শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ৯ আশ্বিন ১৪২৯

শিরোনাম: জাতীয় নির্বাচন: ভোট দিতে লাগবে ১০ আঙ্গুলের ছাপ    করোনায় আর ৪ জনের মৃত্যু    বিদায়বেলায় অঝোরে কাঁদলেন ফেদেরার, অশ্রুসিক্ত নাদালও    তালাবদ্ধ ঘরে পড়েছিল বৃদ্ধ দম্পতির হাত-মুখ বাঁধা লাশ    জমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে ২ কৃষকের মৃত্যু    চলন্ত ট্রেনে উঠতে গিয়ে প্রাণ গেল বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের    পর্যটকদের জন্য দুয়ার খুললো ভুটান   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
বহু গুণে গুনান্বিত ডুমুর বিপন্ন প্রজাতির উদ্ভিদ
পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৯ জুলাই, ২০২২, ৭:৫৫ পিএম আপডেট: ১৯.০৭.২০২২ ৭:৫৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

বহু গুণে গুনান্বিত ডুমুর বিপন্ন প্রজাতির এ ভেজষ উদ্ভিদ। প্রাকৃতিভাবে উৎপাদিত ডুমুর গাছ। এই উদ্ভিদটি বিপন্ন প্রায়। ডুমুর ফল প্রায় সকলেরই চেনা। ডুমুর নরম ও মিষ্টিজাতীয় ফল। ফলের আবরণ ভাগ খুবই পাতলা এবং এর অভ্যন্তরে অনেক ছোট ছোট বীজ রয়েছে। বহু পুষ্টি গুণে গুনান্বিত ডুমুর ফল সবজি হিসাবে খাওয়া যায়। ডুমুর উচ্চমানের ভেষজ গুণসম্পন্ন ফল। কাঁচা ডুমুর ফল অতি উন্নত সবজি। শুধু ডুমুর বা অন্যান্য সবজির সঙ্গে মিলিয়ে ডুমুরভাজি অথবা এর ভর্তা ভীষণ উপাদেয় খাদ্য। বাংলাদেশে সচরাচর যে ডুমুর পাওয়া যায় ফল ছোট এবং খাওয়ার প্রায় অনুপযুক্ত। দেশে যেটি পাওয়া যায় সেটি গোলডুমুর নামে পরিচিত। এর আরেক নাম কাকডুমুর। ফল আকারে বেশ ছোট। এ গুলো মূলত পাখিরাই খেয়ে থাকে। বেশ কিছু অঞ্চলে এ ফল তরকারি হিসেবে খাওয়া হয়। তবে ডুমুর খুবই উপকারী। 

মূলত জবডুমুর তরকারি করে খাওয়াা হয়। ডুমুর হাটবাজারে কিনতে পাওয়া যায় খুব কম। এ ছাড়া ডুমুরের ফল সবজি হিসেবে এবং পাতা গোখাদ্য হিসেবে ব্যবহার করা হয়। ডুমুরগাছের পাতা শিং ও মাগুর মাছ পরিষ্কার করতে ব্যবহার করা হয়। শহর-নগর সর্বত্র ডুমুর পাওয়া যায় না। গ্রামগঞ্জে যেখানে-সেখানে ডুমুর গাছ দেখতে পাওয়া যায়। ডুমুর গাছ কেউ লাগায় না। প্রাকৃতিকভাবে উৎপাদিত হয়। দেশে দুই ধরনের ডুমুর দেখা যায়-গোল বা কাকডুমুর ও যজ্ঞডুমুর বা জবডুমুর। কাকডুমুরের পাতা বড়, লম্বা ও খসখসে হয়। এই ডুমুরের পাতা শিরিশ কাগজের মত খসখসে। আর যজ্ঞডুমুরের পাতা ছোট ও গোল। এই ফলের আকার কাকডুমুর-এর চাইতে বড়। এটি একটি জনপ্রিয় মিষ্টি ও রসালো ফল। ডুমুরের আরো অনেক প্রজাতি রয়েছে। ডুমুর মোরাসিয়া গোত্রভূক্ত ৮৫০টিরও অধিক কাঠজাতীয় গাছের প্রজাতি বিশেষ। উষ্ণ জলবায়ু অঞ্চলে এ প্রজাতির গাছ জন্মে। আমাদের দেশের রাজশাহী অ ল, খুলনা, সাতক্ষীরা, ফরিদপুর, পার্বত্য এলাকার খাগড়াছড়ি, রাঙামাটি, সিলেটের মৌলভীবাজার ও টাঙ্গাইলে ডুমুর তুলনামূলক বেশি জন্মে। দেশের অন্যত্রও বিক্ষিপ্তভাবে ডুমুরের গাছ দেখা যায়। গ্রামের বন-বাদাড়ে এই গাছ অযতেœ-অবহেলায় এখানে সেখানে ব্যাপক সংখ্যায় গজিয়ে ওঠে। গাছ তুলনামূলকভাবে ছোট। এটি এশিয়ার অনেক অঞ্চলে এবং অস্ট্রেলিয়ায় পাওয়া যায়। পাখিরাই প্রধানত এই ডুমুর খেয়ে থাকে এবং পাখির বিষ্ঠার মাধ্যমে বীজের বিস্তার হয়ে থাকে। এর আদি নিবাস ভারতীয় উপমহাদেশ, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, মালয়েশিয়া এবং অস্ট্রেলিয়া। এর ফল গাছের কান্ডে থোকায় থোকায় হয়। 

