বৃহস্পতিবার ● ৩ ডিসেম্বর ২০২০ ● ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ ● ১৬ রবিউস সানি ১৪৪২
https://www.dailyvorerpata.com/ad/Inner Body.gif
সিনেমাতে আসার কখনোই ইচ্ছে ছিল না, হতে চেয়েছিলাম সেনাবাহিনীর চিকিৎসক: শাহনূর
সিনিয়র প্রতিবেদক
প্রকাশ: শনিবার, ২৫ জুলাই, ২০২০, ১০:৩৯ পিএম আপডেট: ২৫.০৭.২০২০ ১১:২০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

সিনেমাতে আসার কখনোই ইচ্ছে ছিল না, হতে চেয়েছিলাম সেনাবাহিনীর চিকিৎসক: শাহনূর

সিনেমাতে আসার কখনোই ইচ্ছে ছিল না, হতে চেয়েছিলাম সেনাবাহিনীর চিকিৎসক: শাহনূর

করোনার পর আবারো স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসবে মানুষের জীবন। আবারো মানুষের জীবনে সংগীতের স্পন্দন জাগবে বলে মনে করেন আলোচকরা।

শনিবার (২৫ জুলাই) দৈনিক ভোরের পাতার নিয়মিত আয়োজন ভোরের পাতা সংলাপে এসব কথা বলেন আলোচকরা। আলোচক হিসাবে উপস্থিত ছিলেন- সংগীত শিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদ, বাংলাদেশ টেলিভিশনের তালিকাভুক্ত শিল্পী ও গজল শিল্পী এস এম বাকের, নজরুল সংগীত শিল্পী সম্পা দাস এবং চিত্রনায়িকা শাহনূর। দৈনিক ভোরের পাতার সম্পাদক ও প্রকাশক ড. কাজী এরতেজা হাসানের পরিকল্পনা ও নির্দেশনায় অনুষ্ঠানের সঞ্চলনা করেন শামীমা তুষ্টি।

চিত্রনায়িকা শাহনূর বলেন, করোনার এই সময়ে পৃথিবীর সব মানুষই কষ্টে আছেন। আমি ছোটবেলায় থেকে সমাজ সেবা করতে অভ্যস্ত। এই করোনার সময় অনেকটা সময় ধরে গ্রামের বাড়িতে আছি। আমার গ্রামের বাড়ি নড়াইলে। গ্রামে গ্রামে মাস্ক বিতরণ করেছি। গ্রামের স্কুল থেকে শুরু করে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের মাস্ক দিয়েছি। বৃক্ষরোপন অভিযানও করেছি। এছাড়া গ্রামের উঠতি বয়সী ছেলেরা যেন মাদকাসক্ত না হয়ে পরে, সে কারণে একটি সামাজিক সংগঠন গড়ে তুলেছি। 

তিনি আরো বলেন, সিনেমাতে আসার কখনোই ইচ্ছে ছিল না। আমার পিতা ছিলেন সেনাবাহিনীর চিকিৎসক। আমিও চেয়েছিলাম আর্মির চিকিৎসক হবো। অনেক স্যালুট পাবো। কিন্তু একবার বাংলাদেশে ৫০ হাজার সুন্দরীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা হয়। তখন থেকেই শুরু। এরপর হঠাৎ করেই সিনেমায় চলে আসছি। ছোটবেলায় রেডিওতে ছড়া গান, কবিতা এবং মঞ্চ নাটকে কাজ করেছি। করোনার মধ্যে আমাদের সিনেমার শুটিংই হচ্ছে না। তবে আজ বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে নায়ক রিয়াজের সাথে একটা ডাবিং করেছি। এই করোনার সময় বন্যায় মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এরপর ডেঙ্গু এসেছে। সব কিছু মিলিয়ে আমাদের দেশের মানুষ করোনা, বন্যা, ডেঙ্গুর সাথে লড়াই করছে। 

কাস্টিং কাউচ নিয়ে চিত্রনায়িকা শাহনূর বলেন, ক্যামেরার সামনে আমরা হয়তো সবাই হাসিমুখে কথা বলি। কিন্তু পিছনে অনেকেই অনেক কিছু বলেন। পরিবারের পক্ষ থেকে কখনোই কোনো বাঁধা আসেনি। আমাদের তো সৈয়দ বংশ, কিন্তু আমার বেলায় কিছু ঘটেনি। আমি অনেক ছবিই বাদ দিয়েছি, যেটা আমার মন মতো হয়নি; সেসব ছবিতে অভিনয় করি নাই। মেকআপ রুমে একবার সিনেমার পরিচালক জিল্লুর রহমান হঠাৎ এসে মেকআপ ম্যান বাবুলকে বললেন, শাহনূরের নাকটা কেটে দিও। আমি তখন খুব ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম।

অনুষ্ঠানের শেষ দিকে চিত্রনায়িকা শাহনূর ‘বুলবুল পাখি ময়নাটি, আয়না যায়না গান শুনিয়ে’ গানটি পরিবেশন করেন।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »






https://www.dailyvorerpata.com/ad/BHousing_Investment_Press_6colX6in20200324140555 (1).jpg
https://www.dailyvorerpata.com/ad/last (2).gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/431205536-ezgif.com-optimize.gif
https://www.dailyvorerpata.com/ad/agrani.gif
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]