বৃহস্পতিবার ● ২৮ মে ২০২০ ● ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ ● ৪ শওয়াল ১৪৪১
ভৈরবে মটরসাইকেল চুরির হিড়িক
চুরি থেকে রেহাই পাচ্ছেনা থানা পুলিশের মটরসাইকেল
। ভৈরব(কিশোরগঞ্জ) প্রতিনিধি
প্রকাশ: শুক্রবার, ২২ মার্চ, ২০১৯, ২:০৪ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

ভৈরবে মটরসাইকেল চুরির হিড়িক

ভৈরবে মটরসাইকেল চুরির হিড়িক

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে মটরসাইকেল চুরির হিড়িক পড়েছে। চোরের দল সাধারণ মানুষ ছাড়াও  বার বার থানার ভিতর থেকে পুলিশের দামী মটরসাইকেল পর্যন্ত চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে।

গতকাল বুধবার মধ্যরাতে ভৈরব থানার সেকেন্ড অফিসার এস আই শ্যামল মিয়ার  ব্যবহৃত সুজুকি কোম্পানীর ১৬০ সিসির নতুন মটরসাইকেল থানার ভিতর থেকে  চুরি করে নিয়ে গেছে। এই সাইকেলটি দুদিন আগে ১ লাখ ৭০ হাজার টাকা দিয়ে তিনি কিনেছিলেন বলে জানান। এই ঘটনার আড়াই মাস তার ( এস আই শ্যামলের)  ১৫০ সিসির একটি পালসার মটরসাইকেল একইভাবে ভৈরব থানার ভিতর থেকে চুরি হয়েছে। এর আগে গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে ( ৭ মাস আগে)   ভৈরব থানার এসআই অভিজিৎ চৌধুরীর  ইয়ামাহা ফেজার মডেলের ১৫০ সিসির একটি মটরসাইকেল গভীর রাতে ভৈরব থানার গ্যারেজ থেকে চুরি হয়ে যায়। গত ৮ মার্চ ভৈরব বিএডিসি সার গুদামের গুদাম রক্ষক আতাউর রহমানের ব্যবহৃত বাজাজ কোম্পানীর  ডিসকভারী ১২৫ সিসির একটি মটরসাইকেল শহরের কমলপুর এলাকা থেকে সন্ধার পর পর চুরি হয়। এর আগে ভৈরবপুর গ্রামের ইতালী প্রবাসী সবুজ নামের এক যুবকের পালসার মটরসাইকেল চুরি হয়। উপজেলার ভিতরে প্রকৌশলীসহ বেশ কয়েকজন কর্মকর্তার মটরসাইকেল  ইতিপূর্বে চুরির অভিযোগ পাওয়া গেছে।  এমনিভাবে ভৈরবে একের পর এক মটরসাইকেল চুরি হলে থানায় জিডি করেও  আজ পর্যন্ত চুরি হওয়া কোন মটরসাইকেল পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি।

 একাধিকবার  খোদ পুলিশ কর্মকর্তার মটরসাইকেল চুরি হলে এখন  জনমনে থানার নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এস আই শ্যামল মিয়ার গাড়ীটি বুধবার চুরির সময় ঘটনাটি থানার সিসি ক্যামেরায় ধারন হলেও চোরকে চিনতে পারছেনা পুলিশ। থানার ডিউটি অফিসারের রুমের সাথেই ছিল মটরসাইকেলটি এবং এসময় দুটি রুমে দুইজন অফিসার চেয়ারে বসা ছিল। এছাড়া থানায় সর্বক্ষন কর্মরত দুজন পুলিশ কনেস্টেবল কর্মরতও থাকলেও তাদের চোখ ফাঁকি দিয়ে কিভাবে কেমন করে মটরসাইকেলটি চুরি হলো একথাটি খোদ  পুলিশসহ  সবার মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। দেশের যেকোন থানার  পুলিশ জনগনের জানমাল ও এলাকার আইন শৃংখলা রক্ষায় নিয়োজিত থাকে। কিন্ত থানার পুলিশ অফিসারের পর পর তিনটি মটরসাইকেল চুরির ঘটনায় থানার  নিরাপত্তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে সবার মনে। জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে চুরির সাথে কি থানা পুলিশের অসৎ কোন পুলিশ জড়িত আছে কিনা। বার বার পুলিশের মটরসাইকেল চুরি হচ্ছে কিন্ত সতর্ক হচ্ছেনা পুলিশের কর্তৃপক্ষ।

এবিষয়ে ভৈরব থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত)  বাহালুল খাঁন বাহার জানান, বিষয়টি স্পর্শকাতর সত্য। পুলিশ অফিসারের তিনটি মটরসাইকেল পর পর চুরি হয়েছে কেন, কিভাবে  ঘটনাটি তদন্ত করা হবে। আজ  থানার অফিসার ইনচার্জ ( ওসি)  মোখলেছুর রহমান নেই, তিনি ছুটিতে আছেন। তিনি কর্মস্হলে আসার পর বিষয়টি নিয়ে বসা হবে বলে তিনি জানান। চুরির ঘটনায় থানার নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে কিনা বিষয়টি তাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, মটরসাইকেল চুরির ঘটনায় থানার নিরাপত্তার সমস্যা হবেনা।




    
   
   
 

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]