বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ ৯ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীকে কঠোর হস্তে দমন করতে হবে: এম এ লিংকন মোল্লা    ধর্ম ব্যবসায়ীদের কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া যাবে না    ফর্মুলা গোপন রাখার শর্তে রাশিয়ার টিকা উৎপাদন করবে বাংলাদেশ    সেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বরিশালে বদলি    তালিকা পাঠান, অভিযুক্ত সকলকে নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জেলে যাব: বাবুনগরী    ব্যাংককে হেফাজত-বিএনপি গোপন বৈঠকে ষড়যন্ত্র, নেপথ্যে ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ হান্নান    হেফাজত নেতা ইহতেশামুল হক গ্রেফতার   
শিশুদের দিয়ে ভিক্ষাবৃত্তির সিন্ডিকেট!
রেজওয়ান ইসলাম, জবি
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৫ মার্চ, ২০২১, ২:০২ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

শিশুদের দিয়ে ভিক্ষাবৃত্তির সিন্ডিকেট!

শিশুদের দিয়ে ভিক্ষাবৃত্তির সিন্ডিকেট!

পুরান ঢাকার কিছু গুরুত্বপূর্ণ স্থানের মধ্যে রয়েছে কোর্ট কাচারি, বাহাদুর শাহ পার্ক, সদরঘাট সহ এর আশেপাশের এলাকাসমূহ। প্রতিনিয়ত বিভিন্ন দাপ্তরিক কাজ সহ নানা কাজে এদিকে নানা বয়স ও পেশার মানুষের যাতায়ত। এই এলাকাগুলোতে প্রবেশ করলেই দেখতে পাবেন রাস্তার আশেপাশে কিংবা ভিক্টোরিয়া পার্কে বসে ড্যান্ডি (নেশা জাতীয় দ্রব্য) সেবনে ব্যস্ত একদল শিশু কিশোর এদের মধ্যে রয়েছে মেয়েরাও।

কিছুক্ষণ অবস্থান করলে দেখা যায় একটু পর পর যাতায়াত করা ব্যক্তিদের কাছ থেকে ভিক্ষা চায় তারা, না দেওয়া পর্যন্ত নাছোরবান্দা। ভিক্ষার টাকা দিয়েই একটু পর তাদের আবারো  মাদক সেবনে ব্যস্ত হয়ে পড়তে লক্ষ্য করা যায় । তবে অনুসন্ধানে জানা যায় তাদের এই ভিক্ষাবৃত্তির পেছনে রয়েছে একটি অদৃশ্য সিন্ডিকেট, ভিক্ষার টাকা থেকে একটি বড় অংশ যায় এই অদৃশ্য সিন্ডিকেটের পকেটে। তাদের কথায় ভিক্ষাবৃত্তি না করলে কপালে জুটে অসহনীয় নির্যাতন। শুধু ভিক্ষাবৃত্তি নয় অনেক সময় তাদের দিয়ে চুরিও করানো হয়।

অনুসন্ধানে জানা যায়, এসকল শিশুদের উপর নজরদারী করতে উল্লেখিত এলাকা গুলোতে অবস্থান করে কিছু মহিলা ও কিশোর বয়সী ছেলেরা। এরাই সাধারণত অদৃশ্য সিন্ডিকেটের মাঠ পর্যায়ে কাজ করে। টার্গেট নির্ধারণ করে শিশু-কিশোরদের চুরি করতে বাধ্য করে। 

জুরাইন বস্তিতে বসবাসরত এক শিশু এই এলাকাগুলোতে ভিক্ষার কাজে লিপ্ত, তার মারফত জানা যায় ভিক্ষা করে সে তার সংসার চালায় তবে সে দেখেছে তার কিছু বন্ধু-বান্ধব যারা ভিক্ষার টাকা উঠিয়ে নিজেরা মাদক সেবন করে ও কিছু টাকা একজন বৃদ্ধ লোকের কাছে জমা দেয়। 

অনুসন্ধানকালে কথা হয় ১০ বছর বয়সী দুই শিশুর সাথে, একজনের বাসা তালতলা অপরজন কমলাপুর, দুজনেই সৎমায়ের কারণে বাড়িতে যায় না, ভিক্ষা করে খেতে হয়। ভিক্ষার টাকার ভাগ দিতে হয় আকাশ, তুফান ও সাগর নামে তিন ব্যক্তিকে। টাকার ভাগ না দিলে চলে নির্যাতন। এছাড়াও জানা যায়, রাতের বেলার ১৩-১৪ বছর বয়সী ছেলেরা (নাম জানা যায় নি) এসে টাকার ভাগ দিতে বলে। 

এ ব্যাপারে ঢাকা সমাজ সেবা কার্যালয়ের তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা রকনুল হক জানান, এদের মধ্যে কিছু আছে যারা অনেক সময় পুলিশের সংস্পর্শে আসে তারপর আমরা তাদের নিয়ে এসে পুনর্বাসন এর ব্যবস্থা করি।

ভোরের পাতা/ই

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  ভিক্ষাবৃত্তি   সিন্ডিকেট  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]