শনিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২ ৯ আশ্বিন ১৪২৯

শিরোনাম: জাতীয় নির্বাচন: ভোট দিতে লাগবে ১০ আঙ্গুলের ছাপ    করোনায় আর ৪ জনের মৃত্যু    বিদায়বেলায় অঝোরে কাঁদলেন ফেদেরার, অশ্রুসিক্ত নাদালও    তালাবদ্ধ ঘরে পড়েছিল বৃদ্ধ দম্পতির হাত-মুখ বাঁধা লাশ    জমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে ২ কৃষকের মৃত্যু    চলন্ত ট্রেনে উঠতে গিয়ে প্রাণ গেল বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের    পর্যটকদের জন্য দুয়ার খুললো ভুটান   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
মায়মুনা টাওয়ারের ডেভেলোপার ও ভূমি মালিকের খুঁটির জোর কোথায়?
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০২২, ৭:৪৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

রাজধানীর উত্তরার সন্নিকটে তুরাগ থানার অন্তর্ভূক্ত বাউনিয়ার বাদালদি এলাকায় ভূমি মালিক ও ভবনের ডেভোলপার কোম্পানীর চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টরের যোগসাজশে বহুদিন যাবৎ অনিয়ম ও সন্ত্রাসী কার্যকলাপে লিপ্ত রয়েছেন ও ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে জিম্মী করে রেখেছেন মায়মুনা টাওয়ারে বসবাসকারী অন্যান্য ফ্লাট মালিকদের। নিজের সঞ্চিত অর্থ-বিনিয়োগে ফ্ল্যাট ক্রয় যেন আজ একটি অভিশাপে পরিণত হয়েছে তাদের। এমনই তথ্য চিত্র কিছুদিন আগেই বিভিন্ন গণমাধ্যমে উঠে আসে। কিন্তু এরপরেও খান্ত হয়নি ভূমির মালিক আবুল কালাম। ফ্ল্যাটের মালিকদের অভিযোগ এখনও তারা জিম্মি হয়ে আছে  ভূমির মালিক আবুল কালাম, ন্যাচারাল ডিজাইন এন্ড ডেভালপার লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোঃদেলোয়ার হোসেন, ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মোঃ আনোয়ার হোসেনের কাছে। 

জীবনের ক্রান্তি লগ্নে অধিকাংশ ফ্ল্যাট মালিক ফ্ল্যাট কিনে সুখে-শান্তিতে বাস করার যে আশা করেছিলেন, সেই আশা যেন আজ নিরাশা আর নৈরাজ্যে পরিণত হয়েছে এবং তা ভূমির মালিক আবুল কালামের জন্য বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

কিছুদিন আগে দেশের জাতীয় গণমাধ্যমগুলোতে “ডেভোলপার ও ভূমি মালিকের ত্রাসের রাজত্ব, নাকাল ফ্ল্যাট মালিকরা” এমন শিরোনামে সংবাদ মাধ্যমে মায়মুনা টাওয়ারে ভূমির মালিক আবুল কালাম, ন্যাচারাল ডিজাইন এন্ড ডেভালপার লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোঃদেলোয়ার হোসেন, ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মোঃ আনোয়ার হোসেন এক সাথে মিলিত হয়ে ন্যাচারাল মায়মুনা টাওয়ারে যে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড, অনিয়ম ও দুর্নীতি চালিয়ে যাচ্ছেন ফ্ল্যাটের মালিকদের অভিযোগে সেসব তথ্যচিত্র উঠে  আসে। 

সংবাদ মাধ্যমে বেরিয়ে আসে আবুল কালাম শুরু থেকেই ফ্ল্যাট মালিকদের বশে রাখার জন্য বিভিন্ন অন্যায় আবদার ও অনিয়ম তৈরী করে তাদের চাপে রাখতেন। তার কথার বরখেলাপ কেউ করলে তার গায়ে হাত তোলার জন্যও উদ্ধত হতেন। মানসম্মানের ভয়ে তাকে কেউ ঘাটতে চাইত না শুরুতে। কিন্তু একটা পর্যায়ে তার অন্যায়-অবিচার ও কারচুপি মাত্রাতিরিক্ত পর্যায়ে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। এসব বিষয়ে মায়মুনা ন্যাচারাল ফ্ল্যাট ওনার্স এসোসিয়েশনের পক্ষ থেকে ডেভোলপার কোম্পানীর চেয়ারম্যান মোঃ দেলোয়ার হোসেন ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর মো. আনোয়ার হোসেনকে অবগত করলে তারা এ বিষয়ে কর্ণপাত করেননি।



