রোববার ৭ মার্চ ২০২১ ২১ ফাল্গুন ১৪২৭

শিরোনাম: লিওনেল মেসি ফেব্রুয়ারির সেরা খেলোয়াড়     বিএনপিকে ৭ মার্চ পালন করায় ধন্যবাদ তথ্যমন্ত্রীর    বিজিবির সঙ্গে সংঘর্ষে সীমান্তে নিহত ১    ১৭ মার্চ দেশে বিদেশিদের টিকা নিবন্ধন শুরু     দেশব্যাপী গণসংযোগ করার ঘোষণা ড. কামালের    সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব নির্বাচনে সভাপতি মমতাজ আহমেদ বাপী, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সুজন    দিল্লির শৃঙ্খলে আবদ্ধ বাংলাদেশ : গয়েশ্বর   
পুরোনো জৌলুশ হারিয়েছে ঐতিহ্যবাহী 'আজাদ হল'
জবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: শনিবার, ২৩ জানুয়ারি, ২০২১, ৮:০৩ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

পুরোনো জৌলুশ হারিয়েছে ঐতিহ্যবাহী 'আজাদ হল'

পুরোনো জৌলুশ হারিয়েছে ঐতিহ্যবাহী 'আজাদ হল'

ঢাকার প্রথম দিকের ১০ টি সিনেমা হলের মধ্যে একটি আজাদ সিনেমা হল। অবস্থান পুরান ঢাকার সদরঘাটে(রায় সাহেব বাজার দিয়ে সদরঘাটের দিকে একটু এগোলেই কোর্টের বিপরীতে)। অতীতে এক সময়কার পুরান ঢাকার মানুষদের কাছে অন্যতম একটি প্রেক্ষাগৃহ হিসেবে পরিচিত থাকলে এখন আর সেই পুরোনো জৌলুশ নেই ঐতিহ্যবাহী প্রেক্ষাগৃহটির। জরাজীর্ণ ভবনের দেয়াল থেকে খসে পড়ছে ইট, সিমেন্ট, ভারী বৃষ্টিতে ভেসে যায় হল, চালানো হয় বি গ্রেড সিনেমা। 

দর্শক আকর্ষণের জন্য আজাদ ম্যানশনের দেওয়াল জুড়ে ছেয়ে আছে ‘বি গ্রেড’ চলচ্চিত্রের পোস্টার, যা সুস্থ সংস্কৃতির ও উন্নত মানসিকতাসম্পন্ন দর্শক টানতে সক্ষম নয়। ভেতরে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় দর্শকশূন্য হলটি। আর সিনেমাও দেখানো হচ্ছে কম্পিউটার আর পেনড্রাইভের মাধ্যমে, নেই রিল। কালের বিবর্তনে হারিয়ে যেতে বসেছে ৮৮ বছরের ঐতিহ্যবাহী এই হল। ‘বি গ্রেড’ সিনেমায় সয়লাব এবং রুচিহীন কর্মকাণ্ডে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে দর্শক। বর্তমানে দর্শকের বদলে জায়গা করে নিয়েছে মাদকসেবী আর অসামাজিক কর্মকাণ্ডে জড়িতরা। প্রশাসনের নাকের ডগায় এসব কর্মকাণ্ড চললেও নেওয়া হয় না কার্যকর কোনো ব্যবস্থা।

‘বি গ্রেড’ সিনেমার নোংরা ও অশ্লীল পোস্টারের বিষয়ে পরিতোষ রায় বলেন, ‘এই পোস্টারগুলো সিনেমার ডিস্ট্রিবিউটরদের করা। আমরা পোস্টারিং করি না। তারা যদি এ ধরনের পোস্টার প্রদান করে, তাহলে আমাদের কী করার আছে? আমরা না করেছি এ ধরনের পোস্টার দেওয়ার জন্য। তবে আমরা সিনেমার ডিস্ট্রিবিউটরের সঙ্গে কথা বলে পোস্টার পরিবর্তনের বিষয়টা জানাবো।’

এ প্রসঙ্গে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগের চেয়ারম্যান ও জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত অধ্যাপক জুনায়েদ আহমদ হালিম বলেন, সিনেমা বা এরকম হলগুলোর করুণ পরিস্থিতি এক দিনে তৈরি হয়নি। প্রথমত, সিনেমা হলগুলো ব্যক্তিমালিকানায়। আর দ্বিতীয়ত, ফিল্ম ডেভেলপমেন্ট করপোরেশন (এফডিসি)ভিত্তিক সিনেমা নির্মাণের মান কমে যাচ্ছে, যার কারণে হলে সিনেমা দেখতে দর্শক হিসেবে যারা যান, তাদের বোধশক্তির জায়গা নিম্ন। সিনেমা যে একটা শিল্প; এর থেকেও যে শেখা যায়, সেটা আমাদের শিক্ষিত সমাজেরও জানার বাইরে ছিল। সিনেমায় সরকারি অর্থায়ন করতে হবে এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে শেখাতে হবে। তাহলে সিনেমা হলগুলোয় ভালো মানের চলচ্চিত্র দেখা যাবে।’

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]