বুধবার ● ৩ জুন ২০২০ ● ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ ● ১০ শওয়াল ১৪৪১
তজুমদ্দিনে আওয়ামী লীগ এবং সতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ
আহত ২০ গ্রেফতার ৯
ভোলা প্রতিনিধি
প্রকাশ: বুধবার, ২০ মার্চ, ২০১৯, ২:২৯ পিএম | অনলাইন সংস্করণ

ছবি: ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাংচুর করা নির্বাচনী অফিস।

ছবি: ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাংচুর করা নির্বাচনী অফিস।

ভোলার তজুমদ্দিনে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ হয়েছে। এসময় ভাংচুর করা হয়েছে উভয় গ্রুপের অন্তত ৪টি নির্বাচনী অফিসসহ বেশ কয়েকটি মটরসাইকেল। এঘটনায় অন্তত ২০জন আহত হয়েছে। পুলিশ এঘটনার পর ৯জনকে গ্রেফতার করেছে।

থানা পুলিশ এবং স্থানীয়রা জানান,গত১৯ মার্চ রাতে উপজেলার চাচড়া ইউনিয়নের কাটাখালী নামক বাজারে নির্বাচনী প্রচারনার সময় আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা এবং আওয়ামী লীগ এর বিদ্রোহী প্রার্থীর আনারস মার্কার সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। থেমে থেমে রাতভর চলে উভয় গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ। আস্তে আস্তে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে ইউনিয়ন পরিষদ সামনের বাজার,মঙ্গলসিকদার চাচড়া বাজারে।এসময় একে অপরের উপর দেশীয় ধারালো অস্ত্র,লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। এতে নৌকা ও আনারস মার্কার অন্তত ৪টি নির্বাচনী অফিস ও একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং বেশ কয়েকটি মটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়।

এঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ২০জন আহত হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ,ডিবি পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে ভোর রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এছাড়া পুলিশ জিঞ্জাসাবাদ এর জন্য ৯জনকে আটক করেছে। বর্তমান এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। এলাকার সাধারন ভোটারদের দাবী প্রশাসন যেন তাদের ভোট দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত কওে,যাতে তারা কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দিয়ে পুনরায় ফিওে আসতে পারে। তা না হলে আমরা কেন্দ্রে ভোট দিতে যাব না,এভাবে হামলা,ভাংচুর আর মারা মারী হলে।

এদিকে এঘটনায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল হক দেওয়ান এবং বিদ্রোহী আনারস মার্কার প্রার্থী মোশারেফ হোসেন দুলাল উভয় উভয়কে হামলা,ভাংচুরের জন্য দায়ী করেন।

অপরদিকে ঘটনার সত্যতা স্বিকার করে তজুমদ্দিন থানার ওসি মো: ফারুক আহমেদ বলেন,ঘটনা শুনে দ্রæত ঘটনাস্থলে পৌছে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রন এনেছে। ৯জনকে গ্রেফতার করা হয়েছ্যে। উভয় পক্ষের ৪টি মামলা নেয়া হয়েছে। নৌকার পক্ষে মামলা করেন মোঃ মান্নু এবং আনারসের পক্ষে ৩টি মামলা নেয়া হয়েছে। এসব মামলার বাদীরা হচ্ছেন মোঃ রাসেল,মোঃ ফারুক ও মোঃ রুবেল।
এসব ঘটনায় উভয় পক্ষের মোঃ সবুজ,শিবলু,সেলমি,জসিম,জাহাঙ্গীর,আব্দুল মান্নান,নিরব,মোঃ আইয়ুব,সোলেমানকে গেস্খফতার করা হয়েছে। যে কোন মুল্যেই হোক নির্বাচন সুষ্ঠ ও শান্তিপূর্ন পরিবেশে করার জন্য সকল ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই ভোলা থেকে ডিবি পুলিশের একটি টিম কাজ শুরু করেছে।  

উল্লেখ্য আগামী ৩১মার্চ ভোলার তজুমদ্দিনে উপজেলা পরিষদ নির্বাচন হবার কথা রয়েছে।



« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




আরও সংবাদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]