সিরিজ হারালো বাংলাদেশ

  • ১৬-ফেব্রুয়ারী-২০১৯ ১১:১৪ অপরাহ্ন
Ads

 

:: স্পোর্টস ডেস্ক ::

এক মার্টিন গাপটিলের ব্যাটে ছুটেছে রানের ফোয়ারা। তারই শতকের ওপর ভর করে নেপিয়ারে বাংলাদেশের বিপক্ষে দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ৮ উইকেটের বিশাল জয় পেয়েছে নিউজিল্যান্ড।
বাংলাদেশের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে অপরাজিত সেঞ্চুরি করে দলকে জিতিয়েছিলেন মার্টিন গাপটিল। আজ দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও তুলে নিয়েছেন সেঞ্চুরি। তিন অংকে পা রাখতে গাপটিল খেলেছেন মাত্র ৭৬ বল; হাঁকিয়েছেন ১১টি চার এবং ৪টি ছক্কা। 

বাংলাদেশের করা ২২৬ রান টপকানোর লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে নিকোলসকে নিয়ে ৭.৪ ওভারেই স্কোরবোর্ডে ৪৫ রান যোগ করেন গাপটিল। টাইগার বোলারদের পরিবর্তন করিয়েও কোনও সুফল পাচ্ছিলেন না অধিনায়ক মাশরাফি। পরে ৬ষ্ঠ ওভারে বল তুলে দেন মুস্তাফিজের হাতে। তিনি চতুর্থ বলেই ব্রেকথ্রু দেন। প্যাভিলিয়নের পথ দেখান নিকোলসকে। 
 
ওটাই শেষ এরপর ক্রিজে এসে উইলিয়ামসন জুটি বাঁধেন গাপটিলের সঙ্গে। করেন ১৪৩ রানের পার্টনারশিপ। যা দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছে দেয়। দলীয় ১৮৮ রানে দ্বিতীয় উইকেট হিসেবে ফিরে যান মার্টিন গাপটিল। এবারও সেই মুস্তাফিজ। ২৯তম ওভারের পঞ্চম বলে ফিজের শটপিচ ডেলিভারি হুক করতে গিয়ে বাউন্ডারির কাছাকাছি লিটন দাসের ক্যাচে পরিণত হন গাপটিল।

যদিও তার আগে কাজের কাজটি তিনি করে যান। ৮৮ বলে ১৪ চার ও ৪ ছয়ে ১১৮ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলেন। তার বিদায়ের পরপরই অর্ধশত তুলে নেন অধিনায়ক উইলিয়ামসন। 

শেষ পর্যন্ত তিনি ৬৫ রানে ও টেইলর ২১ রানে অপরাজিত থেকে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে মাঠ ছাড়েন। অনবদ্য সেঞ্চুরির সুবাদে প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার যায় গাপটিলের হাতে।

বাংলাদেশের হয়ে দুটি উইকেটই লাভ করেন মুস্তাফিজুর রহমান। 

এর আগে তীব্র বাতাস আর কনকনে ঠাণ্ডার মাঝে ক্রাইস্টচার্চে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে ২২৬ রানে অল-আউট হয় বাংলাদেশ। ব্যাটে নেমে কিউই বোলারদের সামনে দলের আর কেউ সুবিধা করতে না পারলেও মোহাম্মদ মিঠুন ঠিকই তার আসল কাজটি করে দিয়েছেন। টাইগারদের সবাই যেখানে পরাস্ত-ধরাশায়ী, সেখানে তিনি খেলেছেন ৫৭ রানের অনবদ্য ইনিংস। এর মাধ্যমে তিনি ওয়ানডেতে চতুর্থবারের মতো অর্ধশতকের দেখা পান তিনি। তবে দুঃসময়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে গেছেন নিজের সাধ্য অনুযায়ী। অবশেষে টড অ্যাস্টলের কাছে হলেন পরাস্ত।
 
শনিবার ক্রাইস্টচার্চের এ ম্যাচটিতে ৬৯ বলে মিঠুন সংগ্রহ করেছেন ৫৭ রান। ১টি ছক্কা ও ৭টি চারের মাধ্যমে সাজিয়েছেন তার ইনিংস। যাতে তার স্ট্রাইক রেট দাঁড়িয়েছে ৮২.৬১।

ম্যাচে এর আগে শুরুতে ওপেনিংয়ে মাঠে নামেন লিটন দাস ও তামিম ইকবাল। ম্যাট হেনরির বলে এলবিডব্লিউ হয়ে সাঁজঘরে ফেরেন দেশসেরা ওপেনার তামিম ইকবাল। ২৮ বল খেলে তামিম করেন ৫ রান। এর আগে লিটন দাস ৪ বল খেলে করেন মাত্র ১ রান। সৌম্য সরকার করেন ২২ রান (২৩ বলে), মুশফিক ২৪ রান (৩৬ বলে) ও মাহমুদউল্লাহ ৭ রান (৮ বলে), সাব্বির রহমান ৪৩ (৬৫ বলে), মেহেদি হাসান মিরাজ ১৬ রান (২০ বলে), মোহাম্মদ সাইফুদ্দীন ১০ রান (১৫ বলে), মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা ১৩ রান (১৮ বলে) এবং মোস্তাফিজুর রহমান ৫ রান (১২ বল খেলে অপরাজিত)।

এদিকে, কিউই বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৩টি উইকেট নেন লকি ফার্গুসন। এরপর দুটি করে নেন টড অ্যাস্টল ও জিমি নিশাম। আর একটি করে উইকেট নেন ম্যাট হেনরি, ট্রেন্ট বোল্ট ও কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম।

টাইগারদের কাছে সিরিজ বাঁচানোর এই ম্যাচটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কেননা প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে বাজেভাবে হেরে যায় বাংলাদেশ। ফলে সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডেটা বাংলাদেশের জন্য হয়ে দাঁড়িয়েছে বাঁচা-মরার লড়াই।
 
নেপিয়ার পর্বে নিউজিল্যান্ড সফরের শুরুটা ভালো হয়নি টাইগারদের। সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে মাশরাফীর দলকে হেসে-খেলে হারিয়েছে স্বাগতিকরা। ম্যাচটা তারা জিতেছে ৮ উইকেটের বড় ব্যবধানে।

ওই ইনিংসে প্রথমে ব্যাট করে ২৩২ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল বাংলাদেশ। জবাবে মার্টিন গাপটিলের হার না মানা সেঞ্চুরিতে ৩৩ বল বাকি থাকতেই জয় তুলে নেয় কিউইরা।

এমনিতেই নিউজিল্যান্ডের কঠিন কন্ডিশন। তার ওপর চোটের কারণে এই সফরে নেই বাংলাদেশ দলের প্রাণভোমরা সাকিব আল হাসান। এখন দেখার পালা, কোমরভাঙা এই ম্যাচটিকে সতীর্থ বোলাররা কত দূর এগিয়ে নিয়ে যান।

বাংলাদেশ: তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ, সাব্বির রহমান, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মাশরাফি বিন মুর্তজা, মোস্তাফিজুর রহমান।

নিউজিল্যান্ড: মার্টিন গাপটিল, হেনরি নিকোলস, কেন উইলিয়ামসন, রস টেলর, টম ল্যাথাম, কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম, জিমি নিশাম, টড অ্যাস্টল, লুকি ফার্গুসন, ম্যাট হেনরি, ট্রেন্ট বোল্ট।

Ads
Ads