বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ ৯ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীকে কঠোর হস্তে দমন করতে হবে: এম এ লিংকন মোল্লা    ধর্ম ব্যবসায়ীদের কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া যাবে না    ফর্মুলা গোপন রাখার শর্তে রাশিয়ার টিকা উৎপাদন করবে বাংলাদেশ    সেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বরিশালে বদলি    তালিকা পাঠান, অভিযুক্ত সকলকে নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জেলে যাব: বাবুনগরী    ব্যাংককে হেফাজত-বিএনপি গোপন বৈঠকে ষড়যন্ত্র, নেপথ্যে ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ হান্নান    হেফাজত নেতা ইহতেশামুল হক গ্রেফতার   
পরকীয়া ও বলাৎকারে সিদ্ধহস্ত মামুনুল হক!
ভোরের পাতা ডেস্ক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ৬ এপ্রিল, ২০২১, ১:২০ এএম | অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস এর মহাসচিব এবং হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক সম্প্রতি নতুন করে সমালোচনার জন্ম দিয়েছেন। ঘনিষ্ট বন্ধুর স্ত্রী কে নিয়ে নারায়গঞ্জ জেলার সোনারগাঁও উপজেলায় রয়েল রিসোর্টে জনতা কর্তৃক আটক হওয়ার পর থেকেই দেশব্যাপী আলোচনা-সমালোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন ধর্মভিত্তিক বিভিন্ন সংগঠনের এ নেতা। মামুনুল হক বন্ধুর স্ত্রীকে তার স্ত্রী দাবি করলেও তার বন্ধুর স্ত্রী'র তথ্যে গড়মিল থাকা এবং যথাযথ প্রমাণ না দেখাতে পারায় সমালোচনা আরও ঘনীভূত হয়ে উঠে।

তবে বিভিন্ন সূত্র জানা গেছে, মামুনুল হকের যৌন আকাঙ্ক্ষা ও কামুক স্পৃহা চরিতার্থ করার প্রচেষ্টা নতুন নয়। অতীতেও তার এ ধরণের কিছু অসামাজিক ও ধর্মীয় বিধি বহির্ভূত কার্যকলাপের তথ্য এসেছে ভোরের পাতার হাতে। ১৯৯৪ সালে মোহাম্মদপুর জামিয়া রহমানিয়া মাদ্রাসার ছাত্র থাকাকালীন সময়ে এক শিশুর সাথে বলাৎকারের অভিযোগে তাকে মাদ্রাসা থেকে বহিস্কার করা হয়। পরবর্তীতে শিশু বলাৎকারের বিষয়টি তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া যাওয়ায় উক্ত মাদ্রাসার নায়েবে মুহতামিম(ভাইস প্রিন্সিপাল) মুফতি মানসুরুল হক মামুনুল কে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করেন। পরবর্তীতে, ছাত্রজীবন শেষ করে তিনি শিক্ষকতার মত মহান পেশায় মনোনিবেশ করেন। কিন্তু তখনও তিনি নিজের চারিত্রিক দৃঢ়তা ধরে রাখতে ব্যর্থ হয়েছেন। তিনি সিরাজগঞ্জের রায়গঞ্জ উপজেলার জামিয়া নিজামিয়া বেতুয়া মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করার সময় নূরুল আলম নামে এক শিশুকে সমকামীতায় বাধ্য করেন। শিশুটি অন্যান্যদেরকে বিষয়টি অবহিত করলে মাদ্রাসা কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক উক্ত মাদরাসার মুহতামীম(অধ্যক্ষ) মাওলানা মাহমুদুল আলমের স্বাক্ষরে তাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। পরবর্তীতে ২০১১ সালে এক ইতালী প্রবাসীর(নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক) বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া স্ত্রীকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেয় মামুনুল হক। প্রবাসীর স্ত্রী অস্বীকৃতি জানানোর পরও দীর্ঘদিন মানুনুল হক তাকে মোবাইল ফোনে বিরক্ত করে আসছিলেন। অবশেষে ২০১৭ সালের শেষ নাগাদ ঐ প্রবাসীর স্ত্রী দেশ ছাড়তে বাধ্য হয়। 

উল্লেখ্য, গত ৩ এপ্রিল হেফাজতে ইসলামের এ নেতা বন্ধুর স্ত্রী সহ বিলাসবহুল রিসোর্টে আটক হন। পরবর্তীতে তার সমর্থকেরা তাকে উদ্ধার করে নিয়ে যায় এবং সোনারগাঁও এ বেপক ভাংচুর ও ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। দেশব্যাপী তার পক্ষে বিপক্ষে সমালোচনার ঝড় উঠে।

ভোরের পাতা/এএম

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]