতিষ্ঠাকালীন সভাপতি ও বাংলাদেশ হিউম্যান রাইটস ডেভেলপমেন্ট কমিশনের চেয়ারপারসন, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় শিল্প-বাণিজ্য উপ-কমিটির সদস্য। মেধা ও সৃজনশীল সম্পাদনায় ইতোমধ্যেই তাঁর সম্পাদিত পত্রিকা পাঠক প্রিয়তা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। জনপ্রিয় দৈনিক ভোরের পাতা ও দ্য পিপলস টাইম ছড়িয়ে গেছে প্রতিটি জেলা-উপজেলা ও গ্রাম পর্যায়ে। 

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক সন্তানের জনক। তাঁর সন্তান কাজী জারজিস বিন এরতেজা ব্রিটিশ কাউন্সিলের অধীনে পড়ালেখা করছেন। তিনি তাঁর কাজের স্বীকৃতিস্বরূপ বঙ্গবন্ধু স্মৃতিপদক, শেখ রাসেল সম্মাননা, মহাত্মা গান্ধী অ্যাওয়ার্ড, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি সম্মাননা, অতীশ দীপঙ্কর স্বর্ণপদক, মাদার তেরেসা স্বর্ণপদক, নেলসন ম্যান্ডেলা পুরস্কার, মওলানা ভাসানী স্মৃতিপদক  ছাড়াও সম্প্রতি তিনি মানবাধিকার প্রতিষ্ঠান জাতিসংঘ থেকে ‘ডক্টর অব হিউম্যানিটি’ উপাধিতে ভূষিত হন। নিপীড়িত-নির্যাতিত গণমানুষের জন্য ড. কাজী এরতেজা হাসান সাহসী কলম সৈনিক। তাঁর জন্মদিনে ভোরের পাতা পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা জানাই প্রাণঢালা শুভেচ্ছা। আমরা তাঁর দীর্ঘায়ু কামনা করি। পাশাপাশি পরম করুণাময়ের কাছে প্রার্থনা করি, অতীতের মতো তিনি যেন আগামীতেও গণমানুষের পক্ষে থাকতে পারেন, আল্লাহ সেই তৌফিক তাঁকে দিন। আমিন।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/dd.jpg
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]