মঙ্গলবার ● ৭ জুলাই ২০২০ ● ২৩ আষাঢ় ১৪২৭ ● ১৫ জিলক্বদ ১৪৪১
'স্বাস্থ্যবিধি মেনেই লঞ্চ চালু করতে হবে'
ভোরের পাতা ডেস্ক
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২৮ মে, ২০২০, ১০:২৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

'স্বাস্থ্যবিধি মেনেই লঞ্চ চালু করতে হবে'

'স্বাস্থ্যবিধি মেনেই লঞ্চ চালু করতে হবে'

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, লঞ্চ শ্রমিক-মালিকের সঙ্গে বিআইডব্লিওটিএর আলোচনা হবে কীভাবে স্বাস্থ্যবিধির আওতায় আনা যায়। ৫০০ জন যাত্রী একটি লঞ্চে আসে, সেই ক্ষেত্রে আমরা ২০০ জন যাত্রী আনা-নেয়া করব। সেক্ষেত্রে পরিবহন খরচটা উঠে আসবে কি না, সেটাও একটা বিষয়। আমরা মালিক-শ্রমিকদের সঙ্গে বসে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিতে পারি। তবে অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনেই আমাদের পরিবহন চালু করতে হবে।

বৃহস্পতিবার (২৮ মে) মিন্টো রোডের সরকারি বাসভবন থেকে এক ভিডিও বার্তায় এসব কথা বলেন নৌ প্রতিমন্ত্রী।

চলমান করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবের মধ্যে গত ২৪ মার্চ থেকে সারাদেশের যাত্রীবাহী নৌপরিবহন বন্ধ রয়েছে।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এই পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ আমরা করতে চাই। এখানে যে কথাটা সবচেয়ে বেশি প্রযোজ্য তা হলো, ভয় নয়, সচেতনতায় জয়। এখন পর্যন্ত যেহেতু প্রতিষেধক আবিষ্কৃত হয়নি, কাজেই আমাদের সচেতনতার সঙ্গে এটিকে জয় করতে হবে এবং সেই আলোকেই আমরা গণপরিবহনগুলো চালুর ব্যবস্থা করব।

নৌ-প্রতিমন্ত্রী বলেন, ৩১ তারিখ থেকেই সীমিত আকারে গণপরিবহন চলাচল শুরু হবে। সে ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য ঝুঁকি থেকে যায় সত্য, তবে ঝুঁকির কথা চিন্তা করে এই পরিস্থিতি এভাবে থামিয়ে রাখা যায় না। আমাদের যেমন স্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করতে হবে, তেমনি অর্থনীতির কথাও চিন্তা করতে হবে।

খালিদ বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে কীভাবে লঞ্চ চালু করা যায় এটা নিয়ে আমরা গত ২০ মার্চ লঞ্চ শ্রমিক-মালিক ও বিআইডব্লিউটিএ একটি বৈঠক করেছি। সেই বৈঠকের আলোকেই আবার আলোচনা সাপেক্ষে লঞ্চ চালু করব।

স্বাস্থ্যবিধি মানার ক্ষেত্রে কিছু পদক্ষেপের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, মার্চের ৮ তারিখ থেকে লিফলেট বিতরণ করেছিলাম এবং বিভিন্ন নদীবন্দরগুলোতে আমরা থার্মাল (স্ক্যানার) দিয়ে প্রাথমিকভাবে (যাত্রীদের শরীরের) তাপমাত্রা পরিমাপ করা শুরু করেছিলাম। প্রথম থেকেই যাত্রীদের সচেতন করার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছি। প্রত্যেকটি নদীবন্দরে আমরা মেডিকেল সেন্টার স্থাপন করার পদক্ষেপ নিয়েছিলাম, যার আলোকে সদরঘাট বরিশাল ও চাঁদপুরে চালু হয়েছিল।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, আমরা চাই আমাদের শ্রমিক ও যাত্রীরা যেন ঝুঁকির মধ্যে না পড়ে। সেই চিন্তা করেই কীভাবে এটা সমন্বয় করা যায় স্বাস্থ্যসম্মতভাবে, পরিবহন খরচ কীভাবে মেটানো যায়, সে ব্যাপারে আমরা আলোচনার ভিত্তিতে যাত্রী পরিবহন শুরু করব।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




আরও সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: vorerpata24@gmail.com news@dailyvorerpata.com