বুধবার ● ৩ জুন ২০২০ ● ১৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ ● ১০ শওয়াল ১৪৪১
আশরাফের ৪০ রকমের চা
মনোয়ার জাহান চৌধুরী, স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট
প্রকাশ: শনিবার, ১৬ মার্চ, ২০১৯, ১২:৩৯ এএম আপডেট: ১৬.০৩.২০১৯ ১০:১৪ এএম | অনলাইন সংস্করণ

আশরাফের ৪০ রকমের চা

আশরাফের ৪০ রকমের চা

সাত রঙের চায়ের গল্প আমরা আগেই শুনেছি। এবার শুনুন ৪০ রকমের চায়ের গল্প! তাও আবার সেই সিলেটেই। বিভিন্ন চমকপ্রদ নামের এসব চা বিক্রি করে রীতিমতো হইচই ফেলে দিয়েছেন আশরাফ হোসাইন নামের এক তরুণ চা-দোকানি। সিলেট সদর উপজেলার হাটখোলা ইউনিয়নের শিবেরবাজারের একটি ছোট্ট ঘরে চায়ের ব্যবসা তার।

আশরাফ ৪০ রকমের চা তৈরির এমন গল্প শুনিয়েছেন সময়ের আলোকে। তিনি গল্পচ্ছলে জানান, এক কাপ চায়ের মূল্য ধরা হয়েছে সর্বনিম্ন ৫ টাকা এবং সর্বোচ্চ ২৫ টাকা। মাত্র ৭ মাস ধরে ওই চায়ের দোকান চালাচ্ছেন সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার খানাগাঁও গ্রামের ফিরোজ আলীর ছেলে আশরাফ হোসাইন। দোকানে চা তৈরির জন্য রয়েছে তিনজন কারিগর।
সকাল ১০টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত আশরাফের চায়ের এই ছোট্ট দোকানটি খোলা থাকে বিরতিহীন। চা পিপাসুরা বেশ ভিড় করেন এখানে। তবে বিকাল ৪টা থেকে রাত ১১টা অবদি ব্যস্ত সময় পার করেন আশরাফ। কারণ এ সময়টায় গ্রাহকরা ভিড় করেন বেশি। সন্ধ্যার আবহ তৈরি হলেই বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার লোকজন শখের বশেই এক কাপ চা খেয়ে তৃপ্ত হন।
তিনি জানান, ওই দোকানের মালিকের কাছ থেকে ঘরটি মাসিক ৩ হাজার টাকায় ভাড়া নিয়েছেন। চা তৈরির জন্য তার দোকানে তিনজন কর্মচারীও রেখেছেন। তাদের থাকা খাওয়া ও সম্মানিসহ প্রতি মাসে তাকে গুনতে হয় ১৭ হাজার টাকা। সব ব্যয় বহন করে মাসের শেষে বেশ আয়ও করেন তিনি। যা দিয়ে সুখেই রয়েছে আশরাফের পরিবার।

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে সাত রঙের চাও বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে ৪০ রকমের চায়ের আগেই। এই চায়ের পরিচিতিও ছড়িয়ে পড়ছে সর্বত্র। শ্রীমঙ্গলের পর এবার সাত রঙের চা তৈরি হচ্ছে সিলেটেও। বিশেষ করে ভ্রমণ বিলাসীদের সাত রঙের চায়ের প্রতি আলাদা টান।
সাত রঙের এই চা কী দিয়ে তৈরিÑ এমন কৌত‚হলও জাগায় চা পিপাসুদের মনে। কিন্তু কারিগর চান না এর রহস্য জেনে যাক সবাই। এর পরিচিতি এখন পেরিয়েছে দেশের সীমানা। এবার বোধ হয় আশরাফের দিন। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে ভিড় বাড়ছে তার ৪০ রকমের চায়ের দোকানে। জানা গেছে, ভালো ভালো প্রতিষ্ঠানে পার্সেলও পাঠান তিনি। বড় ভাই আকবর হোসাইনই তাকে এ ব্যবসায় উদ্বুদ্ধ করেছেন বলে জানান তিনি। তার পরিকল্পনাতেই এই চা ব্যবসার প্রসার ঘটছে। এই চা নিয়ে অনেক স্বপ্নও দেখেন আশরাফ।

দুটি পাতা একটি কুঁড়ির দেশ সিলেট। আর এ প্রবাদটিই যেন চা পিপাসুদের মনে আলাদাভাবে জায়গা করে নিয়েছে। সিলেট অঞ্চলে চা উৎপাদন হয় প্রায় ৯০ শতাংশ, আর এ তথ্যটি জানালেন সিলেট চেম্বার অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির সাবেক প্রশাসক ফারুক মাহমুদ চৌধুরী। এ কারণে চা নিয়ে সিলেটের সুখ্যাতি রয়েছে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে আগত ভ্রমণ পিপাসুরা সিলেটে এসে প্রথমে বেরিয়ে পড়েন চায়ের খোঁজে। চা পান করে তারা তৃপ্তির ঢেঁকুরও তোলেন!
 

« পূর্ববর্তী সংবাদপরবর্তী সংবাদ »




সম্পাদক ও প্রকাশক: ড. কাজী এরতেজা হাসান
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক ভোরেরপাতা
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : ৯৩ কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ, কারওয়ান বাজার, ঢাকা-১২১৫।
ফোন:৮৮-০২-৮১৮৯১৪১, ৮১৮৯১৪২, বিজ্ঞাপন বিভাগ: ৮১৮৯১৪৪, ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮১৮৯১৪৩, ইমেইল: [email protected] [email protected]