বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ ৯ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: সাম্প্রদায়িক উগ্রগোষ্ঠীকে কঠোর হস্তে দমন করতে হবে: এম এ লিংকন মোল্লা    ধর্ম ব্যবসায়ীদের কোনোভাবেই ছাড় দেওয়া যাবে না    ফর্মুলা গোপন রাখার শর্তে রাশিয়ার টিকা উৎপাদন করবে বাংলাদেশ    সেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বরিশালে বদলি    তালিকা পাঠান, অভিযুক্ত সকলকে নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জেলে যাব: বাবুনগরী    ব্যাংককে হেফাজত-বিএনপি গোপন বৈঠকে ষড়যন্ত্র, নেপথ্যে ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ হান্নান    হেফাজত নেতা ইহতেশামুল হক গ্রেফতার   
জনগণের আস্থার প্রতিদান দিতে পারিনি: দুদকের বিদায়ী চেয়ারম্যান
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: সোমবার, ৮ মার্চ, ২০২১, ৩:২৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

ফাইল ছবি

ফাইল ছবি

জনগণের আস্থার প্রতিদান সেভাবে দিতে পারিনি বলে মন্তব্য করেছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) বিদায়ী চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

সোমবার (৮ মার্চ) রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে বিদায়ী সংবাদ সম্মেলন তিনি এ মন্তব্য করেন।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, আমরা জন-আকাঙ্ক্ষা পূরণ করতে পারিনি। জনগণ যতটুকু চায়, ততটুকু করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হয়নি।

তিনি বলেন, জন-আকাঙ্ক্ষা পৃথিবীর কোনো রাষ্ট্রেই পূরণ করা সম্ভব হয় না। এটা পূরণ করতে পারলে তো কমিশনের প্রয়োজন ছিল না।

ইকবাল মাহমুদ আরও বলেন, আমি, আমরা চেষ্টা করেছি প্রতিষ্ঠান হিসেবে দুদককে একটি ভালো অবস্থানে নিয়ে যেতে। তবে আমি তৃপ্ত হতে পারিনি। জনগণের আস্থার প্রতিদান সেভাবে দিতে পারিনি। সবক্ষেত্রে জন-আকাঙ্ক্ষা পূরণ হয়নি।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, তবে আমরা সবাইকে একটি বার্তা দিতে পেরেছি যে কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়। অনেক ক্ষমতাধর মানুষকে দুদকের বারান্দায় আসতে হয়েছে। কেউ অন্যায় করে রেহাই পায়নি। এই বার্তাটি আমরা পৌছাতে পেরেছি।

মেয়াদ শেষ হওয়ার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে তিনি বলেন, আমি অন্যদের মতো বলবো না দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে চলে যাচ্ছি। আমি বলবো, এক বসস্তে হাসিমুখে এসেছিলাম, আরেক বসন্তে হাসিমুখে চলে যাচ্ছি।

কোনো চাপে কখনো কোনো দায়িত্ব পালন করতে সমস্যা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি সরকারের উপর মহল থেকে কখনো কোনো চাপ পাইনি। তবে যে কাজ বা সিদ্ধান্ত নিলে রাষ্ট্রের ক্ষতি হতে পারে সেসব সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসেছি। সেখানে নিজেই নিজের বিবেকের কাছে চাপে পড়েছি।

কাজ করতে গিয়ে দুদকের সবচেয়ে দুর্বলতা কোন জায়গায় আপনার কাছে মনে হয়েছে, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, এখানে কোয়ালিটি সম্পন্ন লোকবলের অভাব। কমিশনের যে ধরনের লোক দরকার তেমন লোক নাই। যারা আছে তাদেরকে আরও বেশি প্রশিক্ষণ দিয়ে তৈরি করতে হবে।

দুদকের কর্মকর্তাদের ঘুষের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা মানুষ নিয়ে কাজ করি। মানুষকে ডিল করা খুব সহজ কাজ নয়। আর মানুষ লোভ লালসার উর্ধ্বেও নয়। তবে যারা অনৈতিক কাজের সঙ্গে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। কারও কারও পদের অবনমন হয়েছে। তবে একটা কথা বলে রাখি, দুদক সব কিছু করার ক্ষমতা রাখে না। এটাও জনগণকে বুঝতে হবে।

ইকবাল মাহমুদ বলেন, তিনজন মানুষ নিয়ে কমিশন গঠিত। এর বাইরে আমার একটা একান্ত ব্যক্তিগত মতামত আছে, সেটা হলো ইন্টারনাল মেকানিজমের জন্য সাতজনের একটি কমিটি হতে পারে। যেখানে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, সাংবাদিক ও বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষকে যুক্ত করা যেতে পারে।

উল্লেখ্য, ইকবাল মাহমুদ ২০১৬ সালের ১০ মার্চ দুদক চেয়ারম্যান হিসাবে তৎকালীন চেয়ারম্যান মো. বদিউজ্জামানের স্থলাভিষিক্ত হন। দুদকের চতুর্থ চেয়ারম্যান হিসাবে আগামীকাল মঙ্গলবার (৯ মার্চ) তার মেয়াদ শেষ করবেন তিনি।

ভোরের পাতা/ই

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  দুদক   দুর্নীতি দমন কমিশন   দুদকের বিদায়ী চেয়ারম্যান   ইকবাল মাহমুদ  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]