বৃহস্পতিবার ● ২৯ অক্টোবর ২০২০ ● ১৩ কার্তিক ১৪২৭ ● ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪২
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ: গার্ড অব অনার ছাড়া মুক্তিযোদ্ধার দাফন
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশ: মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৬:১৬ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ: গার্ড অব অনার ছাড়া মুক্তিযোদ্ধার দাফন

তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ: গার্ড অব অনার ছাড়া মুক্তিযোদ্ধার দাফন

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলীকে গার্ড অব অনার ছাড়া দাফন বিতর্ক নিয়ে সরেজমিন তদন্তের প্রতিবেদন প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলন করেছে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ড। গতকাল রোববার জাতীয় প্রেসক্লাবের তোফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে এ আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন কমিটির সভাপতি মেহেদী হাসান। 

এসময় লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২৬ জুলাই মারা যান এবং ২৭ জুলাই বেলা ১১ টায় মরহুমের জানাজার নামাজের সময় নির্ধারণ করা হয়। বিষয়টি পরিবারের পক্ষ থেকে স্থানীয় প্রশাসনকে অবগত করা হয় এবং সে মোতাবেক নির্ধারিত সময়ের প্রায় আধা ঘণ্টা আগেই গার্ড অব অনার দেওয়ার পুলিশ দল জানাজাস্থলে পৌঁছে যায়। তবে বাঁশখালী উপজেলা প্রশাসন প্রতিনিধি এসিল্যান্ড যথাসময়ে উপস্থিত হতে না পারায় জানাজার নামাজের পর গার্ড অব অনার হবে মর্মে নির্ধারিত সময়ে জানাজার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু এরপর কালক্ষেপণ না করে গার্ড অব অনার ছাড়াই তড়িঘড়ি করে দাফন সম্পন্ন করা হয়। ’

‘এসিল্যান্ড ঘটনাস্থলে পৌঁছে গার্ড অব অর্নার দিতে চাইলে তার সঙ্গে দুর্ব্যবহার করা হয়। এসময় সেখানে উপস্থিত সাধারণ জনগণ গার্ড অব অনার দেওয়া ‘বিদআত’ এবং বিউগল বাজানো ‘নাজায়েজ’ বললে এ কথার সঙ্গে মরহুমের সন্তানসহ পরিবারের সদস্যরা একমত পোষণ করে গার্ড অব অনার দিতে আপত্তি জানান। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানার পর ঘটনাস্থলে এসে মরহুম আলী আশরাফের সন্তানদের কাছে ক্ষমা চেয়ে গার্ড অব অনার দিতে সহযোগিতা চাইলে তারা তাদের আগের সিদ্ধান্তে অটল থাকেন। ফলে গার্ড অব অনার দিতে না পেরে প্রশাসনের পক্ষ থেকে মরহুমের সমাধিস্থলে ফুল দেওয়া হয়। একইসঙ্গে একজন পুলিশ কর্মকর্তার সাহায্যে দোয়া ও মোনাজাত করা হয়। ’

লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, ‘গণ্যমান্য ব্যক্তিরা গার্ড অব অনার দেওয়ার পক্ষে থাকলেও পরিবারের সদস্যদের অনীহার কারণে তা দেওয়া সম্ভব হয়নি। এ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সাধারণ জনমনে কিছু প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে। বিশেষ করে বীর মুক্তিযোদ্ধারা কি কোনো নির্দিষ্ট পরিবার বা ব্যক্তির সম্পদ না রাষ্ট্রের সম্পদ? মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর পর গার্ড অব অনার দেওয়ার দায়িত্ব কার এবং তা পালনে ব্যর্থ হলে সে দায় কার? মুক্তিযোদ্ধার গার্ড অব অনার দিতে বাধা দিয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে তড়িঘড়ি করে দাফন করলে সেটা রাষ্ট্রীয় কাজে বাধার শামিল বলে বিবেচিত হবে কি না এবং এহেন কর্মকাণ্ডে যে বা যারা সম্পৃক্ত তাদের শাস্তি কি হওয়া উচিত এবং কারা এ শাস্তির আওতাভুক্ত হবেন?’

‘সার্বিক পর্যালোচনা করলে দেখা যায় গার্ড অব অনারকে বিদআত ও নাজায়েজ আখ্যা দিয়ে ধর্মীয় উন্মাদনা সৃষ্টি করে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার দিতে না দিয়ে উল্টো পরিবারের পক্ষ থেকে গার্ড অব অনার ছাড়া তার দাফন নিয়ে যেসব বক্তব্য প্রচার করা হয়েছে, তা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ও মিথ্যাচার। এক্ষেত্রে সরকারি কাজে বাধা, অপপ্রচারের মাধ্যমে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মান ক্ষুণ্ন এবং দেশব্যাপী একটি অস্থির পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে বর্তমান সরকারের বিরুদ্ধে মুখোমুখি দাঁড় করিয়ে তৃতীয় একটি পক্ষের স্বার্থ হাসিল করার অপচেষ্টা পরিলক্ষিত হয়। ’

‘সার্বিক বিশ্লেষনে ঘটনার নেপথ্যে মূলত তিনটি বিষয় দৃশ্যমান হয়। এগুলো হলো— আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অসুস্থ প্রতিযোগিতা; নব্য আওয়ামী ভাববাদীদের আধিপত্য বিস্তারে দলীয় নীতি-নৈতিকতা বিরোধী কার্যক্রমে পৃষ্ঠপোষকতা; এবং স্বাধীনতা বিরোধী চক্রের স্বার্থ রক্ষায় আওয়ামী লীগে তাদের পছন্দের প্রার্থীকে প্রতিষ্ঠাকরণ প্রক্রিয়া। ’

এসময় স্বাধীনতাবিরোধী চক্রের এ ধরনের কার্যকলাপ এবং চক্র থেকে দেশের সব বীর মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে সাবধান এবং সোচ্চার হওয়ার প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






https://www.dailyvorerpata.com/ad/BHousing_Investment_Press_6colX6in20200324140555 (1).jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/431205536-ezgif.com-optimize.gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/agrani.gif
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: vorerpata24@gmail.com news@dailyvorerpata.com