রোববার ২৪ অক্টোবর ২০২১ ৭ কার্তিক ১৪২৮

শিরোনাম: দ. কোরিয়া সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান    বিএফইউজের নেতৃত্বে ওমর ফারুক-দীপ আজাদ    দেশে ৬ কোটির বেশি করোনার টিকা প্রয়োগ    শক্তিশালী ও অন্তর্ভুক্তিমূলক জাতিসংঘ গড়ে তোলার আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর    ফেসবুকে ধর্মীয় উসকানিমূলক পোস্ট: ইবি শিক্ষার্থী গ্রেফতার    ওয়েস্ট ইন্ডিজদের লজ্জায় ডোবালো ইংল্যান্ড    রুদ্ধশ্বাস লড়াইয়ের পর অস্ট্রেলিয়ার জয়   
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
করোনাকালে আত্মহত্যা কেন বেড়েছে?
করোনাকালে দেশে ১৪ হাজার ৪৩৬জন মানুষ আত্মহত্যা করেছে, করোনায় আত্মহত্যা বেড়েছে ৪৪ দশমিক ৩৬ শতাংশ।
মোশারফ হোসাইন
প্রকাশ: শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর, ২০২১, ১০:২৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

প্রেম ঘটিত কারণে ৩ সেপ্টেম্বর সিলেট নগরীতে আত্মহত্যা করে আল আমিন (২২)। মেহেরপুরে নিজের ব্যবহৃত রাইফেল মাথায় ঠেকিয়ে গুলি করে আত্মহত্যা করে সাইফুল ইসলাম (২৭) নামের এক পুলিশ কনস্টেবল, ২১ জুলাই আত্মহত্যার পর পুলিশ জানান পারিবারিক কলহের কারণে এ ঘটনা ঘটতে পারে।  ১৬ আগষ্ট ফেসবুক লাইভে এসে শোবার ঘরের আত্মহত্যা করেন অটোরিকশাচালক সুমন (২৮), পরিবারের লোক ও প্রতিবেশীরা তার কক্ষ থেকে দেহ উদ্ধার করে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ৫ এপ্রিল খাগড়াছড়ি রামগড় উপজেলার উত্তর সোনাই আগা গ্রামের মেয়ে আকলিমা আকতার (১৮) গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে, প্রেম ঘটিত বিষয় নিয়ে পারিবারিক কলহে আত্মহত্যার কারণ বলে দাবি ছিল স্বজনদের।



বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর মতে, করোনার প্রথম বছর আত্মহত্যা বেড়েছে ১৭ দশমিক ৩৬ শতাংশ। বেসরকারি কোনো কোনো সংস্থার মতে এসময়টাতে অন্য সময়ের তুলনায় ৪৪ থেকে ৪৫ শতাংশ আত্মহত্যা বেড়েছে। করোনা ইস্যুসহ নানা রকম হতাশা, বিষণœতা বেড়েছে, যার বিরূপ প্রভাব পড়ে মানসিক স্বাস্থ্যে, যে কারণে আত্মহত্যা বেড়েছে উদ্বেগজনক হারে। বিশেষজ্ঞদের মতে, সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের এ সম্পর্কিত প্রচারণার অভাব ছিল। 

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য মতে, ২০২০ সালে ১১ হাজার ২৫৯ জন আত্মহত্যা করে। ব্যুরোর এর আগের বছরের হিসাবে অর্থাৎ ২০১৯ সালে ৯ হাজার ৩১০ জন আত্মহত্যা করে। সরকারের হিসেবে করোনাকালে ১৭ দশমিক ৩১ শতাংশ আত্মহত্যার ঘটনা বেড়েছে ।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগ এর প্রধান ও অধ্যাপক ড. মাহফুজা খানম বলেন, শুধু মাত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার জন্যে মানুষ আত্মহত্যা করেনি এর মধ্যে অনেকগুলো কারণ ছিল। করোনায় বিভিন্ন হতাশা ছিল, করোনায় জীবনের অনিশ্চয়তা নিয়ে, কারও বা সংসার নিয়ে, কারো কারো আত্মহত্যা কারণ ছিল অর্থিক। করোনায় অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ নিয়ে কেউ চিন্তিত ছিল সেই জায়গা থেকেও আত্মহত্যা করেছে।

আত্মহত্যা প্রবণতা রোধে করণীয় কি? জানতে চাইলে এই মনোবিজ্ঞানী বলেন, তরুণদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা বেশি, মেয়েদের তুলনায় ছেলেরা বেশি আত্মহত্যা করে। এর বিশেষ কারণ সংসারের হাল ধরা যেটা অর্থনৈতিক হাল বলে থাকি, এটা অন্যতম। যখন মানুষের হতাশায় সব দিক বন্ধ হয়ে যায় ঠিক তখনই আত্মহত্যা করে। এরকম কারণ যদি আমরা চিহ্নিত করতে পারি তাহলে আমরা সুন্দর ভবিষ্যতের আশ্বাস দিয়ে আত্মহত্যা অনেকটা কমিয়ে আনতে পারি, এই আশ্বাসের ফলে তার মানসিক চাপ কমে আসবে। 

 কোনো আত্মহত্যা প্রবণীয় মানুষের হতাশা দূর করতে তার কাছের মানুষ যদি পরামর্শ বা আশ্বাস দিতে পারে খুব সহজে তার মানসিক চাপ কমে আসবে বলে মনে করেন এই বিশেষজ্ঞ। 
করোনাকালে শিশু, নারী, প্রতিবন্ধী, মধ্যবিত্ত ও দরিদ্র জনগোষ্ঠী আত্মহত্যার ঝুঁকিতে ছিল। এসময় ৮ থেকে ১০ বছর বয়সী শিশুদের আত্মহত্যা ঘটনাও ঘটে। শিশুদের স্কুল বন্ধ থাকায় তারা মানসিক চাপে পড়ে, মানসিক চাপ থেকেই অনেকে আত্মহত্যায় ঝুকেছেন বলে মত অনেকের।
তরুণদের সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশনের এক গবেষণায় দেখা যায়, করোনাকালে এক বছরে দেশে ১৪ হাজার ৪৩৬ জন নারী-পুরুষ আত্মহত্যা করেছেন। ২০১৯ সালের বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্যের সঙ্গে তুলনা করে সংগঠনটি জানায়, করোনাকালে ৪৪ দশমিক ৩৬ শতাংশ আত্মহত্যার ঘটনা বেড়েছে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  
http://www.dailyvorerpata.com/ad/Comp 1_3.gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]