শেখ হাসিনার পর আ. লীগে শক্তিধর কে?

  • ২৩-জানুয়ারী-২০১৯ ০২:২১ পূর্বাহ্ণ
Ads

ভোরের পাতা ডেস্ক
‘আওয়ামী লীগ এবং সরকারের সবচেয়ে ক্ষমতাধর মানুষ নিঃসন্দেহে শেখ হাসিনা। কিন্তু আওয়ামী লীগ এবং সরকারের দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তিটি কে? এ নিয়ে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগে ঠাণ্ডা লড়ায়ের খবর পাওয়া যাচ্ছে। লড়াইটা ক্রমশঃ জমে উঠেছে। আর এই লড়াইটা হচ্ছে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের আর প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচ. টি. ইমামের মধ্যে। আওয়ামী লীগের একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এই ঠাণ্ডা লড়াইয়ের খবর দিচ্ছে।

আওয়ামী রাজনীতিতে এই মুহূর্তে নিঃসন্দেহে দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি হলেন ওবায়দুল কাদের। তিনি দলের সাধারণ সম্পাদক। নির্বাচনের পর নতুন মন্ত্রিসভায় যখন সিনিয়র নেতাদের সাইড লাইনে বসিয়ে দেয়া হয়েছে তখন দলে তার প্রভাব অনেক বেড়েছে। কাদের প্রধানমন্ত্রীর আস্থাভাজন হিসেবেই পরিচিত। দলের বাইরে তাকে নিয়ে যতো সমালোচনাই হোক না কেন, দলের ভেতর তিনি পরিশ্রমী হিসেবে পরিচিত। সারাক্ষণই নেতা-কর্মীদের সময় দেন। তৃণমূলের সঙ্গে তার যোগাযোগ প্রায় সার্বক্ষণিক। প্রতিপক্ষের সমালোচনার জবাব দিতে তিনি এক মুহূর্ত বিলম্ব করেন না। জাতীয় সংসদের মনোনয়ন এবং মন্ত্রিসভা গঠনে তার কিছুটা হলেও প্রভাব ছিলো বলে আওয়ামী লীগের ঘনিষ্ঠরা মনে করেন। নতুন যে মন্ত্রিসভা তাতে প্রধানমন্ত্রীর পরই তার প্রভাব। ইদানিং অন্যান্য মন্ত্রণালয়ের নতুন মন্ত্রীদের তিনি পরামর্শ, উপদেশও দিচ্ছেন।

অন্যদিকে, টানা তৃতীয় দফা উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন হোসেন তৌসিফ ইমাম। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগের বিপুল বিজয়ের পর তিনি হয়ে উঠেছিলেন দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তি। কিন্তু ২০১৪ তে নতুন মন্ত্রিসভার পর তার ‘ক্ষমতা’ দৃশ্যত কমে যায়। জনপ্রশাসন উপদেষ্টা থেকে তিনি ‘রাজনৈতিক উপদেষ্টা’ হন। ২০০৮ থেকে ২০১৩ পর্যন্ত আমলাতন্ত্রের চাবি এইচ. টি. ইমামের কাছেই ছিলো বলে অনেকেই মনে করেন। ২০১৪ তে আমলা নিয়ন্ত্রণ হারান এইচ. টি. ইমাম। যদিও তিনি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য কিন্তু দলে তার উল্লেখ করার মতো প্রভাব ছিলো না কখনোই।

প্রশাসনেও দ্বিতীয় মেয়াদে প্রতিপত্তি হারান এই সাবেক জাদরেল আমলা। একরকম অবসর জীবনযাপনই শুরু করেছিলেন হেভিওয়েট মন্ত্রীদের কাছে কোনঠাসা এই উপদেষ্টা। কিন্তু ২০১৭’র শেষভাগে আবার আওয়ামী লীগ সভাপতির নৈকট্য পান ইমাম। নির্বাচন পরিচালনা কমিটির কো-চেয়ার হয়ে আবার জ্বলে ওঠেন এই সাবেক আমলা। নির্বাচনের পর প্রশাসনের কলকাঠিতে আবার তার হাতে পড়েছে বলে খবর পাওয়া যায়। গুরুত্বপূর্ণ রদবদলে তার প্রভাবের কথাও এখন সচিবালয়ে গোপন নয়। আমলারাও পদোন্নতি, ভালো পোস্টিং এর জন্য তার কাছে নতুন করে ধর্না দিচ্ছেন বলেও খবর পাওয়া গেছে।

জানা যায়, মন্ত্রীদের পিএস নিয়োগের ক্ষেত্রে তালিকা প্রণয়নে এইচ টি ইমাম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছেন। কোন মন্ত্রীর সঙ্গে কোন সচিব থাকবে এ বিষয়েও তিনি প্রধানমন্ত্রীকে গুরুত্বপূর্ণ ‘উপদেশ’ দিচ্ছেন বলেও বিভিন্ন সূত্র জানায়। এইচ টি ইমাম চাইছেন সরকার পরিচালনায় আমলা নির্ভরতা বাড়ুক- এমন গুঞ্জন শোনা যায় আওয়ামী পাড়ায়। আর ওবায়দুল কাদের সরকারের রাজনৈতিক কর্তৃত্ব বাড়ানোর পক্ষে। কিন্তু রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, এসব নিয়ে দুই নেতার লড়াই নেই, যেটা আছে তা স্রেফ ভিন্নমত। লড়াইটা আসলে কে প্রধানমন্ত্রীর কতো ঘনিষ্ঠ হবেন। প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্ব এবং আস্থা কে বেশি পাবেন তা নিয়ে।

আওয়ামী লীগের ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, ওবায়দুল কাদের এখন রাজনীতির বাইরে প্রশাসনের ব্যাপারেও তার মতামত দিচ্ছেন। কোন আমলা সরকারের জন্য ভালো কাজ করবে সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কাছে খোলামেলা নিজের মতামত তুলে ধরছেন। অন্যদিকে, এইচ টি ইমামও ইদানিং রাজনৈতিক বিষয় নিয়ে কথাবার্তা বলছেন। মহিলা এমপি কিংবা উপজেলা চেয়ারম্যান মনোনয়ন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা মাথা ঘামাচ্ছেন বলেই শোনা যায়। যেটা একটিভ আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক পছন্দ করছেন না। আবার সাধারণ সম্পাদকের প্রশাসনে হস্তক্ষেপও ঝানু আমলা ইমামের জন্য অস্বস্তি তৈরি করছে বলেই কাছের মানুষরা বলছে। ফলে তাদের মধ্যে শুরু হয়ে গেছে ঠাণ্ডা লড়াই। দিন যতো যাবে এই লড়াই ততোই দৃশ্যমান হবে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। যে লড়াইয়ের একটা ছোট্ট ঝলক আমরা দেখলাম ক’দিন আগেই। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বললেন, ‘প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন।’ অন্যদিকে এইচ টি ইমাম জানালেন, ‘প্রধানমন্ত্রী সংলাপ করবেন।’ যদিও সংলাপ বা শুভেচ্ছা কোনটাই চূড়ান্ত হয়নি এখনো। 

ription Here ...

Ads
Ads