শুক্রবার ● ৫ জুন ২০২০ ● ২১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ ● ১২ শওয়াল ১৪৪১
দৈনিক ভোরের পাতার অনুসন্ধান তথ্য ফাঁস, সাভারে মায়ের চুল বিক্রির ঘটনার নেপথ্যে!
তোফায়েল হোসেন তোফাসানি, সাভার থেকে
প্রকাশ: বুধবার, ২২ এপ্রিল, ২০২০, ৪:২৬ পিএম আপডেট: ২২.০৪.২০২০ ৪:৩০ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

দৈনিক ভোরের পাতার অনুসন্ধান তথ্য ফাঁস, সাভারে মায়ের চুল বিক্রির ঘটনার নেপথ্যে!

দৈনিক ভোরের পাতার অনুসন্ধান তথ্য ফাঁস, সাভারে মায়ের চুল বিক্রির ঘটনার নেপথ্যে!

ঢাকার সাভারে এক মায়ের চুল বিক্রি করে বাচ্চার দুধ কেনার ঘটনার নেপথ্যে বেরিয়ে এসেছে আসল তথ্য। করোনার কারণে নয়, মূলত: স্বাভাবিক কারণে প্রায় দেড় মাস আগে তিনি ন্যাড়া হয়ে হকারদের কাছে মাথার চুল বিক্রি করেন। 

এ ঘটনার ভূল তথ্য দিয়ে ফেসবুক স্ট্যাটাস এবং সংবাদ পরিবেশিত হওয়ায় দেশে আলোড়ন সৃষ্টি হয়ে যায়। সংবাদ পরিবেশনের পর থেকে মানবিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন অনেকেই। 

এরপর বিষয়টি নিয়ে গোয়েন্দা সংস্থা, পুলিশ, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা-কর্মী এবং সচেতন মহল সকলেই সাহায্য করতে গিয়ে জানেন অন্যকিছু। 

গতকাল(২১ এপ্রিল) থেকে এ পর্যন্ত ঘটে যাওয়া সব ঘটনার অনুসন্ধান করেছে দৈনিক ভোরের পাতা। যা প্রকাশ করা হলো।

ডেটলাইন ২১ এপ্রিল-
একটি ফেসবুক আইডিতে দেখা যায়, সাভারের ব্যাংক কলোনীর জিমের গলির এক ভাড়া বাসায় এক মা দুই. একদিন আগে করোনায় অভাবগ্রস্থ হয়ে চুল কেটে তা বিক্রি করে সন্তানের দুধ ক্রয় করেন। 
 
ঘটনাটি ভাইরাল হয়ে যায় এবং এ নিয়ে সংবাদ পরিবেশন করা হয় টিভি চ্যানেল, পত্রিকা ও অনলাইন গণমাধ্যমে। 

এরপর থেকে মানবিক সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেন পুলিশ, র‌্যাব, প্রশাসনিক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক বৃন্দসহ সর্বস্তরের লোকজন। খুঁজে বের করা হয় ব্যাংক কলোনীর সেই জিমের গলির বাড়ি।

সেখানে ভাড়া বাসায় সাথী আক্তার (২২) থাকেন। তিনি দুই সন্তানের জননী, বড় ছেলে জুনায়েদ (৫) ও ছোট ছেলে জুবায়ের (২) স্বামীর নাম মানিক (২৫)।  এরা কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকায় আসেন কাজের জন্য। রাজধানীর মিরপুরে বসবাস করেন এক বস্তিতে। সেখানে কাজ কর্ম না থাকায় সাভারের ব্যাংক কলোনীতে চলে আসেন গত দুই মাস আগে।  

সাথী ও তাঁর স্বামী মানিক জানান, ব্যাংক কলোনীতে আসার পর তারা অপরিচিত বিধায় কারো কাছে কিছু না বলে কিছুদিন কষ্টে দিন যাপন করেন। প্রায় দেড় মাস আগে সাথী স্থানীয় হকারদের কাছে মাথার চুল বিক্রি করে পান এক’শ আশি টাকা।

সাথী যে ভাড়া বাসায় থাকেন সেই বাড়ি গিয়ে দেখা গেছে, এখানে ১০ টি পরিবারের সকলেই কাজের বুয়া। করোনার প্রভাবে অনেকেই কষ্ট করলেও বাসায় কাজে থাকার কারনে কোন রকম তাদের পেট চলে যাচ্ছিল। 

সাথীর মাথায় চুল না থাকার কারণটি প্রথম তাঁর প্রতিবেশী এক মহিলা জানান পাশ্ববর্তী একটি বাড়িতে। সেই বাড়ির লোকদের মাধ্যমে ফেসবুক পোষ্ট দিলে ঘটনা সকলে জানতে পারেন।

ফেসবুকের পোষ্ট দেখে সকলে মনে করেন যে, করোনায় অভাবগ্রস্থ হয়ে সাথী তার মাথার চুল বিক্রি করে দিয়েছেন। এভাবে ঘটনাটি ভাইরাল হয়ে যায় এবং সকলে মানবিক সাহায্য নিয়ে আসেন সাথীর বাসায়।

