জটিল কোনো সমস্যা নেই খালেদা জিয়ার

  • ২-Apr-২০১৯ ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শরীরে জটিল কোনো সমস্যা নেই বলে জানিয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. এ কে মাহবুবুল হক। তাকে চিকিৎসার জন্য বিশেষায়িত হাসপাতাল বা বিদেশে নেয়ার প্রয়োজন নেই বলেও জানান তিনি। তবে পায়ের প্রতিটি জয়েন্টে ব্যথা থাকায় খালেদা জিয়া অন্যের সাহায্য ছাড়া হাঁটতে পারছেন না বলে জানিয়েছেন চিকিৎসক।

সোমবার (০১ এপ্রিল) চিকিৎসার জন্য কারাবন্দি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিএসএমএমইউ-তে ভর্তি করা হয়। তার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডের চিকিৎসকরা তাকে দেখে আসার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন হাসপাতালের পরিচালক।

পরিচালক বলেন, ‘ওনার পায়ের প্রতিটি জয়েন্টে ব্যথা রয়েছে। তবে বিশেষ করে ডায়াবেটিসের মাত্রা বেশি রয়েছে। এখন তার ঘুম খুব কম হচ্ছে, যে কারণে জটিলতা বাড়ছে।’

মাহবুবুল হক বলেন, ‘দুপুর পৌনে ১টার দিকে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ভর্তি হন। হাসপাতালের ৬২১ নম্বর কেবিনে ভর্তি আছেন তিনি। ওনার সঙ্গে আসা কারারক্ষীরা ৬২২ নম্বর কেবিনে অবস্থান করছেন।’

খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য পাঁচ সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, পাঁচ সদস্যবিশিষ্ট মেডিকেল বোর্ডের প্রধান হিসেবে রয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. জিলান মিয়া।

এছাড়া অন্যদের মধ্যে রয়েছেন হেমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. সৈয়দ আতিকুল হক, কার্ডিওলজি বিভাগের চিকিৎসক ডা. তানজিলা পারভিন, হেমাটোলজি বিভাগের চিকিৎসক ডা. চৌধুরী ইকবাল এবং হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. এ কে মাহবুবুল হক।

খালেদা জিয়ার পছন্দ অনুযায়ী মেডিকেল বোর্ডের সঙ্গে থাকবেন তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক বিশ্ববিদ্যালয়ের ডা. শামীম আহমেদ ও ডা. মামুন।

মেডিকেল বোর্ডের প্রতি খালেদা জিয়ার আস্থা আছে এমন দাবি করে বিএসএমএমইউর পরিচালক বলেন, ‘বোর্ডের প্রতি ওনার আস্থা রয়েছে। বোর্ডের চিকিৎসকরা আজ ওনাকে দেখেছেন ও ওষুধ দিয়েছেন। অর্থাৎ ওনার চিকিৎসা শুরু হয়েছে। তবে কোনো পরীক্ষা-নিরীক্ষা এখন করা হচ্ছে না। কারণ কিছুদিন আগে তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। এখন আর প্রয়োজন নেই। প্রতিদিন বোর্ডের চিকিৎসকরা নিয়মানুসারে তাকে পর্যবেক্ষণ করবেন। আর আজকে উনি বসে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তুলনামূলকভাবে তিনি আগের তুলনায় এখন ভালো আছেন।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডা. এ কে মাহবুবুল হক বলেন, ‘এমন কোনো জটিল সমস্যা খালেদা জিয়ার নেই যে তাকে দেশের বাইরে নিতে হবে। অর্থাৎ তার পুরো চিকিৎসা এই হাসপাতালেই সম্ভব। আর উনি নিজে সম্মত হয়ে এ হাসপাতালে এসেছেন। জোর করে আনা হয়নি।’

চিকিৎসক জানান, খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় একজন চিকিৎসক প্রতিদিন নিয়োজিত থাকবেন। তিনি তার চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেওয়ার পাশাপাশি অগ্রগতি সম্পর্কে প্রতিবেদন দেবেন।

এর আগে সোমবার বেলা সোয়া ১২টায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে চিকিৎসার জন্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) আনা হয়।

প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড ও আর্থিক জরিমানা করা হয়। ওই রায় ঘোষণার পরপরই খালেদা জিয়াকে পুরান ঢাকার নাজিমউদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়। বিএসএমএমইউতে স্থানান্তরের আগে তিনি সেখানেই ছিলেন।  উল্লেখ্য, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়াকে মোট ১৭ বছরের কারাদণ্ডসহ অর্থদণ্ডের রায় দিয়েছেন আদালত। 

Ads
Ads