বৃহস্পতিবার ২২ এপ্রিল ২০২১ ৯ বৈশাখ ১৪২৮

শিরোনাম: সেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটকে বরিশালে বদলি    তালিকা পাঠান, অভিযুক্ত সকলকে নিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে জেলে যাব: বাবুনগরী    ব্যাংককে হেফাজত-বিএনপি গোপন বৈঠকে ষড়যন্ত্র, নেপথ্যে ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজ হান্নান    হেফাজত নেতা ইহতেশামুল হক গ্রেফতার    জলবায়ু পরিবর্তন: বিশ্বনেতাদের প্রতি প্রধানমন্ত্রীর ৪ পরামর্শ    ভাঙলো মুমিনুল-শান্তর ২৪২ রানের জুটি    যুক্তরাষ্ট্রের ‘ডু নট ট্রাভেল’ তালিকায় বাংলাদেশ   
নোয়াখালীতে প্রতিহিংসার রাজনীতি: পর্ব ০১
মামলার জালে বন্দী ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী, নেপথ্যে কারা?
সিনিয়র প্রতিবেদক
প্রকাশ: শুক্রবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ৭:১৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

সাম্প্রতিক সময়ে নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগ নানা কারণে আলোচিত এবং সমালোচিত। ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীরাই এখন মামলার জালে বন্দী। জেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে বিভক্তির কারণে আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতীম সংগঠন ছাত্রলীগ এবং সহযোগী সংগঠন যুবলীগের নেতাকর্মীরাই এখন রাজনৈতিক প্রতিহিংসার মামলায় জর্জরিত। নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিহিংসার রাজনীতি নিয়ে ভোরের পাতার ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজ থাকছে প্রথম পর্ব। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নোয়াখালীর সোনাইমুড়ীতে ক্ষমতাসীন দলের সিনিয়র রাজনৈতিক নেতাদের প্রতিহিংসার শিকার দলীয় নেতাকর্মীরা। স্থানীয় নেতাকর্মীদের অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ক্ষমতাসীন সরকারের ১৪ বছর পার হলেও দীর্ঘ রাজনৈতিক জটিলতায় অভিজ্ঞ রাজনৈতিকদের রোষানলে প্রতিহিংসার শিকার হয়েছেন ছাত্রলীগ ও যুবলীগের একাধিক নেতা কর্মীরা। 

ক্ষমতাসীন সরকারের রাজনৈতিক মাঠ দখলে থাকলেও কেন নেতাকর্মীরা এ প্রতিহিংসার শিকার হচ্ছেন এই প্রশ্ন এখন নোয়াখালীসহ সারাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেই।

ভোরের পাতার সাথে আলাপকালে একাধিক মামলার আসামি শাহজাহান সাজু বলেন,আমার একমাত্র অপরাধ কেন আমি কাউন্সিলর প্রার্থী হলাম, আমি একজন আওয়ামী পরিবারের সন্তান, আমার পিতা মোঃ হানিফ কালু দলীয় পদধারী আওয়ামী লীগের নেতা। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে দলের কাজ করছেন। আমার আদর্শিক বাবার ধারাবাহিকতায় আমিও সোনাইমুড়ী পৌর ছাত্র লীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করি। ছাত্রলীগ থেকে পৌরসভা যুবলীগের  সহ-সভাপতি হিসেবে বর্তমানে দায়িত্ব পালন করছি।

তিনি আরো জানান, মামলা হামলা নির্যাতনের বিষয়ে (১৬ ই ফেব্রুয়ারী) আমি সংবাদ সম্মেলনও করি। আমার সরকার ক্ষমতায় থাকলেও কেন আমি প্রতিহিংসার শিকার হলাম এ আমার বোধগম্য নয়। রাজনৈতিক টানাপোড়েনের ক্ষমতার পালাবদলে দিন পরিবর্তন হলেও। আমি কেন আজ অসহায়? এই প্রশ্ন রাখি আমার নেত্রী শেখ হাসিনার কাছে। দয়া করে পরিচ্ছন্ন রাজনীতির ধারক প্রিয় নেতা দলের সাধারণ সম্পাদক নোয়াখালী কৃতিসন্তান  ওবায়দুল কাদেরের কাছেও।
মামলার জালে বন্দী ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী, নেপথ্যে কারা?

