মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ ৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯

শিরোনাম: শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ    গম রপ্তানিতে ভারতের নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের জন্য নয়    টাকার মান আরও ৮০ পয়সা কমলো    পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়-ইউজিসি পেল সাড়ে ১০ হাজার কোটি টাকার বাজেট    বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট: ৩ বছরে আয় ৩০০ কোটি ছাড়িয়েছে    ফখরুল সাহেব বিশ্বচোরের মুখপাত্র: তথ্যমন্ত্রী    সাতক্ষীরা আওয়ামী লীগ গোছানোর নতুন দায়িত্বে ড. এরতেজা হাসান   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
‘নাম টিউলিপ হওয়ায় কম্পিউটার কেনেননি খালেদা জিয়া’
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২২, ৩:৪১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

শেখ রেহেনার মেয়ের নামে নাম হওয়ায় নেদারল্যান্ডসের টিউলিপ কোম্পানি থেকে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া ১০ হাজার কম্পিউটার কেনেননি বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আজ বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালে নবনির্মিত জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এসব কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, আমরা '৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষায় গুরুত্বারোপ করি। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিই, প্রযুক্তি শিক্ষার ব্যবস্থা করি এবং সস্তায় কেনার জন্য কম্পিউটার ও এর বিভিন্ন যন্ত্রাংশের ওপর থেকে শূল্ক কমিয়ে দিই, শিক্ষার্থীদের কম্পিউটার প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করি। 

‘সেই সঙ্গে আমরা আরেকটি উদ্যোগ নিয়েছিলাম যে, বিভিন্ন স্কুলে আমরা কম্পিউটার দেব। শিক্ষার্থীরা কম্পিউটার শিখবে। এ জন্য বিভিন্ন কম্পিউটার সংগ্রহ করি। পরে ১০ হাজার কম্পিউটার কেনার একটি প্রকল্প হাতে নিই। কম্পিউটার কেনার জন্য তখন নেদারল্যান্ডসের সরকার একটা প্রস্তাব দিয়েছিল যে, তারা অর্ধেক খরচ দেবে, আমরা দেব বাকিটা। শর্ত হচ্ছে— কম্পিউটার কিনতে হবে নেদারল্যান্ডসের কোম্পানি থেকে। আমরা এতে রাজি হয়ে যাই।’  

শেখ হাসিনা বলেন, দুর্ভাগ্যের বিষয় হচ্ছে— নেদারল্যান্ডসের একটি ফুলের নাম টিউলিপ আপনারা জানেন। তাদের কম্পিউটার প্রতিষ্ঠানের নামও টিউলিপ নামে। আমাদের অতি জ্ঞানী তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে কে জানি বোঝায় যে, শেখ রেহেনার মেয়ের নাম টিউলিপ। কাজেই নেদারল্যান্ডসের সেই কোম্পানিটিও টিউলিপের নামে। কাজেই সেখান থেকে কম্পিউটার নেওয়া যাবে না। তাই উনি নেদারল্যান্ডস থেকে কম্পিউটার আনার বিষয়টি বাতিল করে দেন। ফলে নেদারল্যান্ডসের সেই কোম্পানি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে মামলা করে। এ মামলা পরিচালনা করতে আইনজীবী নিয়োগ করতে হয়। এতে অনেক খরচ হয়। বাংলাদেশ একটি শাস্তি পায়। প্রায় ৬০ কোটি টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হয়। ১০ হাজার কম্পিউটার তো গেলই, উল্টো আরও ৬০ কোটি টাকা দিতে হলে দেশের সরকার প্রধানের সিদ্ধান্তে।
 
