মঙ্গলবার ১১ মে ২০২১ ২৮ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: ঈদ কবে, জানা যাবে বুধবার    শুনানি না হওয়া পর্যন্ত সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে গাছ না কাটতে হাইকোর্টের নির্দেশ    চীনা রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যের জবাবে যা বললেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী    প্রথমবারের মতো চলল মেট্রোরেল    মেট্রোরেল নির্মাণ কাজের সার্বিক অগ্রগতি ৬৩ শতাংশ    বাংলাদেশসহ ৪ দেশের ওপর কুয়েতের ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা    করোনার ভারতীয় ধরন উদ্বেগজনক: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা   
সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীকে কঠোর হস্তে দমন করতে হবে: এম এ লিংকন মোল্লা
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল, ২০২১, ১১:২৫ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

কোনো সাম্প্রদায়িকতা দেশের জন্য কল্যাণ বয়ে আনে না। সেটা যে দেশেই হোক না কেন। সেটা শুধু যে বাংলাদেশ তা নয় ভারত, পাকিস্তান এমনকি ইউরোপের দেশেও কিন্তু সাম্প্রদায়িকতা আছে। সাম্প্রদায়িকতায় কোনো একটা রাষ্ট্রের জন্য মঙ্গল বয়ে নিয়ে আসে না। ধর্মকে পুঁজি করে যেকোনো দেশেই যদি জালাও-পোড়াও আন্দোলন করা হয় তাহলে এটাকে সরাসরি ধর্মের অবমাননা। বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীকে কঠোর হস্তে দমন করার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা যে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছেন।

দৈনিক ভোরের পাতার নিয়মিত আয়োজন ভোরের পাতা সংলাপের ৩১৭তম পর্বে বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) আলোচক হিসেবে উপস্থিত হয়ে এসব কথা বলেন- সাবেক সংসদ সদস্য, ঢাকা মহানগর উত্তর যুব মহিলা লীগের সভাপতি সাবিনা আক্তার তুহিন, ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ লিংকন মোল্লা, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (আ.লীগ পন্থী) সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া। দৈনিক ভোরের পাতা সম্পাদক ও প্রকাশক ড. কাজী এরতেজা হাসানের পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ভোরের পাতার সিনিয়র রিপোর্টার উৎপল দাস।

এম এ লিংকন মোল্লা বলেন,  আজকে ভোরের পাতা সংলাপে যে বিষয় নির্ধারণ করা হয়েছে সেটা আসলেই আলোচ্য সময়ে আলোচিত বিষয়। বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীকে কঠোর হস্তে দমন করার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনা যে কোঠর পদক্ষেপ নিয়েছেন সে জন্য ডেনমার্ক আওয়ামী লীগের পক্ষে তাকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাচ্ছি। বাংলাদেশে দুটি শক্তি রয়েছে। একটি শক্তি হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন আমাদের জননেত্রী শেখ হাসিনা ও আরেকটি পক্ষ হচ্ছে এই মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষে শক্তি যারা একাত্তরে আমাদের দেশে ধর্মের নামে একটা অরাজকতার ও ধ্বংসাত্মক পরিবেশ সৃষ্টি করেছিল। বর্তমানে সাম্প্রদায়িক উস্কানি দিয়ে দেশের মধ্যে নানা ভাবে অশান্তি করার চেষ্টা করছে এই শক্তির বংসধররা। হেফাজত যে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধী একটি শক্তি, তারা যে দেশে অসাম্প্রদায়িক ধারায় বিশ্বাসী নয়, তারা যে ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করে বাঙালির শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতির উদার চিরায়ত ঐতিহ্যকে ধ্বংস করতে চায়, তার প্রমাণ তারা আগে একাধিকবার দিয়েছে। ইসলামের নামে মামুনুল হক যে ভাষায় উসকানি দিয়ে আসছিলেন, তার সঙ্গে ইসলামের কোনো সম্পর্ক ছিল না। মামুনুল হক যে ভণ্ড, প্রতারক, মিথ্যুক সেটা আমি অনেক আগে থেকেই আমরা জেনে এসেছি। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমণের প্রতিবাদে মামুনুলরা মাঠে নামেন। উপলক্ষ্য মোদী হলেও মামুনুলের আসল টার্গেট বাংলাদেশ। মামুনুলের পিতা শায়খুল হাদিস আজিজুল হক স্বাধীনতা বিরোধী ছিলেন। বাংলাদেশ গৌরবের সাথে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছে, বিশ্বকে তাক লাগিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে উন্নয়নের পথে; এটা মামুনুলদের পছন্দ নয়। তাই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আয়োজন বানচাল করতেই তারা ওঠে পড়ে লাগে। তাই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আয়োজন রক্তাক্ত করাই তাদের লক্ষ্য ছিল এবং তারা তাই করেছে। পরিকল্পনার অংশ হিসেবে হেফাজতে ইসলাম বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ উদযাপনকে কলঙ্কিত করতে গত বছরের সেপ্টেম্বর অক্টোবরের দিক থেকে বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালাতে থাকে। এসবের নেতৃত্বেও ছিলেন হেফাজত নেতা মামুনুল হক। যারা সাম্প্রদায়িক উস্কানি দিয়ে দেশের ভেতরে অশান্তি করতে চাইছে তাদের মূল থেকেই উৎপাটন করে প্রতিরোধ করতে হবে তা না হলে তারা কয়েকদিন পর পরই এইরকম জালাও পোড়াও আন্দোলন করবে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  ভোরের পাতা সংলাপ   এম এ লিংকন মোল্লা  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]