বিএনপিতে ফখরুলের পরিবর্তে নতুন মহাসচিব খুঁজছেন তারেক!

  • ২৭-ফেব্রুয়ারী-২০১৯ ০৮:০৩ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

ক্লিন ইমেজের একজনকে মহাসচিবের জন্য খুঁজছে বিএনপি। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, তিনি সরে যেতে প্রস্তুত। দল চাইলেই তিনি সরে যাবেন। মোটামুটি নিশ্চিতভাবে বলা যায়, বিএনপির মহাসচিব পদ পরিবর্তন হচ্ছে। দল পুনর্গঠনের কোন এক পর্যায়ে বিএনপির মহাসচিবের পদ পরিবর্তন হবে। কিন্তু বিএনপির দায়িত্বশীল একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে যে, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে সরিয়ে দলের সিনিয়র কোন হেভিওয়েট নেতা নয় বরং একজন ফ্রেশ এবং ক্লিন ইমেজের একজনকে মহাসচিব করার ব্যাপারে চিন্তাভাবনা করছেন বিএনপির লন্ডনে পলাতক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া।

এর পেছনে প্রধানত তিনটি কারণ রয়েছে। প্রথমত, বিএনপির যেসমস্ত হেভিওয়েট নেতারা রয়েছেন তারা প্রায় সবাই বার্ধক্যে। আগামী দশ বছরের জন্য একজন মহাসচিব দরকার। যারা বিএনপিকে গুছিয়ে নেতৃত্ব দিয়ে এগিয়ে নিতে পারবেন। 

দ্বিতীয়ত, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্যদের মধ্যে দলাদলি ও কোন্দল প্রকট। এরা একে অন্যের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে এবং গোপনে কাজ করে। যাকেই মহাসচিব করা হোক না কেন স্থায়ী কমিটির মধ্য থেকে। তিনি অন্য সিনিয়র নেতাদের তোপের মুখে পড়বেন। ফলে তিনিজন সুষ্ঠু ভাবে কাজ করতে পারবেন না।

তৃতীয়ত, বিএনপির যে সমস্ত ব্যক্তিরা এখন স্থায়ী কমিটিতে আছেন এবং স্থায়ী কমিটির বাইরে যেসমস্ত সিনিয়র নেতারা রয়েছেন তারা প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে সরকারের সঙ্গে নানাভাবে সম্পৃক্ত। তারা নিজেরা নানাভাবে সরকারের কাছ থেকে সুযোগ সুবিধা নেয়। এদের মধ্যে থেকে কাউকে মহাসচিব করা হলে ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সময় যে অবস্থা হয়েছিল একই অবস্থা হবে।

বরং তিনি চাইছেন যে, একটি আনকোড়া মুখ। যিনি অপেক্ষাকৃত তরুণ, যার স্বচ্ছ ইমেজ রয়েছে। যিনি দলকে নতুন করে গোছাতে পারবেন। এক্ষেত্রে মহাসচিব পর্যায়ে সারপ্রাইজ আসতে পারে বলে জানা গেছে। এতদিন মনে করা হয়েছিল, বিএনপির বর্তমান মহাসচিব সরে গেলে আমির খসরু মাহামুদ চৌধুরী বা নজরুল ইসলাম খানের মত কাউকে মহাসচিব পদে নিয়োগ দেওয়া হতে পারে। কিন্তু সর্বশেষ অগ্রগতিতে স্পষ্টভাবে প্রতীয়মান হচ্ছে যে, বর্তমানের স্থায়ী কমিটির কারো ব্যাপারেই তারেক জিয়া আগ্রহী নন। বরং এক্ষেত্রে তিনি আওয়ামী লীগের পদাঙ্ক অনুসরন করতে চান। আওয়ামী লীগ যেমন দলের হেভিওয়েট নেতাদের প্রেসিডিয়াম সদস্য থেকে সিনিয়র নেতাদের সরিয়ে দিয়ে উপদেষ্টা পরিষদ গঠন হয়েছে। একটা তারুণ্য নির্ভর স্থায়ী কমিটির পুনর্গঠন করতে চান তারেক জিয়া। যে স্থায়ী কমিটিতে বর্তমানের হয়তো কেউই থাকবেন না। বরং তাদেরকে উপদেষ্টা হিসেবে নিয়োগ দেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে। তারেক জিয়া যাদের সঙ্গে আলাপ করেছেন, এদের মধ্যে একজন জানিয়েছেন, দলের পুনর্গঠনে তারেক জিয়া পুরো নেতৃত্বকে ঢেলে সাজানোর চিন্তাভাবনা করছেন। যারা দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্তরের নেতৃত্বে, তাদেরকে সামনে নিয়ে আসার চিন্তাভাবনা করছেন। যারা আগামী দশ বছর বিএনপিকে নেতৃত্ব দিতে পারেন। বর্তমান যে স্থায়ী কমিটির সদস্য আছেন, তারা সবাই নানা রকম রোগ শোকে আক্রান্ত ও ব্যস্ত। নতুন করে আন্দোলনে নেতৃত্ব দেওয়ার মনোবল তাদের মধ্যে নেই। বিএনপিতে নেতৃত্বের একটি নাটকীয় পরিবর্তনের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। এক্ষেত্রে বিএনপির পুনর্গঠনে একটা বড় ধরনের সারপ্রাইজ অপেক্ষা করছে বলে বিএনপির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছেন।

সূত্র: বাংলা ইনসাইডার

Ads
Ads