সাথী বলেন, যখন চুল বিক্রি করেছি তখন করোনার কোন প্রভাব সংসারে পড়েনি। তবে, করোনায় এখন অভাবগ্রস্থ হয়ে পরেছেন তাঁরা।

ফেসবুকের পোষ্ট ও টেলিভিশন সংবাদ দেখে সাভার উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজিব, সাভার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পারভেজুর রহমান জুম্মন,  সহকারী কমিশনার (ভূমি)আবদুল্লাহ আল মাহফুজ, সাভার পৌর মেয়র হাজী আব্দুল গণি, ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী, যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন ঘটনাস্থলে যান। এছাড়াও র‌্যাব-৪ এর কর্মকর্তা, বাংলাদেশ পুলিশের অনেক সদস্য  এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তারা ছুঁটে যান সাথীর বাসায়। এগিয়ে আসেন মানবিক সাহায্য নিয়ে। 

কিভাবে ফাঁস হলো আসল ঘটনা-
২১ এপ্রিলের ঘটনা সকলের মনে মানবিতার জন্ম দেয়। সাহায্য করতে গিয়ে সকলেই কৌতুহল বশত: জিজ্ঞেস করেন যে, সাথী কিভাবে কখন তাঁর মাথার চুল বিক্রি করলেন। এ সময় সাথী ও তাঁর স্বামী মানিক কিশোরগঞ্জ থেকে ঢাকা এবং ঢাকা থেকে সাভার আসার বিষয়টি বর্ণনা করেন। প্রায় দেড় মাস আগে চুল বিক্রি করেন বলেও তাঁরা প্রকাশ করেন। করোনার কারণে তারা চুল বিক্রি করেছেন কিনা জানতে চাইলে বলেন, দেড় মাস আগে চুল বিক্রি করেছি, তখন এত করোনা ছিল না। তবে বিক্রি করেছি। 

এ বিষয়টি জানার পর ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন। তিনি বলেন, ঘটনাটি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র এবং অপপ্রচার। আসল ঘটনা তদন্তের দাবিও করেন তিনি।

ডেটলাইন ২২ এপ্রিল-
২২ এপ্রিল সকালে সাথীর বাসায় এমনি প্রচুর লোকের ভীর। সকলেই মানবিক সাহায্য নিয়ে সাথীর বাসায়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সকল সংবাদকর্মীরা। এমন সময় ঘটনাস্থলে আসেন ঢাকা জেলার আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাসুদ চৌধুরী। তিনি সংবাদকর্মীদের সামনেই সাথী ও মানিককে জিজ্ঞেস করলেন চুল কাটার ঘটনাটা কি? 
এ সময় সাথী ও মানিক জানায়, মিরপুর থেকে সাভার আসার পর অপরিচিত স্থানে কাউকে কিছু না জিজ্ঞেস করেই হকারের কাছে মাথার চুল বিক্রি করে দেয়া হয়। এতে করোনার কোন প্রভাব নেই।  

এ সময় মাসুদ চৌধুরী বলেন, সাথী ও তাঁর পরিবার ষড়যন্ত্রের শিকার। বাংলাদেশে সাথীকে দিয়ে আরেকটি বাসন্তী সাজিয়ে সরকার ও দেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করেছেন একটি মহল। 

তিনি আরো বলেন, ফেসবুক স্ট্যাটাস ও টিভি সংবাদে ভূল তথ্য প্রকাশ পাওয়ায় দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে। এই ঘটনার দায়ীদের বিরুদ্ধে তিনি আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেন। 

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক হাসান তুহিন বলেন, ঘটনাটি ফেসবুক ও টিভি সংবাদে প্রচার হওয়ার পর ২১ এপ্রিল রাতেই ঘটনাস্থলে গিয়ে জানতে পারি সঠিক এসব তথ্য। এরপরেও মানবিক সাহায্য থেমে নেই।

ঢাকা জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মাহমুদুল হক জানান, বিষয়টি জানার পর আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাথী ও তাঁর স্বামীর সাথে কথা বলেছি। এ সময় আমি জানতে পারি যে, সাথী গ্রাম-গঞ্জের মা-বোনেরা যেভাবে স্বাভাবিক চুল বিক্রি করেন সাথী সেভাবেই চুল বিক্রি করেছেন। এতে করোনার কোন প্রভাব নেই। 

তিনি এ সময় গণমাধ্যমকে আরো দায়িত্বশীল হয়ে কাজ করার আহবান জানান।

সাভার মডেল থানা পুলিশের সূত্র ঘটনাটির তদন্ত করতে গিয়ে জানিয়েছেন চাঞ্চল্যকর তথ্য। সূত্রটি জানায়, মিরপুরে থাকাকালীন সাথীর মাথায় ঘা হয়। ঘা নিয়ে তাঁরা সাভারে চলে আসেন। এ সময় সাথীর মাথার চুল তাঁর স্বামী চেছে দেন। সেই চুল বিক্রি করেন সাথী। এটা একটি স্বাভাবিক ঘটনা। ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করা হয়েছে।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




আরও সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]