মামলার জালে বন্দী ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মী, নেপথ্যে কারা?

সম্প্রতি নোয়াখালীতে সোনাইমুড়ী উপজেলা পৌরসভায় ঘটে যাওয়া নির্বাচনে বিবাদমান বিভিন্ন রাজনৈতিক ইস্যুতে দলীয় ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়। যেমন চিহ্নিত হয়েছে ঐতিহ্যবাহী নোয়াখালী একই সাথে প্রতিশ্রুতি রাখতে পারেননি রাজনৈতিক ব্যক্তিরাও দলের ভাবমূর্তি ও সুনাম নষ্ট করেছেন। প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে ক্ষমতাসীন সরকারও। 

তিনি বলেন, দিনবদলের অঙ্গীকার নিয়ে ক্ষমতাসীন সরকার যেভাবে গঠন করেছিল দল। প্রতীকের মেরুকরণে জল ঘোলা করেনি স্থানীয় নেতারা। বিভিন্ন সময়ে দলের সুনাম অক্ষুণ্ন রাখতে গিয়ে বিরোধীদলের আঘাত সহ্য করা নেতা-নেত্রীরা আজ বড় অসহায় তারা জানান। পরিত্রাণের উপায় খুঁজতে গিয়ে বারবার ধরনা দিয়েছে উচ্চমহলে তারাও আশ্বাস দিয়ে রাখে নি কথা। এখনো প্রতিনিয়ত আমাকে আরও মামলা হামলার হুমকি দিচ্ছে তারা।

কাউন্সিলর প্রার্থী শাহজাহান সাজু আরও জানান, আমি এ পর্যন্ত প্রায় প্রতিহিংসার রাজনীতির শিকার হয় একাধিক মামলার আসামি হয়েছে ফেরারি হয়ে দিনযাপন করছি। সবচেয়ে দুর্ভাগ্য আমার দল ক্ষমতায় তবু আমি একাধিক মামলার আসামি। আমি থানায় গিয়েছিলাম মামলা করতে কিন্তু পুলিশ মামলা নেয়নি। আশ্চর্যের বিষয় হলো যিনি আমাকে মামলার আসামি বানিয়েছেন তার আমার এলাকা থেকে ৬-৭ কিলোমিটার দূরত্ব এবং তার গ্রামের বাড়ি ১নং জয়াগ ইউনিয়নে।

তিনি দাবি করেন,  এই মামলা স্পষ্টই প্রমাণ করে আমি সিনিয়র রাজনৈতিক নেতাদের প্রতিহিংসার শিকার এবং সোনাইমুড়ি থানা পুলিশের সহযোগিতা নিতে চাইলেও তারা মামলা তো দূরের কথা অভিযোগ আমলে নেয়নি।

এছাড়াও এ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে মামলার আসামি হয়েছেন ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি হানিফ কালু মিয়া, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ইব্রাহিম, সহ-সভাপতি জহিরুল ইসলাম, মোঃ জসিম, যুবলীগের সদস্য জহির,  ৬নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সদস্য মোঃ রাসেল আরো একাধিক ব্যক্তি।

এ বিষয়ে সোনাইমুড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গিয়াস উদ্দিন মুঠোফোনে বলেন, আসামি কে কিভাবে আমরা সহযোগিতা করবো। আমাদের কাজ বাদীকে সহযোগিতা করা। 

এ বিষয়ে সোনাইমুড়ী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম
বাবুল (বাবু) মুঠোফোনে বলেন, ঘটনা আমি শুনেছি শাহজাহান সাজু আমাকে জানিয়েছেন।

সিনিয়র রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের প্রতিহিংসার শিকার সোনাইমুড়ী উপজেলা ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা এই প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট।

নোয়াখালী পৌর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ সাহাবুদ্দিন মুঠোফোনে বলেন, ভাই লীগের কারণেই মামলাগুলো হয়েছে। সোনাইমুড়ী উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক খলিলুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, আমি এ বিষয়ে কিছুই জানিনা।

ভোরের পাতা/এএম 

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »


আরও সংবাদ   বিষয়:  নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগ   নোয়াখালী আওয়ামী লীগ   আওয়ামী লীগ  







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]