এরশাদের মঞ্জুর হত্যা মামলায় প্রতিবেদন পিছিয়ে ২৮ মার্চ

  • ১৭-জানুয়ারী-২০১৯ ১২:০০ পূর্বাহ্ণ
Ads

আদালত প্রতিবেদক

বহুল আলোচিত মেজর জেনারেল মঞ্জুর হত্যা মামলায় অধিকতর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন পিছিয়ে আগামী ২৮ মার্চ পুনর্নির্ধারণ করেছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার ধার্য দিনে তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার আবদুল কাহার আকন্দ প্রতিবেদন দাখিলে সময়ের আবেদন জানান। শুনানি শেষে আবেদন মঞ্জুর করে নতুন এ দিন ধার্য করেন ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ এসএম প্রদীপ কুমার রায়ের আদালত।

মামলায় সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছাড়াও মেজর (অব.) কাজী এমদাদুল হক, লে. কর্নেল (অব.) মোস্তফা কামাল উদ্দিন ভূইয়া, মেজর জেনারেল (অব) আব্দুল লতিফ ও লে. কর্নেল (অব) শামসুর রহমান শামস আসামি। তবে আসামি আব্দুল লতিফ ও  শামসুর রহমান শামসের অংশে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ থাকায় এরশাদ, কাজী এমদাদুল হক ও মোস্তফা কামাল উদ্দিন ভূঁইয়ার বিচার চলছে।

২০১৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি পুনঃযুক্তিতর্কের ধার্য দিনে রাষ্ট্রপক্ষ মামলাটির তদন্তেÍ কিছু ত্রুটি উল্লেখ করে অধিকতর তদন্তের আবেদন জানালে আদালত তা মঞ্জুর করেন। ওই বছরের ২২ এপ্রিল থেকে অধিকতর তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন বার বার পেছানো হচ্ছে।

১৯৮১ সালের ১ জুন জেনারেল মঞ্জুরকে পুলিশের হেফাজত থেকে চট্টগ্রাম সেনানিবাসে নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। ১৯৯৫ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি জেনারেল মঞ্জুরের বড়ভাই ব্যারিস্টার আবুল মনসুর আহমেদ চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ থানায় হত্যা মামলাটি করেন।

ওই বছরের ১৫ জুলাই তৎকালীন সহকারী পুলিশ সুপার আবদুল কাহার আকন্দ আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।
৩৭ বছর আগে সংঘটিত এ হত্যাকা-ের বিচার একবার সম্পন্ন হয়েছিল ২০১৪ সালে। প্রায় ১৯ বছরে ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে ১২ জন বিচারকের হাত ঘুরে হোসনে আরা বেগম রায় ঘোষণার দিনও ধার্য করেছিলেন।

সে সময় মামলাটির ৪৯ জন সাক্ষীর মধ্যে ২৮ জনের সাক্ষ্যগ্রহণ করেন আদালত। ২০১৩ সালের ২ অক্টোবর আত্মপক্ষ সমর্থন করেন এরশাদসহ আসামিরা। এরপর উভয়পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে ২০১৪ সালের ২২ জানুয়ারি হোসনে আরা বেগমের আদালত মামলাটির রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেছিলেন ১০ ফেব্রুয়ারি।

কিন্তু এর মধ্যে ওই বিচারকও বদলি হওয়ায় নতুন বিচারক রায়ের পর্যায় থেকে পুনরায় যুক্তিতর্ক উপস্থাপনের দিন ধার্য করেন ২৭ ফেব্রুয়ারি।

Ads
Ads