শনিবার ৬ মার্চ ২০২১ ২১ ফাল্গুন ১৪২৭

শিরোনাম: লিওনেল মেসি ফেব্রুয়ারির সেরা খেলোয়াড়     বিএনপিকে ৭ মার্চ পালন করায় ধন্যবাদ তথ্যমন্ত্রীর    বিজিবির সঙ্গে সংঘর্ষে সীমান্তে নিহত ১    ১৭ মার্চ দেশে বিদেশিদের টিকা নিবন্ধন শুরু     দেশব্যাপী গণসংযোগ করার ঘোষণা ড. কামালের    সাতক্ষীরা প্রেসক্লাব নির্বাচনে সভাপতি মমতাজ আহমেদ বাপী, সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সুজন    দিল্লির শৃঙ্খলে আবদ্ধ বাংলাদেশ : গয়েশ্বর   
পুরান ঢাকায় নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী 'সাকরাইন'
প্রতিনিধি, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ১৪ জানুয়ারি, ২০২১, ৮:২৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

পুরান ঢাকায় নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী 'সাকরাইন'

পুরান ঢাকায় নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী 'সাকরাইন'

নানা আয়োজনে পালিত হচ্ছে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী সাকরাইন উৎসব। অনেকের কাছে এটা আবার ঘুড়ি ওড়ানোর উৎসব নামেও পরিচিত। দুই দিনব্যাপী সাকরাইন উৎসবের প্রথম দিনে বৃহস্পতিবার (১৪ জানুয়ারি) নানা রংয়ের ঘুড়ি পুরান ঢাকার আকাশে ছেয়ে গেছে। সন্ধ্যার আয়োজনে থাকে ফানুস আর আলোকসজ্জার সাথে আধুনিক সাউন্ড সিস্টেম। তবে অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছরের তুলনায় করোনার কারণে কিছুটা ভিন্নতা দেখা গেছে।

আয়োজনে বাড়তি আনন্দ যোগ করতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন থেকেও আয়োজন করা হয়েছে ঘুড়ি উড়ানোর উৎসবের।

প্রায় এক দশক আগে প্রতিটি বাড়ির ছাদে ছাদে থাকতো মাইকের আধিপত্য। তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আর আধুনিকতার সংস্পর্শে মাইকের স্থান দখল করেছে আধুনিক সাউন্ড সিস্টেম।

এই উৎসবটি প্রায় ৪০০ বছর ধরে পালন করে আসছে পুরান ঢাকার বিভিন্ন স্তরের মানুষ। তরুণদের সঙ্গে ছোট-বড় সব বয়স্ক মানুষকে দেখা গেছে নিজ নিজ বাড়ির ছাদে ঘুড়ি ওড়াতে। মেয়েদেরকেও দেখা গেছে ছেলেদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ঘুড়ি ওড়াতে। কমতি নেই আতশবাজি আর সাউন্ড সিস্টেমের।সঙ্গে আতশবাজি ফুটিয়ে বাংলা বছরের পৌষকে বিদায় জানাচ্ছে। সাউন্ড সিস্টেমের সঙ্গে সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলে নাচ গানের আনন্দও।

ঘুড়িতে ঘুড়িতে হৃদ্যতামূলক কাটাকাটি খেলাও চলে। এক ছাদ থেকে অন্য ছাদের ঘুড়ি কাটাকাটিতে মাতে তরুণ-তরুণীরা।

পুরান ঢাকার দয়াগঞ্জ, মুরগিটোলা, কাগজিটোলা, গেন্ডারিয়া, বাংলাবাজার, ধূপখোলা মাঠ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, শাখারিবাজার, সদরঘাট, কোটকাচারী, শিংটোলা এলাকার বিভিন্ন স্থান ঘুরে দেখা যায় সাকরাইন উৎসব পালনের চিত্র।

সাকরাইন উৎসবকে ঘিরে বেশ কদিন আগে থেকেই পুরান ঢাকার বেশির ভাগ গলি আর খোলা ছাদে চলছিল সুতা মাঞ্জা দেয়ার ধুম। রোদে সুতা শুকানোর কাজও চলে পুরোদমে।

জানা যায়, পৌষ মাসের শেষ দিন সাকরাইনে নতুন ধানের চালের পিঠাপুলি খেয়ে ঘুড়ি উড়িয়ে আনন্দ উৎসব করার রেওয়াজ বহু পুরনো। পুরান ঢাকার মানুষ এই উৎসব পালন করে আসছে প্রায় ৪০০ বছর ধরে। এখন আর আগের মতো সবার ঘরে ঘরে পিঠা তৈরি হয় না। তবে এখনো কিছু কিছু ঘরে সে সময়ের রেওয়াজ ধরে পিঠা তৈরি করে। পিঠার সংস্কৃতিটা কম হলেও অন্যান্য সংস্কৃতিতে পিছিয়ে নেই এ প্রজন্মের তরুণরা।

সাকরাইন উৎসব নিয়ে কথা হয় পুরান ঢাকার সুত্রাপুরের আদনান, আল আমিন, রোকাইয়া, সজিব, তৌকির, সুজন, মেহেদি, নামের কয়েকজনের সঙ্গে।

তারা বলেন, ‘এই সাকরাইন উৎসব পুরান ঢাকার ঐতিহ্য ও প্রাণের উৎসব। আমরা যখন ছোট ছিলাম তখন থেকেই এ উৎসব পালন করে আসছি। আগে এখনকার মতো সাউন্ড সিস্টেমের গান বাজনা ছিল না। তবে সেসময় ছিল অকৃত্রিম আনন্দ আর ভোকাট্টা লোটের আকাশস্পর্শী শব্দ।আগে সাকরাইন উৎসব এলে আত্মীয়-স্বজনকে দাওয়াত দিয়ে খাওয়ানো হতো। যা এখন অনেকটাই কমে গেছে।’

তারা আরো বলেন, পাশ্চাত্য সংস্কৃতির ছোবলে বাংলার প্রাচীন অনেক উৎসবের মতো সাকরাইনও হারাতে বসেছে তার জৌলুস। কমে আসছে সাকরাইন উৎসবের পরিধি। তবে উৎসবের অনুষঙ্গে পরিবর্তন এলেও আমেজ আর আবেগটা এখনো রয়ে গেছে আগের মতো।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »







  সর্বশেষ সংবাদ  
  সর্বাধিক পঠিত  

সারাদেশ

এই ক্যাটেগরির আরো সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]