রোববার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১০ আশ্বিন ১৪২৯

শিরোনাম: অপার সম্ভাবনার বাংলাদেশ গড়েছেন শেখ হাসিনা    জাতীয় নির্বাচন: ভোট দিতে লাগবে ১০ আঙ্গুলের ছাপ    করোনায় আর ৪ জনের মৃত্যু    বিদায়বেলায় অঝোরে কাঁদলেন ফেদেরার, অশ্রুসিক্ত নাদালও    তালাবদ্ধ ঘরে পড়েছিল বৃদ্ধ দম্পতির হাত-মুখ বাঁধা লাশ    জমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাতে ২ কৃষকের মৃত্যু    চলন্ত ট্রেনে উঠতে গিয়ে প্রাণ গেল বিশ্ববিদ্যালয়ছাত্রের   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
নিজস্ব অর্থায়নে সাতক্ষীরা জেলা আ. লীগের কার্যালয় করে দিলেন ড. কাজী এরতেজা হাসান
নিজস্ব প্রতিনিধি, সাতক্ষীরা
প্রকাশ: রোববার, ১২ জুন, ২০২২, ৫:৪৩ পিএম আপডেট: ১২.০৬.২০২২ ৬:০৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

নিজেকে শেখ হাসিনার কর্মী পরিচয় দিতেই পছন্দ করেন তিনি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শিক সন্তান হিসাবে ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের ইতিহাস’ নামক বইয়ে বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার পর মহামান্য হাইকোর্টে রিট আবেদন করে জয়ীও হয়েছেন। বিএনপি-জামায়াতের আমলে তার সম্পাদিত পত্রিকায় সরকারি বিজ্ঞাপন পর্যন্ত বন্ধ করা হয়েছিল। কিন্তু কখনোই তিনি বঙ্গবন্ধু এবং শেখ হাসিনার প্রশ্নে আপস করেননি। একজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী হয়ে টানা তিনবার এফবিসিসিআইর পরিচালক হয়েও নিজ জন্মস্থান সাতক্ষীরাকে ভুলে যাননি। তাই তো এবার নিজস্ব অর্থায়নে সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় করে দিয়েছেন তিনি। স্বাধীনতার ৫১ বছর পেরিয়ে গেলেও এত দিন জেলা আওয়ামী লীগের কোনো দলীয় কার্যালয় ছিল না। তবে তার হাত ধরেই সেটির অবসান হলো রোববার। 

বলছিলাম, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের অন্যতম সহসভাপতি, দৈনিক ভোরের পাতা ও দ্য ডেইলি পিপলস টাইমস সম্পাদক ও প্রকাশক, এফবিসিসিআই পরিচালক ড. কাজী এরতেজা হাসানের কথা। একসময় ‘মিনি পাকিস্তান’ খ্যাত সাতক্ষীরায় যে গুটিকয়েক পরিবার বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে যুগের পর যুগ নানা ঘাত-প্রতিঘাতের মাঝেও বন্ধুর পথ পেরিয়ে আওয়ামী লীগের ঝাণ্ডা হাতে এগিয়ে গেছে, তাদের মধ্যে অন্যতম শহরের সুলতানপুরের ড. কাজী এরতেজা হাসানের পরিবার। বাবা-মায়ের পদাঙ্ক অনুসরণ করে তার দুই সহোদর, বড় ভাই কাজী হেদায়েত হোসেন রাজ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক উপ কমিটির সদস্য, স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের ছাত্রনেতা এবং ছোট ভাই কাজী এহসান কাদিরও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক উপকমিটির সদস্য। 
সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে উদ্বোধনী বক্তব্য দিচ্ছেন ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি

সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে উদ্বোধনী বক্তব্য দিচ্ছেন ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের স্থায়ী কার্যালয় নিজ খরচে নির্মাণ করে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি ইতোমধ্যেই দিয়েছিলেন দলের জেলা শাখার অন্যতম সহ-সভাপতি ড. কাজী এরতেজা হাসান, সিআইপি। তবে এর আগেই তিনি বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তার সুযোগ্য কন্যা, আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি আনুগত্যের প্রকাশ-স্বরূপ প্রায় ২ হাজার বর্গফুটের ওপর নিজ খরচে (স্থায়ী কার্যালয় না হওয়া পর্যন্ত) অত্যাধুনিক অঙ্গসজ্জায় সজ্জিত একটি অস্থায়ী কার্যালয় নির্মাণ করে দিলেন।

সাতক্ষীরা জেলা শহরের সুলতানপুর বড়বাজার সড়কের ডে-নাইট কলেজ মোড়ে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়টি আজ রোববার (১২ জুন) দুপুর ১২টায় প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি হিসেবে শতাধিক নেতা-কর্মীদের উপস্থিতিতে আলোচনা সভা, দোয়া মোনাজাত ও কেক কাটার মাধ্যমে কার্যালয় উদ্বোধন করেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ একে ফজলুল হক ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ মো. নজরুল ইসলাম। নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে সাড়ম্বর এক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সুনিপুণ সঞ্চালনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানটি প্রাণবন্ত করে তোলেন জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক শেখ হারুন উর রশিদ।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবু আহমেদ, সহসভাপতি শাহানা মহিদ বুলু, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক লাইলা পারভীন সেঁজুতি, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক শেখ এজাজ আহমেদ স্বপন, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক শামীমা পারভীন রত্না, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক ডা. সুব্রত কুমার ঘোষ, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আখতার হোসেন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক আফসার আলী বাবলু, ক্রীড়া সম্পাদক আব্দুল কাদের, সদস্য মাহফুজা রুবি, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুর রশিদ। 
সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব মো: নজরুল ইসলাম

সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ্ব মো: নজরুল ইসলাম

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক শরিফুল ইসলাম খান বাবু, যুগ্ম আহ্বায়ক এহসান হাবিব অয়ন, পৌর যুবলীগের সভাপতি মনোয়ার হোসেন অনু, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মীর মোস্তাক আলী, মাহবুর রহিম চঞ্চল, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতা আসিফ শাহাবাজ খান, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আশিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সুমন হোসেন, শেখ জুবায়ের আল জামান, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা জাহাঙ্গীর কবির বিরাজ, শেখ এজাজ উদ্দীন তাপস, জি এম সামিউল ইসলাম রাব্বি, ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মুশফিকুর রহমান মিল্টন, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কাজী নজরুল ইসলাম বাবু, রবিউল ইসলাম, যুবলীগ নেতা এস এম তুহিনুর রহমান তুহিন, জি এম আহসান, কাজী সাইদ হাসান দোলন, মনিরুল ইসলাম ফুলবাবু, শেখ শাহাজান কবীর সাজু, নাসির রহমতুল্লাহ প্রমুখ।

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের শিল্প-ও বাণিজ্য বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য, দৈনিক ভোরের পাতা, দ্য পিপলস টাইম পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক এবং এফবিসিসিআইর পরিচালক- ড. এরতেজা হাসানের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মী-সমর্থকরা। এছাড়া আওয়ামী লীগের অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এই মহতী উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান এবং তারা কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ মো: আবু আহমেদ

সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অস্থায়ী কার্যালয়ে বক্তব্য দিচ্ছেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ মো: আবু আহমেদ

জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয় উদ্বোধন শেষে ড. এরতেজা হাসান সাংবাদিকদের জানান, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের নিজস্ব কার্যালয় নিজ খরচে নির্মাণ করে দেওয়ার উদ্যোগও অনেকখানি এগিয়েছে। স্থায়ী কার্যালয় স্থাপনের জন্য জমি চেয়ে নিজ স্বাক্ষরিত এ-সংক্রান্ত একটি লিখিত আবেদন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক বরাবর দাখিল করেছেন। জেলা প্রশাসন থেকে এ ব্যাপারে আন্তরিক সহযোগিতার আশ্বাসও মিলেছে। জমি পাওয়ার পরপরই সেখানে পরিকল্পনা অনুযায়ী স্থায়ী কার্যালয় নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হবে বলে তিনি জানান। সেই আবেদনে জোর সুপারিশ করেছেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ এ কে ফজলুল হক এবং জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের প্রশাসক আলহাজ মো. নজরুল ইসলাম।
সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অত্যাধুনিক অঙ্গসজ্জায় সজ্জিত অস্থায়ী কার্যালয়

সাতক্ষীরা জেলা শহরে নবপ্রতিষ্ঠিত অত্যাধুনিক অঙ্গসজ্জায় সজ্জিত অস্থায়ী কার্যালয়

তিনি আরো বলেন, আওয়ামী লীগ আমার অস্তিত্বে মিশে আছে। আমার নেত্রী শেখ হাসিনা অবশ্যই দ্বাদশ নির্বাচনের আগে সাতক্ষীরায় একবারের জন্য হলেও আসবেন বলে বিশ্বাস করি। তখন তিনি যদি শোনেন জেলায় দলীয় কার্যালয় নেই, তাহলে তিনি কষ্ট পেতে পারেন। তাই নেত্রীর জন্য হলেও আমরা স্থায়ী কার্যালয় করব, ইনশাআল্লাহ। 



এর আগে গত বছরের ১১ নভেম্বর সাতক্ষীরা জেলা শহরের কামালনগরে তুফান কনভেনশন সেন্টারের যমুনা হলে সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের নির্বাহী কমিটির প্রথম পরিচিতি সভায় এই সাহসী ঘোষণা দিয়েছিলেন ড. কাজী এরতেজা হাসান।

তারই অংশ হিসেবে জেলা প্রশাসক, সাতক্ষীরা বরাবর দেওয়া আবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে সাতক্ষীরা শহরে জেলা আওয়ামী লীগের নিজস্ব কোনো স্থায়ী কার্যালয় নেই। বর্তমানে সাতক্ষীরা জেলায় একটি স্থায়ী কার্যালয় নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে সাতক্ষীরা পৌরসভা এলাকায় জমিও খুঁজে বের করা হয়েছে। 

গত নভেম্বরে সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সাবেক সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা একে ফজলুল হকের সভাপতিত্বে নির্বাহী কমিটির সেই সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ. ফ. ম রুহুল হক এমপি। বিশেষ অতিথি ছিলেন সাতক্ষীরা-২ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি। প্রধান বক্তা ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো. নজরুল ইসলাম। সম্মানিত অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য এস এম জগলুল হায়দার।

সেই অনুষ্ঠান শেষে স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে আলাপকালে ড. কাজী এরতেজা হাসান বলেছিলেন, ‘সাতক্ষীরা আওয়ামী লীগের নিজস্ব কোনো ভবন বা কার্যালয় নেই। এটা সত্যিই বেদনার। আমি নিজে দায়িত্ব নিয়ে দলীয় স্থায়ী কার্যালয় করার জন্য সব খরচ বহন করব। কেননা ৫০ বছরেও সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের নিজস্ব কার্যালয় না থাকাটা আমাকে পীড়া দিয়েছে। জামায়াত-বিএনপির আখড়া খ্যাত সাতক্ষীরাকে শেখ হাসিনার ঘাঁটিতে পরিণত করতে আমাদের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। কেননা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শিক কর্মী হিসাবে এবং জেলা আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল নেতা হিসাবে আমার দায় রয়েছে। এ কারণেই নিজস্ব কার্যালয় স্থাপনের মাধ্যমে প্রথম ধাপে জেলা আওয়ামী লীগকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই।’

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]