শুক্রবার ১২ আগস্ট ২০২২ ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯

শিরোনাম: ক্রিকেট নাকি বেটিং, সাকিবকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে: পাপন    জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে মন্ত্রণালয়কে বিস্তারিত ব্যাখ্যার নির্দেশ    ডলারের কারণে ভোজ্যতেলের দামে সুফল পাওয়া যাচ্ছে না: বাণিজ্যমন্ত্রী    রাজধানীতে হোটেলে মিলল নারী চিকিৎসকের গলাকাটা লাশ    সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের টাকা সম্পর্কে সরকার কেন তথ্য চায়নি: হাইকোর্ট    জম্মু-কাশ্মীরে সেনা ক্যাম্পে হামলা, ৩ সেনাসহ নিহত ৫    বিশ্বব্যাপী বেড়েছে মৃত্যু-শনাক্ত   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
হারিয়ে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী মোড়া
মো: অমিত খাঁন, শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ১৪ জুন, ২০২২, ৫:১৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

আধুনিকতার ছোঁয়ায় গ্রামীণ বাংলার হস্তশিল্প কারুকাজ সম্পন্ন ঐতিহ্যবাহী মোড়া হারিয়ে যাচ্ছে। গ্রাম-বাংলার ধনী গরীব সকল শ্রেণি পেশাজীবি মানুষের বাসাবাড়ি কিংবা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে মোড়ার ব্যবহার হতো। এখন আধুনিকতার ছোঁয়ায় এ হস্তশিল্পের পাশাপাশি বাঁশ, বেত ও প্লাস্টিক নকশার আদলে তৈরীকৃত মোড়া তৈরীর কারিগররাও হারিয়ে যাচ্ছে। 

এক সময় এ অঞ্চলের বিভিন্ন বাড়িতে হস্তশিল্প হিসেবে সাংসারিক কাজেকর্মে ব্যবহার যোগ্য নানা ধরনের বাঁশ ও বেত সামগ্রী তৈরীর কাজ করা হতো। কালের বিবর্তণে এসব হস্তসামগ্রী তৈরীর দৃশ্য সচারাচর আর চোখে পড়ে না। 

খোঁজ খবর নিয়ে জানা যায়, শ্রীনগর উপজেলার তন্তর ইউনিয়নের কাননীসার গ্রামে বসবাসকারী পরিবার বাঁশ ও বেতের বিভিন্ন সামগ্রী তৈরীর মাধ্যমে হস্তশিল্পটি ধরে রেখেছেন। পরিবাররের নারী ও পুরুষ সদস্যরা মোড়া, দাড়ি পালা, ঢোলাসহ নানা সামগ্রী তৈরী করছেন। বিভিন্ন হাটবাজারে বাঁশের শলাকা,  বেত ও প্লাস্টিকের ফিতার আবরণে তৈরী প্রতিটি মোড়া আকার ভেদে বিক্রি করা হচ্ছে ২৫০ টাকা থেকে ৫০০ টাকা করে। এছাড়া মাঝে মধ্যে মানুষের বাড়িতে বাড়িতে ফেরি করেও ঐতিহ্যবাহী এসব মোড়া ও হস্তশিল্পের নানা ধরনের সামগ্রী বিক্রি করতে দেখা যায়। 

কাননীসার গ্রামের বাসিন্দা রমেন চন্দ্র দাস (৬২) বলেন, আধুনিক প্লাস্টিক ও স্ট্রীলের চেয়ারের যুগে ঐতিহ্যবাহী মোড়া তলানিতে যাচ্ছে। গ্রামেও লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। তাই আগের মত মোড়ার বিকিকিনি হচ্ছে না। গড়ে প্রতিমাসে ৪০ থেকে ৫০টি মোড়া বিক্রি করতে পারছি। এক সময় মোড়ার জন্য অর্ডার আসতো। দিন রাত সমান তালে পরিবারের সবাইকে কাজ করতে হতো। এ কাজে বিভিন্ন উপকরণ সামগ্রীর দাম অনেকাংশে বৃদ্ধি পাওয়ায় হস্তশিল্প সামগ্রী তৈরীতে প্রভাব পরেছে। বিক্রি করে ন্যার্য মূল্য পাওয়া যাচ্ছেনা। বাধ্য হয়েই জীবন জীবিকায় পেশাটি ধরে রাখার চেষ্টা করছি।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]