‘কোনো বাধাই মানবো না, পুরান ঢাকার কেমিক্যাল গুদাম সরিয়ে নিয়ে যাবো’

  • ৮-মার্চ-২০১৯ ১২:৫৩ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

যত বাধাই আসুক, পুরান ঢাকায় কোনো ধরনের দাহ্য পদার্থের গুদাম রাখা যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বৃহস্পতিবার (০৭ মার্চ) নিজের কার্যালয়ে ঢাকা উত্তর সিটির নতুন মেয়র এবং দুই সিটির নতুন ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের শপথ অনুষ্ঠানে এ কথা জানান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, কিছু দিন আগে যে আগুনটা লাগলো, এটা অত্যন্ত দুঃখজনক। এখানে এই ধরনের দাহ্য পর্দাথ থাকতে পারবে না। তার জন্য আলাদা জায়গা আমরা খুঁজে দিচ্ছি। তাদের ব্যবসা আমরা নষ্ট করতে চাই না। কিন্তু যেখানে বসতি সেখানে গোডাউন রাখতে পারবে না। 

তিনি বলেন, এখানে তারা তাদের শো রুম রাখতে পারবে। যে পণ্য উৎপাদন করে তা বিক্রি করতে পারবে। কিন্তু গুদামের জন্য আমরা সম্পূর্ণ আলাদা জায়গা করে দেবো। যেখানে দাহ্য পদার্থ থাকা নিরাপদ। 

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, একবার নিমতলী হয়ে গেল, এখন এতোবড় ঘটনা। কতোগুলো মানুষের জীবন চলে গেল, কাজেই এখানে যে বাধাই আসুক, কোনো বাধাই আমরা মানবো না। আমরা এটাকে (দাহ্য পদার্থের গুদাম) সরিয়ে নিয়ে যাবো।

শপথ অনুষ্ঠানে নতুন মেয়র ও কাউন্সিলরদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আপনারা তাদের প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন। আমি আশা করব, আপনাদের সেই দায়িত্ব, কর্তব্য শপথ অনুযায়ী পালন করবেন এবং মানুষের কল্যাণে কাজ করবেন।

‘ঐতিহ্যবাহী’ ঢাকা মহানগরীকে দৃষ্টিনন্দন ও সার্বক্ষণিক পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখারও নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। 

দক্ষিণ সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য যেভাবে আসাসিক ফ্ল্যাটের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে একইভাবে উত্তরের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্যও করে দেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন শেখ হাসিনা। 

এছাড়া জেনেভা ক্যাম্পে আটকে পড়া পাকিস্তানিদের ‘অত্যন্ত মানবেতর’ জীবনযাপনের কথা তুলে ধরে তাদের আসানের ব্যবস্থা করার জন্য জায়গা খোঁজার কথা বলেন তিনি। 

শপথ অনুষ্ঠানে নতুন মেয়র ও কাউন্সিলরদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে আপনারা তাদের প্রতিনিধি হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন। আমি আশা করব, আপনাদের সেই দায়িত্ব, কর্তব্য শপথ অনুযায়ী পালন করবেন এবং মানুষের কল্যাণে কাজ করবেন।” 

‘ঐতিহ্যবাহী’ ঢাকা মহানগরীকে দৃষ্টিনন্দন ও সার্বক্ষণিক পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখারও নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। 

দক্ষিণ সিটির পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য যেভাবে আসাসিক ফ্ল্যাটের ব্যবস্থা করে দেওয়া হয়েছে একইভাবে উত্তরের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্যও করে দেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন শেখ হাসিনা। 

এছাড়া জেনেভা ক্যাম্পে আটকে পড়া পাকিস্তানিদের ‘অত্যন্ত মানবেতর’ জীবনযাপনের কথা তুলে ধরে তাদের আসানের ব্যবস্থা করার জন্য জায়গা খোঁজার কথা বলেন তিনি। “তারা যেন কাজ করে খেতে পারে সে সুযোগটাও আমরা সৃষ্টি করে দিতে চাই।”

সিটি করপোরেশনগুলো যাতে নিজেদের অর্থে চলতে পারে- সে ব্যবস্থা করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করে এ বিষয়ে চট্টগ্রামের সাবেক মেয়র প্রয়াত মহিউদ্দিন চৌধুরীর দৃষ্টান্ত দেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, “সব সময় সরকার করবে না। স্থানীয় সরকারের নিজেদেরও করতে হবে।”

অন্যদের মধ্যে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

Ads
Ads