ফ্ল্যাট ক্রয়ের সময় ক্রেতাদের বলা হয়েছিল তিতাস গ্যাস সরবরাহের অনুমোদন আছে। দুই বছর যাবৎ গ্যাস সরবরাহ থাকলেও হঠাৎ কোন এক অজানা কারণে মায়মুনা টাওয়ারের ফ্ল্যাট মালিকরা গ্যাস ব্যবহার করতে পারছেন না এবং তাদেরকে সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহারের জন্য বাধ্য করানো হচ্ছে। এ বিষয়ে ফ্ল্যাট মালিকরা ডেভেলপার কিংবা ভূমি মালিকের কাছ থেকে কোন প্রকার সদুত্তর পাচ্ছেন না। আবুল কালাম এই আবাসিক ভবনের নীচতলায় অপরিকল্পিত দোকান ও ফ্ল্যাটনির্মাণ করেন যা কিনা আইনের পরিপন্থী।

আবুল কালাম ও ডেভোলপার কোম্পানীর আরেকটি বড় জালিয়াতি ধরা পড়ে রাজউক অনুমোদিত নকশাকে ব্যতিরেকে আইনের অপপ্রয়োগ করে প্রতিটি ফ্লোরে ২৭০০ স্কয়ার ফিটের অনুমোদন থাকলেও তৈরি করে ৪৬০০স্কয়ারফিট, যা প্রায় ৫০ শতাংশ ভায়োলেশনআবুল কালাম ও ডেভেলপার দেলোয়ার এভাবেই আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখাচ্ছে।

ফ্ল্যাট মালিকরা অভিযোগ করে বলেন, এই ভবনের চাদের দুই তৃতীয়াংশ ব্যবহার করে আবুল কালাম ও ডেভোলপার যোগসাজশে নিজস্বার্থ হাসিলের জন্য একটি ফ্ল্যাট নির্মাণ করেন। অথচ রাজউক এই ভবনকে ৯ তলার অনুমোদন দিলেও কার্যতঃ এটি এখন সাড়ে নয়তলার ভবন যা সম্পূর্ণভাবে ভূমি মালিক সন্ত্রাসী আবুল কালাম ও তার মদদপুষ্ট ডেভোলপার কোম্পানীর শাস্তিযোগ্য অপরাধ বলে বিবেচিত। কোন নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে আইন ভঙ্গ করে অন্যায় করে যাচ্ছেন একের পর এক। বাড়তি টাকার লোভে ফ্ল্যাট ওনার্স এসোসিয়েশনের সাথে কোন প্রকার আলোচনা না করে বেইজমেন্টে বহিরাগতদের মোটরসাইকেল পার্কিং ভাড়া দেয়। এসব বহিরাগতদের বেশির ভাগই মাদকাসক্ত ও মাদক ব্যবসায়ের সাথে জড়িত। ইতিপূর্বে, পুলিশ বেশ কিছু মোটর সাইকেল থেকে মাদকজব্দ করে এ ব্যাপারে তুরাগ থানায় মামলা চলমান। ন্যাচারাল মায়মুনা টাওয়ার একটি আবাসিক ভবন হওয়া সত্ত্বেও ভূমি মালিক ডেভোলপার কোম্পানির যোগসাজশে দোকান ও গোডাউন ভাড়া দিয়ে ব্যবসায়িক ফায়দা লুটছে। তার এসব দুর্নীতির তথ্য গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়। এরপরও আইনী কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি। ভূমির মালিকসহ  অভিযুক্তরা দিব্বি ঘুরে বেড়াচ্ছে। তাহলে তাদের খুঁটির জোর কোথাই? আমরা কি কোন আইনী সহযোগিতা পাব না?

এসব অভিযোগের ভিত্তিতে ভূমি মালিক আবুল কালাম, ডেভোলপার কোম্পানীর চেয়ারম্যান মোঃদেলোয়ার হোসেন ও এমডি মো. আনোয়ার হোসেনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তারা এ বিষয়ে কথা বলতে অস্বীকৃতি জানান।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]