আফ্রিদির ‘বুমবুম’ নামের আড়ালে রয়েছেন যিনি!

  • ২৯-Aug-২০১৮ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের জন্য তাঁর নাম হয়ে গিয়েছিল ‘বুমবুম’। বুঝতেই পারছেন তিনি শহীদ আফ্রিদি। ভক্তরা আদর করে তাঁকে এ নামে ডেকে থাকেন।

শচীন টেন্ডুলকারকে যেমন ভারতীয়রা ডেকে থাকে ‘গড অব ক্রিকেট’ কিংবা ইয়ান বোথামকে ইংলিশরা যেমন ‘বিফি’ বলে। পাকিস্তানের সাবেক এ অলরাউন্ডারও তেমনি ‘বুমবুম’ নামেই বেশি পরিচিত। কিন্তু এই নামটা তাঁকে দিল কে?

পরিসংখ্যানে পাতায় এর জবাব মিলবে না। ইতিহাস ঘাঁটলেও তা নাও মিলতে পারে। অবশ্য আফ্রিদি নিজে এ প্রশ্নের জবাব দিলে ভিন্ন কথা।

হ্যাঁ, আফ্রিদি নিজেই জানিয়েছেন সেই লোকটির নাম, যিনি তাঁকে ‘বুমবুম’ নামটি দিয়েছেন। তিনি কিন্তু পাকিস্তানের কেউ নন। বরং পাকিস্তানেরই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারতের সাবেক অলরাউন্ডার!

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে ভক্তদের সঙ্গে আড্ডায় বসেছিলেন আফ্রিদি। সেখানে এক ভক্ত তাঁকে প্রশ্নটি করেন, ‘বুমবুম নামটা কে দিয়েছে?’

৩৮ বছর বয়সী আফ্রিদির জবাবে শুধু নামটা উল্লেখ করেছেন, ‘রবি শাস্ত্রী।’ ভারতীয় দলের বর্তমান এই কোচ খেলা ছাড়ার পর ক্রিকেট ধারাভাষ্যে বেশ সুনাম অর্জন করেছিলেন। ‘

ট্রেসার বুলেট’ কিংবা ‘প্রেসার কুকার সিচুয়েশন’-এর মতো বুলি ক্রিকেটে জনপ্রিয় হয়েছে তাঁর কল্যাণে। শাস্ত্রীই আফ্রিদিকে এই ‘বুমবুম’ তকমাটা দিয়েছিলেন।

সেটি ২০০৫ সালের কথা। কানপুরে ওয়ানডে ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ভারত-পাকিস্তান। সেই ম্যাচে ৪৬ বলে ১০২ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলে পাকিস্তানকে ৫ উইকেটে জিতিয়েছিলেন আফ্রিদি। এ ম্যাচে ধারাভাষ্য দেওয়ার সময় আফ্রিদিকে ‘বুমবুম’ নামে ডেকেছিলেন শাস্ত্রী। এরপর থেকে আফ্রিদি এ নামেই পরিচিতি পেয়ে যান।

গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়েন ৩৮ বছর বয়সী আফ্রিদি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে তাঁর ছক্কাসংখ্যাই সর্বোচ্চ (৪৭৬)। সূত্র: প্রথম আলো

/ই

Ads
Ads