শুক্রবার ● ২৯ মে ২০২০ ● ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ ● ৫ শওয়াল ১৪৪১
জবি ছাত্রলীগের অনন্য উদ্যোগ "হ্যালো ভাই"
জবি প্রতিনিধি
প্রকাশ: সোমবার, ১৮ মে, ২০২০, ৩:২৭ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

জবি ছাত্রলীগের অনন্য উদ্যোগ

জবি ছাত্রলীগের অনন্য উদ্যোগ

করোনায় বিপর্যস্ত সারা বিশ্ব, বাদ যায় নি বাংলদেশও। এই পরিস্থিতিতে অনেক বেশি অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে বাংলাদেশের একমাত্র অনাবাসিক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এই অবস্থায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ কর্মীদের পাশে দাড়িয়েছে জবি ছাত্রলীগের একদল উদ্যমী স্বেচ্ছাসেবক। 

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে কমিটি না থাকা সত্বেও জবি ছাত্রলীগ এর কতিপয় কর্মী নিজ উদ্যোগে তৈরী করেছেন "হ্যালো ভাই" প্লাটফর্ম।" যেখানে ফোন কলে কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের যোগাযোগ করে অর্থনৈতিক সংকটে পড়া যেকোন জবি ছাত্রলীগ কর্মী তাদের সমস্যার কথা জানিয়ে নাম পরিচয় গোপন রেখেই পাচ্ছেন আর্থিক উপহার ও বাজার। এই অর্থনৈতিক উপহার দিয়ে ছাত্রলীগ কর্মীদের পাশে দাড়াচ্ছেন জবি ছাত্রলীগ এর সাবেক ও বর্তমান নেতা-কর্মী বৃন্দ। 

এপর্যন্ত সাবেক ও বর্তমান নেতা কর্মীদের সহায়তায় ১৮ জন জবি ছাত্রলীগ কর্মীকে ১৫৫০০ টাকা উপহার ও ১ মাস ১৩ দিনের বাজার দিয়েছেন জবি ছাত্রলীগের একদল স্বেচ্ছাসেবক। 

এ ব্যাপারে ১১ তম ব্যাচের শেখ রিফাত আব্দুল্লাহ জানান, করোনা মহামারির প্রকোপে সারা পৃথিবী অচল, মধ্যবিত্তদের অর্থনৈতিক জটিলতা দেখা দেওয়া স্বাভাবিক।   আর বেশিরভাগ ছাত্রলীগ কর্মী মধ্যবিত্ত আর অনেকদিন থেকে নেতৃত্বহীন আমাদের ইউনিট।  অনেক সময়  আত্মসম্মানবোধ থেকে নিজের নেতাকেও সমস্যার কথা জানাতে পারে না।  এমন জটিলতায় যেন কোন সহকর্মী কষ্ট না পায় সে প্রয়াস থেকেই নিজ উদ্যোগে পরিচয় গোপন রাখার শর্তে "হ্যালো ভাই" এর কার্যক্রম শুরু করি। "হ্যালো ভাই" নাম করনে একটা মজার ব্যাপার রয়েছে, ছাত্রলীগ সহ-কর্মী জুনিয়র যখন যেকোন জটিলতায় সিনিয়রকে ফোন করে জানায়,  তেমনিই আমাদের জানাবে।

১৩ তম ব্যাচের নওশের আলম ডেভিড জানান, প্রথম আন অফিসিয়ালি অনেক কে হেল্প করতেছিলাম পরে ভাবলাম ছাত্রলীগ এর পক্ষ থেকে এই মহামারি অবস্থায় একটা উদ্যোগ নেয়া উচিত কারণ ছাত্রলীগের অনেক কর্মী ও সাধারন ছাত্ররা অনেকে আর্থিক ভাবে সমস্যায় ভুগতেছে  অনেকে মুখ খুলে বলতে পারেন না তাই আমরা পরিচয় গোপন রেখে জবির ছাত্রলীগ কর্মীদের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। প্রথম দিকে আমাদের অনেক পরিশ্রম করতে হয়েছে ডোনার যোগাড় করতে কিন্তু এখন আমাদের কাজে সবাই খুশি হয়ে স্বতঃস্ফুর্ত  ভাবে সাড়া দিচ্ছে। এই মহামারী যতদিন আছে আমরা কাজ করে যাব। 

এছাড়াও এই স্বেচ্ছাসেবী কার্যক্রমে কাজ করছেন, ১১ ব্যাচের সাজেদুল নাইম, সাইফুদ্দিন জাহাঙ্গীর, দেওয়ান মাসুদ, ১২ ব্যাচের সাঈদুল ইসলাম সাঈদ, মাশফিক আদর, মিরাজ মারুফ, অনিক সরকার, সৌরভ দাস, ১৩ ব্যাচের ইমরান ইমু, সৌরভ ঘোষ, নাহিদ খান, পিয়াল অনুপ, তৌহিদুল আকাশ, সোহরাওয়ার্দী, ১৪ ব্যাচের সুপ্ত, ইশরাক, তাওসীফ, তন্নী, মেহেদী (সমাজবিজ্ঞান), মেহেদী, ইমন, প্রিয়া, তানজিনা, রাকিবুল সহ অনেকে

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




আরও সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]