‘ডুমুরের ফুল’ না দেখলেও ডুমুর ফল সবাই দেখেছে। ডুমুরের ফুল দেখা যায় না। তাই ডুমুরের ফুল নিয়ে মানুষের কৌতুহলের শেষ নেই। ফলের ভিতরে ফুল হওয়া বৃক্ষের নাম ডুমুর। ফুলটি তাই দেখা যায় না। কিন্তু ফলের অন্তঃপুরে তার প্রকাশ ঘটে। ডুমুর খুবই উচ্চমানের ভেষজ গুণসম্পন্ন উদ্ভিদ। তাছাড়াও পাকা ডুমুর দিয়ে জ্যাম, জ্যালি, চাটনি ইত্যাদি তৈরি করে খাওয়া যায়। পাকা ডুমুর শুকিয়ে বিভিন্ন রকমের খাবারের উপাদান হিসাবে ব্যবহার করা যায়। কার্বোহাইড্রেট, সুগার, ফ্যাট, প্রোটিন, থায়ামিন, রিবোফ্লাবিন, ক্যালসিয়াম, আয়রণ ছাড়াও বিভিন্ন পুষ্টিগুণে ভরপুর এই ডুমুর। পুষ্টিগুণের পাশাপাশি ডুমুরের অনেক ঔষধী গুণও রয়েছে। বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় স্মরণাতীতকাল থেকে ডুমুরের পাতা, কাঁচা ও পাকা ফল, নির্যাস, বাকল, মূল প্রভৃতি কার্যকরভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। প্রতি ১০০ গ্রাম ডুমুরে খাদ্যশক্তি ৩৭ কিলোক্যালরি, ১২৬ মাইক্রোগ্রাম ক্যারোটিনসহ ভিটামিন এ, বি, সি ও অন্যান্য উপাদান রয়েছে। 

গুটিবসন্ত, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, কিডনি ও মূত্রসংক্রান্ত সমস্যা, স্নায়বিক দুর্বলতা, মস্তিষ্কের শক্তিবৃদ্ধি, সর্দি-কাশি, ফোড়া বা গ্রন্থস্ফীতি (টিউমার) ও হাড়ের গঠন মজবুত করা, উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করাও পটাশিয়াম সমৃদ্ধ ডুমুরের অন্যতম বৈশিষ্ট্য। মধ্যপ্রাচ্যে যে ডুমুর (আঞ্জির) পাওয়া যায় তার ফল বড় আকারের। এটি জনপ্রিয় ফল হিসেবে খাওয়া হয়। বাণিজ্যিকভাবে এর চাষ হয়ে থাকে আফগানিস্তান থেকে পর্তুগাল পর্যন্ত। হিন্দি, উর্দু, ফার্সি ও মারাঠি ভাষায় একে ‘আঞ্জির’ বলা হয়। এর আরবি নাম ‘ত্বীন’। এই গাছ ৬ মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। এর আদি নিবাস মধ্যপ্রাচ্য। আঞ্জির হচ্ছে ডুমুর জাতীয় এক ধরনের ফল। বর্তমানে এটি বাংলাদেশ সহ বিভিন্ন দেশে অত্যন্ত লাভজনকভাবে চাষ করা হচ্ছে। খুলনার পাইকগাছায় প্রচুর পরিমাণে ডুমুর গাছ জন্মে। তবে অবহেলা অনাদরে কিছু গাছ বেচে যায় আর বাগানী গাছ বলে কেটে ফেলা হয় গোখাদ্য হিসাবে। 
পাইকগাছায় কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ডুমুরের রয়েছে অনেক স্বাস্থ্য উপকারিতা। তরকারি হিসাবে এলাকায় ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। কৃষকদের উচ্চমানের ভেষজ গুণসম্পন্ন উদ্ভিদ ডুমুর গাছ সংরক্ষণ করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]