'সিটি করপোরেশনের বিভাজনে ঢাকা দক্ষিণ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে'

  • ২৮-জানুয়ারী-২০১৯ ১২:৪৭ পূর্বাহ্ণ
Ads

:: ভোরের পাতা ডেস্ক ::

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র মোহাম্মদ সাঈদ খোকন বলেছেন, ‘২০১১ সালে ঢাকাকে বিভাজন করা হয়। বিভাজনে ঢাকা দক্ষিণ মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। হয়তো ভূমি জরিপ বা এলাকাগত বিষয়ের কারণে এই ক্ষতি হয়। বিভাজনের পর রাজস্ব আয়ের ৪০ ভাগ পায় ডিএসসিসি ও ৬০ ভাগ পায় ডিএনসিসি। অপরদিকে রাজস্ব ব্যয়ের ৬০ ভাগ খরচ হয় ডিএসসিসির আর ৪০ ভাগ খরচ হয় ডিএনসিসির। এটা বড় বৈষম্য।’

আধুনিক নাগরিক সেবা ও করণীয় শীর্ষক মতবিনিময় সভায় রোববার (২৭ জানুয়ারি) নগর ভবনের মেয়র হানিফ অডিটোরিয়ামে সভাপতির বক্তব্যে সাঈদ খোকন এসব কথা বলেন।

সাঈদ খোকন বলেন, ‘আট বছর আগে জনবল কাঠামো অনুমোদনের জন্য মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠিয়েছি। কিন্তু আজও তা অনুমোদন হয়নি, এটা দুঃখজনক। বর্তমানে আমাদের মাত্র ৪০ শতাংশ জনবল রয়েছে যা দিয়ে কোনোভাবেই নাগরিকদের শতভাগ সেবা দেওয়া সম্ভব নয়। যেকোনও সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে একটি প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীয় সরকারের দিকে তাকিয়ে থাকবে এটা হতে পারে না। তাই মন্ত্রীকে বলতে চাই, আমাদের প্রয়োজনীয় জনবল দিন।’

মেয়র বলেন, ‘নাগরিকের আধুনিক সুবিধা নিশ্চিতে নগর সরকারের বিকল্প নেই। এই সংস্থার মাধ্যমে নাগরিক সেবা নিশ্চিতে সমন্বিত কাজ করতে হবে। আর এজন্য প্রয়োজন নগর সরকারের। আমি মন্ত্রীর কাছে এ দাবিটি পুনরায় জানাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘আমরা নানাবিধ চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে চলছি। আমরা ইতিবাচক পরিবর্তন করতে সক্ষম হয়েছি। চার বছর আগের ঢাকা ও আজকের ঢাকার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। আমাদের প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতা কাটিয়ে জনগণকে সচেতন করে এই দুইয়ের সমন্বয়ে বাসযোগ্য ঢাকা গড়ে তোলার চেষ্টা করছি।’

ডিএসসিসির রাজস্ব আয় বাড়ানোর বিষয়ে তিনি বলেন, ‘৩০ বছর ধরে ট্যাক্স অ্যাসেসমেন্ট বন্ধ রয়েছে। নির্বাচনের আগে আমরা ট্যাক্স অ্যাসেসমেন্ট করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনের কারণে তা বন্ধ করতে হয়েছিল। আমাদের এ সেবা সংস্থাটিকে স্বাবলম্বী করতে ওই প্রজ্ঞাপনটি উঠিয়ে নেওয়ার দাবি জানাচ্ছি।’ অনুষ্ঠানে সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও কাউন্সিলরদের বিভিন্ন দাবি রয়েছে বলে মন্ত্রীকে জানান মেয়র সাঈদ খোকন।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন-স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সচিব এস এম গোলাম ফারুক, ঢাকা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী তাকসিম এ খান, ডিএসসিসি'র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোস্তাফিজুর রহমান, স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন প্রমুখ। 

Ads
Ads