সোমবার ১৭ জানুয়ারি ২০২২ ২ মাঘ ১৪২৮

শিরোনাম: ‘এ জয় শেখ হাসিনার, আইভীর ও নারায়ণগঞ্জবাসীর’    ইভিএম চুরির বাক্স, ফলাফল কোনোভাবে মেনে নিতে পারি না: তৈমুর    শাবিপ্রবি বন্ধ ঘোষণা, সেই প্রভোস্টের পদত্যাগ    টাঙ্গাইল-৭ আসনের উপনির্বাচনে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী    আইভীর হ্যাটট্রিক জয়     শাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের ওপর লাঠিচার্জ-সাউন্ড গ্রেনেড হামলা, আহত ৩০    নাসিকে ৫০ শতাংশ ভোট পড়েছে: ইসি সচিব   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
এখানে অজুহাত দেওয়ার কিছু নেই: মুমিনুল
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রকাশ: বুধবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০২১, ৮:৪১ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

বৃষ্টি বিঘ্নিত ঢাকা টেস্টে পাকিস্তানের কাছে ইনিংস ব্যবধানে হেরে লজ্জার ইতিহাস গড়লো বাংলাদেশ। প্রথম ইনিংসে ৩০০ রানে ইনিংস ঘোষণা করা পাকিস্তানের বিপক্ষে ব্যাট হাতে দাঁড়াতেই পারেনি স্বাগতিকরা। প্রথম ইনিংসে ৮৭ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর দ্বিতীয় ইনিংসে ২০৫ করে বাংলাদেশ। ফলে ইনিংস এবং ৮ রানে হারের স্বাদ পায় মুমিনুলরা। দিনের ৫ দশমিক ২ ওভার বাকি থাকতেই তাদের গুটিয়ে দিয়ে চট্টগ্রামের পর ঢাকা টেস্টেও জয়োল্লাসে মেতে ওঠে সফরকারীরা।



বুধবার (০৮ ডিসেম্বর) মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টেস্টের শেষ দিনে আর মাত্র ৫.২ ওভার উইকেট থাকতে পারলেই ম্যাচটি ড্র করা যেতো। অথচ বৃষ্টি ও বাজে আবহাওয়া কারণে প্রায় আড়াই দিনই খেলা হয়নি। এই হারের ফলে দুই ম্যাচ সিরিজে হোয়াইটওয়াশও হলো বাংলাদেশ।

শেষ দিন বাংলাদেশের ৩ সিনিয়র ক্রিকেটার মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস ও সাকিব আল হাসান কিছুটা হাল ধরেন। তবে লজ্জার হার এড়াতে এই দৃঢ়তাও যথেষ্ট ছিলো না। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে আসা বাংলাদেশ অধিনায়ক মুমিনুল হক দলের এমন হারে হতাশা প্রকাশ করেন। যদিও তিনি নিজেই দুই ইনিংসে যথাক্রমে ১ ও ৭ রান করেন।

মুমিনুল বলেন, আমার কাছে মনে হয় পুরো হতাশার। বিশেষ করে ১-৪ ব্যাটাররা, মানে এক কথাল বলবো খুবই বাজে দিন ছিলো গতকাল। এক সেশনে ৭ উইকেট হারিয়েছি। এখানে অজুহাত দেওয়ার কিছু নেই। আমরা খুব বাজে ব্যাট করেছি। এরকম অবস্থায় ফিরে আসা কঠিন। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে মুশফিক-সাকিব ভাই ও লিটন-মিরাজ খুব ভালো চেষ্টা করেছে।

তিনি বলেন, প্রথম ইনিংসের কথা যদি বলেন, দেখেন আমার আউটটা সিলি মিসটেক ছিলো, আমার হয়তো তাড়াহুড়ো করে রান নেওয়া উচিত হয়নি। কিন্তু সবাই মারতে গিয়ে আউট হয়নি। কারণ ওই উইকেটে মুশফিক ও লিটনকে সমর্থন করবো। কারণ তখন উইকেটে বল ঘুরছিলো অনেক। ওই উইকেটে ওরা যে টার্গেটটা নিয়েছিলো যেমন মুশফিক ভাই স্কয়ার অব দ্যা উইকেটে মেরেছিলো দুর্ভাগ্যবশত সংযোগ হয় নাই। আসলে এসব উইকেটে বেশি রক্ষণাত্মক খেললে কঠিন হয়ে যায়। আমার মনে হয় উইকেটটা বেশি বাজে ছিলো। ওই সময় এসব রান না নেয়াটা বেটার।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:   অজুহাত   মুমিনুল  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/Comp 1_3.gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]