বৃহস্পতিবার ● ২৮ মে ২০২০ ● ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ ● ৪ শওয়াল ১৪৪১
হোসেনপুরে ১০ শিক্ষকের ওপর হামলার ঘটনায় পাল্টা পাল্টি মামলা
হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) সংবাদদাতা
প্রকাশ: বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ, ২০১৯, ৩:৫৮ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

হোসেনপুরে ১০ শিক্ষকের ওপর হামলার ঘটনায় পাল্টা পাল্টি মামলা

হোসেনপুরে ১০ শিক্ষকের ওপর হামলার ঘটনায় পাল্টা পাল্টি মামলা

কিশোরগঞ্জের হোসেনপুরে একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক নিয়ে দ্বন্ধের জেরে  ১০ শিক্ষক আহতের ঘটনায় পাল্টা পাল্টি মামলা হয়েছে। ফলে ওই স্কুলের শিক্ষকরা এখন শ্রেণী কক্ষের বদলে আদালতের বারান্দায় ব্যস্ত সময় পাড় করতে বাধ্য হচ্ছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানাযায়,ওই বিরোধের জেরে  গত ১৬ মার্চ হোসেনপুর পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের হিন্দু ধর্মীয় শিক্ষক প্রদীপ কুমার সরকার গ্রুপের লোকজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে মারাত্বক জখম করে উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি, উপজেলা শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক  ও হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মোঃ মোখলেছুর রহমানকে। এ সময় এলোপাতাড়ি হামলায় আরো ১০ শিক্ষক-শিক্ষিকা আহত হয়। এ ঘটনায় পর দিন রোববার  হোসেনপুর থানায় প্রদীপ কুমার সরকারের পক্ষে হোসেনপুর বাজারের ব্যবসায়ী রতন বণিক বাদি হয়ে হোসেনপুর সরকারি মডেল পাইলট স্কুল এন্ড কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ,রাকিবুল হাকিম তানিম, ফাহিম,সুলিমুল্লাহ মাষ্টার,আকরাম হোসেন মিজানুর রহমান খসরুসহ ৮ শিক্ষকের নাম উল্লেখ করে ১০ জনের নামে ব্যবসা প্রতিষ্টানে হামলা ও লুটের মিথ্যা মামলা দায়ের করলে গত ১৯ মার্চ ওই মমলার আসামীরা প্রামান্য স্বাক্ষী নিয়ে কিশোরগঞ্জ আদালতে হাজির হলে আদালত তাদের জামিন মঞ্জুর করেন। আহত মোখলেছুর রহমানের স্ত্রী নার্গিছ সুলতানার দাবি ঘটনার পর থানায় মামলা না নেয়ায় তিন দিন পর গত মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি, প্রদীপ কুমার সরকার, রতন বনিক,উজ্জল কুমার সরকার,দীলিপ কুমার মোদক,মানিক মালি,সেতু মালি,কৃঞ্চা মালি,হূদয় ,সুশান্ত,নয়ন,দীলিপ সংকর, আবুল হোসেন,বীথি রানী মোদক,গীতা রানী ঘোষ,আদিত্য সরকারসহ ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে কিশোরগঞ্জ-৩ আদালতে মামলা দায়ের করে জরুরি প্রতিকার দাবি করেছেন।

উল্লেখ্য,গত বছরের ২৫ জুন হোসেনপুর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জিন্নাত আক্তার অবসরে চলে যাওয়ার পর গত ১৬ আগষ্ট শিক্ষকদের মতামত উপেক্ষা করে স্কুল ব্যবস্থাপনা কমিটি এমপিও নীতিমালা-২০১৮ উপেক্ষা করে সহকারি প্রধান শিক্ষক কাজী আসমাকে বাদ দিয়ে ৫ নম্বর হিন্দু ধর্মীয় শিক্ষক প্রদীপ কুমার সরকারকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককের দায়িত্ব দেওয়ায় অন্য শিক্ষকরা  প্রতিবাদ করেন। পরে বহু দেন-দরবার করেও বিষয়টি নিস্পত্তি না হওয়ায় গত ৯ মাস ধরে শিক্ষক কর্মচারিদের বেতন ভাতাদি বন্ধ রয়েছে। এ নিয়ে ১৬ মার্চ সকালে শিক্ষক মিলনায়তনে শিক্ষক শিক্ষিকাদের মধ্যে বাক-বিতন্ডার সৃষ্টি হওয়ার পর স্কুল শেষে ওই শিক্ষক নেতা মোখলেছুর রহমান বাসায় ফেরার পথে স্কুল গেটে প্রদীপ কুমার সরকারের ভাতিজা উজ্জল কুমারের নেতৃত্বে ধারালো অস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালালে মোখলেছুর রহমানসহ ১০ শিক্ষক-শিক্ষিকা আহত হয়।

এ ব্যাপারে হোসেনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ আবুল হোসেন জানান,শিক্ষক নেতা মোখলেছুর রহমানের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা না নেওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন,গত রোববার প্রদীপ কুমারের পক্ষে ব্যবসায়ী রতন বনিক বাদি হয়ে ৮ শিক্ষকের নামে দোকান লুটের মামলা করেছেন। তবে মোখলেছুর রহমানের পক্ষে মামলা হয়েছে কি না তা তিনি জানেন না বলেও মন্তব্য করেন।

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]