বৃহস্পতিবার ● ৬ আগস্ট ২০২০ ● ২২ শ্রাবণ ১৪২৭ ● ১৫ জিলহজ্জ ১৪৪১
বাংলাদেশে প্রথম ১১ কেজি সোনা আমদানি করলো ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড
ভোরের পাতা ডেস্ক
প্রকাশ: রোববার, ৫ জুলাই, ২০২০, ৯:৪০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

বাংলাদেশে প্রথম ১১ কেজি সোনা আমদানি করলো ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড

বাংলাদেশে প্রথম ১১ কেজি সোনা আমদানি করলো ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড

বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে সোনা আমদানি শুরু হয়েছে। দেশে এই প্রথম চালানে মঙ্গলবার রাতে ১১ কেজির সোনা আমদানি করেছে ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড। এর আগে আমদানি নীতিমালা হলেও সোনার আমদানি হয়নি। আমদানির অনুমতি পেয়ে এই সোনা আনার পর ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও এফবিসিসিআই সহ-সভাপতি দিলীপ কুমার আগরওয়ালা এখন সোনার গহনা রপ্তানির আশা দেখাচ্ছেন।

গত ৪ জুলাই, এফবিসিসিআই এর ফেডারেশন ভবনে এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম ও অন্যান্য পরিচালকদের এর উপস্থিতিতে গোল্ডবার বিক্রয় এর আনুষ্ঠানিক শুভ সূচনা করা হয়।

এসময় এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, লাইফস্টাইল প্রোডাক্ট মার্কেটে ডাইমন্ড ওয়ার্ল্ড প্রথম থেকেই প্রগতিশীল ভুমিকা রেখে আসছিলো। আমাদের সম্মানিতি এফবিসিসিআই সহ-সভাপতি দিলীপ কুমার আগরওয়ালা বাংলাদেশে প্রথমবারের মত যে পাকা সোনা আমদানি করেছে তার জন্য তাকে ও তার দলকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। জুয়েলারি পণ্যের বৈচিত্র্যগত দিক থেকে  বাংলাদেশ যে নতুন অধ্যায়ে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে সে জন্য দিলীপ কুমার আগরওয়ালা এবং আরও ১৭টি প্রতিষ্ঠানকে এফবিসিসিআই এর পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানাচ্ছি।

জানা যায়, ২০১৮ সালের আগে বাংলাদেশে বৈধভাবে সোনা আমদানির সুযোগ ছিল না। ওই বছর সরকার দেশের জুয়েলারি শিল্পের জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ স্বর্ণ নীতিমালা প্রণয়ন করে। তাতে সোনা আমদানির সুযোগ দেওয়া হলেও ভ্যাট বেশি হওয়ার কারণে কেউ আমদানি করতে আগ্রহ দেখায়নি বলে জানান বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির (বাজুস) সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগরওয়ালা। তবে এবারের বাজেটে ভ্যাট কমানোয় অনেকেই আমদানির উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জানান তিনি। 

আগরওয়ালা এ বিষয়ে বলেন, বাজেটে অর্থমন্ত্রী সোনা আমদানির ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহারের ঘোষণা দেওয়ার পর পরই ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ডের পক্ষ থেকে দুবাই থেকে ১১ কেজি সোনা আমদানির এলসি খোলা হয়েছিল। সেই সোনা মঙ্গলবার রাতে দেশে এসেছে। এটাই ৪৯ বছরের ইতিহাসে বাংলাদেশে বৈধপথে প্রথম সোনা আমদানি। এর মধ্য দিয়ে দেশের জুয়েলারি শিল্পের ইতিহাসে একটি সোনালী অধ্যায়ের সূচনা হলে। এতদিন যে গোল্ড আসত, তা অবৈধ পথে আসত। আর কিছু আসত ব্যাগেজ রুলসের আওতায়।

এখন দেশে ‘গোল্ডনির্ভর’ শিল্প গড়ে ওঠার প্রত্যাশা জানিয়ে আগরওয়ালা বলেন, কাঁচামাল আসা শুরু হল, এখন এ খাত বিকশিত হবে। একটার পর একটা শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে। সুতা আমদানি করে পোশাক তৈরি করে বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করে যেমন বিদেশি মুদ্রা দেশে আসছে; ঠিক তেমনি গোল্ড দিয়ে তৈরি নানান ধরনের গহনা রপ্তানি করেও বিদেশি মুদ্রা আসবে।

জানা যায়, গোল্ড ডিলার নিয়োগের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ২০১৯ সালের মার্চ মাসে সার্কুলার দেয়। ওই সার্কুলারে ৫০টি প্রতিষ্ঠান ও কয়েকটি ব্যাংক আবেদন করলেও সব শর্ত পূরণ না হওয়ায় মাত্র ১টি ব্যাংক ও ১৮টি প্রতিষ্ঠানকে নবায়নযোগ্য দুই বছর মেয়াদী লাইসেন্স দেয়। গত ১০ জুন ডায়মন্ড ওয়ার্ল্ড তাদের গোল্ড ডিলারশিপের অনুকূলে ১১ কেজি (১১০০০ গ্রাম) পাকা সোনা আমদানির জন্য আবেদন করে। 

আবেদনটি যাচাই বাচাই করে বাংলাদেশ ব্যাংক অনাপত্তি দেয়। এবারের বাজেটে সোনা আমদানির ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট প্রত্যাহার করায় অনেকেই আমদানি করার উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জুয়েলারি ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




আরও সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: vorerpata24@gmail.com news@dailyvorerpata.com