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ ধরনের সরকার প্রধান থাকলে দেশের উন্নতি কীভাবে হবে আপনারাই ভালো জানেন। পরে আমরা ক্ষমতায় এসে অ্যানালগ টেলিফোনগুলো ডিজিটাল করে দিই। দেশে তখন একটা মাত্র মোবাইল ফোন কোম্পানি সেটিও খালেদা জিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোরশেদ খানের। এক একটা ফোনসেটের দাম ছিল ১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। ফোন করলেও প্রতি মিনিটে ১০ টাকা, ধরলেও ১০ টাকা। আমি '৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে এটি বেসরকারি খাতে ছেড়ে দিই। ফলে প্রতিযোগিতা সৃষ্টি হয়। দাম কমে এবং সারা দেশের টেলিযোগাযোগকে আমরা ডিজিটাল করি। সেই সঙ্গে স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ উৎক্ষেপণের উদ্যোগে নিই।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘১৯৯১ সালে যারা ক্ষমতায় ছিল, তাদের কাছে আন্তর্জাতিকভাবে প্রযুক্তি ব্যবহারের একটা সুযোগ আসে। তখন বিনামূল্যে সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হওয়ার জন্য বাংলাদেশকে অফার দেওয়া হয়েছিল। দক্ষিণপূর্ব এশিয়া, মধ্যপ্রাচ্য ও পশ্চিম ইউরোপ— এই তিন অঞ্চলকে সাবমেরিন ক্যাবল লাইনে যুক্ত করার সুযোগ আসে। আমাদের দুর্ভাগ্য তখন বিএনপি সরকার ক্ষমতায়, খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী।  তিনি বলে দিলেন, সাবমেরিন ক্যাবল লাইনে যুক্ত হওয়া যাবে না, যুক্ত হলে বাংলাদেশের সব তথ্য বিদেশিদের হাতে চলে যাবে। ফলে প্রযুক্তি শিক্ষার সুযোগ এবং এ থেকে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সম্ভাবনাটুকু নষ্ট হয়ে যায়।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের দেশীয় সম্পদ যা আছে, অনেক অমূল্য সম্পদ রয়ে গেছে যা আমরা এখনও ব্যবহার করতে পারিনি বা ধরা-ছোঁয়ার বাইরে, সেগুলোও আমাদের খুঁজে বের করতে হবে। এর ওপর গবেষণা করে সেগুলোও যাতে দেশের মানুষের কাজে লাগানো যায় সে বিষয়ে আমাদের বিশেষভাবে দৃষ্টি দিতে হবে।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘স্বাস্থ্য বা খাদ্য উৎপাদন অথবা ইঞ্জিনিয়ারিং বা অবকাঠামো উন্নয়নের প্রতিটি ক্ষেত্রেই গবেষণা প্রয়োজন। আসলে গবেষণা ছাড়া উৎকর্ষ সাধন হয় না। আর টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে গেলে গবেষণা একান্তভাবে দরকার। সেজন্য গবেষণার দিকে নজর দেওয়া দরকার। আর সারাবিশ্বে প্রযুক্তি ব্যবহারের যে প্রভাব বেড়েছে সেই প্রযুক্তির সাথে তাল মিলিয়ে চলতে গেলে আমাদেরকেও গবেষণায় সবসময় নজর দিতে হবে।’



বিজ্ঞান ও উন্নত প্রযুক্তির এই যুগে যেসব দেশ বৈজ্ঞানিক গবেষণায় এগিয়ে যাচ্ছে, তারাই অর্থনৈতিকভাবে দ্রুত উন্নতি করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী আমাদের স্বাস্থ্য খাতের গবেষণায় পিছিয়ে থাকার বিষয়টিও উল্লেখ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘অন্যান্য গবেষণায় এগিয়ে গেলেও আমাদের দেশ স্বাস্থ্যবিষয়ক গবেষণায় পিছিয়ে রয়েছে এবং স্বাস্থ্যবিষয়ক গবেষণা কম হচ্ছে।’ এ জন্য চিকিৎসকদের অনেককেই রোগীর সেবার পর আর গবেষণায় যুক্ত হতে না পারার প্রসঙ্গও তিনি উল্লেখ করেন। তার সরকার স্বাস্থ্য বিষয়ে গবেষণা বৃদ্ধিতে পদক্ষেপ নিচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের মহাপরিচালক মুহাম্মাদ মুনীর চৌধুরী স্বাগত বক্তৃতা করেন।

অনুষ্ঠানে নবনির্মিত ‘জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি কমপ্লেক্স’এর ওপর একটি ভিডিওচিত্র প্রদর্শিত হয়।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://dailyvorerpata.com/ad/apon.jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ


সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
সাউথ ওয়েস্টার্ন মিডিয়া গ্রুপ


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম


©ডেইলি ভোরের পাতা ডটকম

বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৪১০১০০৮৭, ৪১০১০০৮৬, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৪১০১০০৮৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৪১০১০০৮৫
অনলাইন ইমেইল: [email protected] বার্তা ইমেইল:[email protected] বিজ্ঞাপন ইমেইল:[email protected]